কুয়াকাটা সৈকতে ভেসে আসছে মৃত কচ্ছপ
প্রকাশ : ২২ মে ২০১৯, ১৭:২২
কুয়াকাটা সৈকতে ভেসে আসছে মৃত কচ্ছপ
কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

কুয়কাটার সমুদ্র সৈকতে ভেসে আসছে বিরল প্রজাতির মৃত কচ্ছপ।


স্থানীয়রা এর আগে এ কচ্ছপ গুলো কখনো দেখেনি বলে জানায়। এক একটি কচ্ছপের ওজন ২০ থেকে ৩০ কেজি, আবার কোনটির ওজন আরো বেশি।


জলপাই রংয়ে মৃত কচ্ছপগুলোর পিঠের অংশে ডোরাকাটা দাগ রয়েছে। চোখ এবং মুখের অংশে কালো সেড থাকায় দূর থেকে এটি অন্য কোনো প্রাণী বলে মনে করছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।


সৈকতের দীর্ঘ ২২ কিলোমিটার বিস্তীর্ণ এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে ডজন খানেক মৃত কচ্ছপ দেখতে পেয়েছে স্থানীয়রা।


এ জলজ প্রাণীগুলো জলবায়ু পরিবর্তন, স্বাধীনভাবে চলাচলের প্রতিবন্ধকতা, পানি দূষণ, খাদ্য সংকট, প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে উপকূলের কাছাকাছি এসে জালে আটকা পড়ে মৃত হয়েছে বলে স্থানীয়রা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছেন।


এ তথ্যের সত্যতা স্বীকার করে বনবিভাগ মহিপুর রেঞ্জ কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানিয়েছেন, মৃত কচ্ছপগুলো যাতে করে দুর্গন্ধ না ছড়ায় এ জন্য ব্যবস্থা নিবে বনবিভাগ।


স্থানীয় জেলেদের ধারণা, মা কচ্ছপগুলোর প্রজনন মৌসুম বিধায় সৈকতের বালুতে ডিম পাড়ার জন্য হয়তো আসছিল, যা জালে আটকা পড়ে মারা গেছে।


অপরদিকে, কচ্ছপ বিশেষজ্ঞদের মতে জলবায়ু পরিবর্তনগত কারণে পরিবেশের ভারসাম্যহীনতায় সাগরের কচ্ছপগুলো তীরে ফিরতে শুরু করেছে। এছাড়া সাগরের দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে উপকূলে আসার সময় মাছ ধরার ট্রলারের পাখায় আঘাত পেয়ে মা কচ্ছপ মরা যেতে পারে। এছাড়া উপকূলীয় এলাকায় কিছুদিন ধরে তীব্র গরমও এর মৃত্যুর কারণ হতে পারে।


তবে অনেকের মন্তব্য তারা বিভিন্ন প্রজাতির কচ্ছপ দেখেছেন, কিন্তু এমন প্রজাতির কচ্ছপ এই প্রথম দেখলেন। কচ্ছপ গুলো সৈকত থেকে অচিরেই না সরানো হলে পচে এলাকার আবহওয়া দূষিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। যা পর্যটকদের বিড়ম্বনার কারণ হতে পারে বলে স্থানীয়রা মনে করছেন।



জেলেদের সংগঠন আশার আলো সমবায় সমিতির সভাপতি নিজাম শেখ জেলেদের বরাত দিয়ে জানিয়েছেন, রামনাবাদ ও আন্ধারমানিক চ্যানেলের নদীর সংযোগস্থলও সমুদ্রের মোহনায় অবাধ বিচরণ সামুদ্রিক কচ্ছপের। ডিম পাড়ার জন্য বেলাভূমিতে আসার সময় জেলেদের জালে আটকা পড়ে এগুলো মারা যেতে পারে।


কুয়াকাটা সৈকতের লেম্বুরচর, ঝাউবন, গঙ্গামতিও কাউয়ারচর এলাকার একাধিক জেলের সাথে কথা বললে তারা জানায়, গত ৪/৫ দিন ধরে কুয়াকাটা সৈকতে মৃত কচ্ছপ দেখতে পেয়েছে। এছাড়া চলতি বর্ষা মৌসুমসহ গত বছরে অন্তত ৫টি শুশুক, ১২ ডলফিন, ২টি তিমিসহ সেটেশান প্রজাতির বড় বড় মাছ মরে পচে দুর্গন্ধ ছড়িয়েছে।


জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণীবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. কামরুজ্জামান জানান, কচ্ছপের গায়ে যেহেতু আঘাতের চিহ্ন নেই, সেহেতু দূষিত পানির কারণে এ গুলোর মৃত্যুর কারণ হতে পারে।


উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মনোজ কুমার সাহা জানান, কচ্ছপের গতিপথে জেলেরা জাল ফেলানোর কারণে মৃত্যু হতে পারে।


কুয়াকাটা পৌরসভার মেয়র আবদুল বারেক মোল্লা জানান, মৃত এ কচ্ছপগুলোকে সরিয়ে মাটিতে পুঁতে ফেলার নির্দেশ দেয়া হয়েছে, যাতে কোনো পর্যটকদের ক্ষতির কারণ না হয়।


বিবার্তা/উত্তম কুমার/তাওহীদ/জহির

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com