টেকনাফে ক্যাম্পে সংঘর্ষে আহত ১০, উখিয়ায় রোহিঙ্গা নেতা খুন
প্রকাশ : ১৯ জুন ২০১৮, ১২:৫৪
টেকনাফে ক্যাম্পে সংঘর্ষে আহত ১০, উখিয়ায় রোহিঙ্গা নেতা খুন
কক্সবাজার প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

কক্সবাজারের টেকনাফে লেদা রোহিঙ্গা শিবিরে আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টায় স্থানীয় দুই গ্রুপের সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের ওই রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।


এদিকে এর আগে উখিয়ার পালংখালীর বালুখালী ক্যাম্পে ক্যাম্পে প্রতিপক্ষের লোকজনের কুপিয়ে হত্যা করা এক ‘রোহিঙ্গা কমিউনিটি নেতার’ মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার রাত ৯টার দিকে বালুখালী ১১নং ক্যাম্পের সি ব্লকে এ ঘটনা ঘটে।


টেকনাফ থানার ওসি রণজিত কুমার বড়ুয়া জানিয়েছেন, আহতদের মধ্যে দুইজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তারা হলেন টেকনাফের হ্নীলার মুফিজ আলম ও হেলাল উদ্দিন।


আহতদের মধ্যে ছয়জনকে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল এবং বাকিদের টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। আহত বাকিদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।


রণজিত বলেন, রোহিঙ্গা শিবিরে দুই গ্রুপের সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশের একটি দল সেখানে পাঠানো হয়। স্থানীয়দের দুটি গ্রুপের মধ্যে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। তবে বিষয়টি আরো খতিয়ে দেখে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।


রোহিঙ্গা নেতারা জানান, স্থানীয় ইউপি সদস্য ও তালিকাভুক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী নুরুল হুদার নেতৃত্বে একটি গ্রুপ লেদা রোহিঙ্গা শিবির নিয়ন্ত্রণ করে আসছে। তার নির্দেশের বাইরে লেদা শিবিরে কেউ কথা বলতে পারে না। অন্যদিকে, শরণার্থী শিবিরের আরেক অংশ নিয়ন্ত্রণ করেন স্থানীয় মুফিজ আলমের গ্রুপ। তাদের দুই গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে রোহিঙ্গা শিবির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দ্বন্দ্ব চলে আসছে।


সোমবার দিনের বেলা শিবিরের ভেতরে জুয়া খেলা নিয়ে উভয় গ্রুপের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরে রাতে ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে সংর্ঘষ হয়। এতে উভয় পক্ষ অস্ত্র ব্যবহার করে। সংঘর্ষে প্রায় ১০ জন আহত হন। এ ঘটনার পর রোহিঙ্গা শিবিরের লোকজন ভয়ের মধ্যে রয়েছেন।


এদিকে উখিয়া থানার ওসি আবুল খায়ের জানান, দুর্বৃত্তের হাতে খুন হওয়ার খবর পেয়ে ক্যাম্প থেকে আরিফ উল্লাহ (৪৫) নামে ওই কমিউনিটি নেতার মরদেহ উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। আরিফ ১১ নং ক্যাম্পের সি ব্লকের এখলাছ মিয়ার ছেলে ও দুই ছেলে জনক।


ওসি বলেন, আমরা ধারণা করছি, অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে আরিফকে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে। হামলাকারীর ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে হত্যা করেছে।


পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছার আগেই আরিফের হত্যাকারীরা পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি বলে জানান ওসি।


গত বছরের ২৪ আগস্টের পর মিয়ানমার থেকে পালিয়ে এসে কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন শিবিরে প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে। এছাড়া আরো প্রায় চার লাখ রোহিঙ্গা আগে থেকেই বাংলাদেশে বসবাস করছে।


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com