অবৈধ ঘোষণার পরও মধুমতি মডেল টাউনে চলছে নির্মাণ কাজ
প্রকাশ : ১৭ মে ২০১৮, ১০:৫৬
অবৈধ ঘোষণার পরও মধুমতি মডেল টাউনে চলছে নির্মাণ কাজ
সাভার প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম ইসলামের নির্দেশ সত্ত্বেও এখনো সাভারে মধুমতি মডেল টাউনের বিদ্যুৎ সংযোগ কেটে দেয়া হয়নি, এখনো প্রতিদিন চলছে ফ্ল্যাট নির্মাণের কাজ। এ নিয়ে এলাকায় স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।


উচ্চ আদালত থেকে অবৈধ ঘোষিত সাভারের ভাকুর্তা ইউনিয়নে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের আমিনবাজারের পাশে অবস্থিত মধুমতি মডেল টাউনে গড়ে তোলা হচ্ছে আবাসিক ভবন।


আদালতের রায় অনুযায়ী, প্রকল্পের ভরাট করা মাটি অপসারণ করে ৬ মাসের মধ্যে যেখানে জলাভূমিগুলোকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনার কথা ছিল সেখানে এখন চলছে ১০টিরও বেশি বাড়ির কাজ। কয়েকটিতে বাড়িতে মানুষ বসবাস শুরু করেছে এবং মধুমতি মডেল টাউনের ভিতরে গড়ে উঠেছে অনেক দোকানপাট। এছাড়া রয়েছে অনেক শুটিং স্পট।


এদিকে দু’দিন আগে সাভারের হেমায়েতপুরে এক অনুষ্ঠানে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার, ঢাকা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ এর জেনারেল ম্যানেজার ও সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে বিষয়গুলো ক্ষতিয়ে দেখে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন মধুমতি টাউনের বিরুদ্ধে। কিন্তু মন্ত্রীর নির্দেশ কোনো কাজেই আসছে না। উল্টো মধুমতি টাউনের ভিতরে সন্ত্রাসীদের আনাগোনা বেড়ে গেছে। অপরিচিত লোকজনের প্রবেশ কড়াকড়ি করা হয়েছে।



সাবেক প্রধান বিচারপতি মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বে ছয় বিচারপতির বেঞ্চ ২০১২ সালের ৭ আগস্ট মধুমতি মডেল টাউন প্রকল্পটিকে অবৈধ ঘোষণা করেছিলেন। ২০১৩ সালের ১২ জুলাই ওই রায়ের পূর্ণাঙ্গ কপি প্রকাশিত হয়। রায়ে প্রকল্পটিকে অবৈধ উল্লেখসহ প্লট ক্রেতাদের দ্বিগুণ পরিমাণ টাকা ফেরত দিতে মধুমতি মডেল টাউন আবাসিক প্রকল্প কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেয়া হয়।


বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) ও মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস লিমিটেডসহ পক্ষগুলোর পৃথক পাঁচটি আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ রায় দেয়া হয়।


রায়ে প্রাকৃতিক ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য ওই এলাকায় অবস্থিত প্রকল্পের জায়গা আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ভরাট করা মাটি অপসারণ করে ৬ মাসের মধ্যে জলাভুমিগুলোকে পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে হবে আবাসন কোম্পানি মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস লিমিটেডকে।



রায়ে বলা হয়, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) ও পরিবেশ অধিদফতরের অনুমতি ছাড়াই আবাসন কোম্পানি মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস লিমিটেড আমিনবাজার এলাকায় মধুমতি মডেল টাউন প্রকল্প নামে আবাসিক এলাকা গড়ে তোলে। যা সম্পূর্ণ অবৈধ। ২০০৩ সালে সাভারের আমিনবাজারে মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস লিমিটেডের মধুমতি মডেল টাউন প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু হয়। এ প্রকল্পের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে বেলা হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করে ২০০৪ সালে। প্রাথমিক শুনানি শেষে আদালত রুল জারির পাশাপাশি প্রকল্পের কাজে স্থগিতাদেশ দেন।


২০০৫ সালের ২৭ জুলাই হাইকোর্টের রায়ে ওই প্রকল্পকে অবৈধ ঘোষণা করা হয়। একই সঙ্গে বন্যাপ্রবাহ এলাকাকে সচল রাখতে সংশ্রিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেয়া হয়। হাইকোর্টের এ রায়ের বিরুদ্ধে মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস লিমিটেড সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে আবেদন করে। এসব আবেদনের ওপর চুড়ান্ত শুনানি শেষে আপিল বিভাগ প্রথমে সংক্ষিপ্ত রায় ঘোষণা করেন।


বিবার্তা/শরিফুল/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com