ইন্দুরকানী হাসপাতালে ৯ বছরেও চালু হয়নি আন্তঃবিভাগ সেবা
প্রকাশ : ১৪ জানুয়ারি ২০১৮, ১৫:১৮
ইন্দুরকানী হাসপাতালে ৯ বছরেও চালু হয়নি আন্তঃবিভাগ সেবা
পিরোজপুর প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

পিরোজপুরের ইন্দুরকানী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি প্রতিষ্ঠার ৯ বছরেও চালু হয়নি আন্তঃবিভাগ সেবা। ফলে স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে স্থানীয় ২ লক্ষাধিক মানুষ। বছরের পর বছর সরকারি অর্থ বিফলে গেলেও হাসপাতটি থেকে জনগণ পাচ্ছে শুধু চিকিৎসাপত্র।


২০০৫ সালে এ উপজেলার জনগণের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতের জন্য ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নির্মাণ কাজ শুরু হয়ে শেষ হয় ২০০৮ সালের নভেম্বর মাসে। নির্মাণ কাজ শেষ হবার পরেই উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, ডাক্তার, নার্স, অফিস সহকারীসহ বিভিন্ন পদে লোক নিয়োগ দেয়া হয়। ৩ তলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভবন, প্রয়োজনীয় ডাক্তার ও নার্সসহ জনবল থাকলেও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আন্তঃবিভাগ চালু হয়নি নির্মাণের ৯ বছর পেরিয়ে গেলেও।


হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি প্রয়োজনীয় বরাদ্ধ না দেয়ায় হাসপাতালের আন্তঃবিভাগ চালু হয়নি। এখানে কর্তব্যরত ডাক্তার রোগীদের শুধু মাত্র ব্যবস্থাপত্র দিয়ে থাকেন। গুরুতর রোগীদের আবাসিক সেবার প্রয়োজন হলে তাদের প্রেরণ করা হয় জেলা সদর বা বিভাগীয় শহরে। ফলে উপজেলাবাসীর স্বাস্থ্যসেবায় তেমন কোন ভূমিকা রাখতে পারছে না এ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি। এখানে শুধু চিকৎসাপত্র ছাড়া কিছু পাওয়া যায় না। অসুস্থ হলে যেতে হয় পিরোজপুর সদর বা বাগেরহাটে।


এলাকার দরিদ্র মানুষের জন্য সেই একই অবস্থা, যা হাসপাতালটি হওয়ার আগে ছিল। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তার আছে, জনবল আছে শুধু ঔষধ সরবরাহ ও ইনডোর চালুহলে এ এলাকার মানুষের কিছুটা স্বাস্থ্য সেবা দেয়া যেত।


ইন্দুরকানী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকতা ডা. শংকর কুমার ঘোষ জানান, প্রয়োজনীয় বরাদ্ধ না দেয়ায় হাসপাতালের আন্তঃবিভাগ চালু করা যায়নি।


অন্যদিকে, দ্রুত ইন্দুরকানী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ঔষধ সরবরাহসহ আন্তঃবিভাগ চালু করার দাবি এলাকাবাসীর।


বিবার্তা/শুভ/শান্ত

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com