আজ ত্রিশাল মুক্ত দিবস
প্রকাশ : ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:৫৮
আজ ত্রিশাল মুক্ত দিবস
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

আজ ৯ ডিসেম্বর ত্রিশাল মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা প্রাণপণ যুদ্ধ করে ত্রিশালকে পাক হানাদার মুক্ত করেন। এ যুদ্ধের নেতৃত্ব দেন আফছার ব্যাটালিয়নের এফ, জে ১১ নম্বর সেক্টরের যুদ্ধকালীন কোম্পানি কমান্ডার আবদুল বারী মাষ্টার।


মুক্তিযোদ্ধা আবেদ আলী মেকার কর্তৃক দেয়া তথ্য পর্যালোচনা করে ৮ ডিসেম্বর রাত ১২টার সময় বেদখলকৃত ত্রিশাল থানা আক্রমণের সর্বশেষ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। অতঃপর ত্রিশাল থানার দক্ষিণ দিকে মাত্র কয়েক’শ গজ দুরে সুতিয়া নদীর কুল ঘেঁষা জঙ্গলে মুক্তিযোদ্ধারা সশস্ত্র অবস্থান নেয়।


সারারাত প্রচণ্ড গুলাগুলিতে ত্রিশাল শহর প্রকম্পিত হয়ে উঠে। মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমণে রাজাকাররা ভোরের দিকে ত্রিশাল থানার দখল ছেড়ে পিছু হটতে বাধ্য হয়। এ যুদ্ধে আত্মঘাতী বুলেটে শহীদ হন মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন।


যুদ্ধ চলার সময় কোম্পানি কমান্ডার ফয়েজ উদ্দিনের নেতৃত্বে আরেকটি মুক্তিযোদ্ধা গ্রুপ আবদুল বারী মাষ্টারের কোম্পানিতে এসে যোগ দিলে পুরো রণক্ষেত্র মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।


এসময় মুক্তিযোদ্ধারা ধাওয়া করে ৪ জন রাজাকারকে হাতে নাতে ধরে ফেলে এবং রাজাকারদের নিকট থেকে ২৬টি রাইফেল উদ্ধার করেন। থানা দখলের সংবাদ পেয়ে জনতা আনন্দ উল্লাসে ত্রিশাল শহরের কবি নজরুল একাডেমি মাঠে সমবেত হতে থাকে।


৯ ডিসেম্বর সকাল ৮টার দিকে ভারতের জঙ্গি বিমান থানার বিভিন্ন অঞ্চলে সেলিং করতে থাকে। সকাল ৯টার সময় জনতার ব্যাপক আনন্দ উল্লাস ও অশ্রুজল হাসির মধ্য দিয়ে ত্রিশাল কবি নজরুল একাডেমি মাঠে তৎকালীন আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক জৈমত আলী মাষ্টার, সাধারণ সম্পাদক ওয়াহিদুল আলম, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক আলহাজ্ব নবী নেওয়াজ সরকারের বাবা মাহতাব উদ্দিন সরকার, বর্তমান মেয়র এবিএম আনিছুজ্জামানের বাবা সাবেক চেয়ারম্যান আবুল হোসেন সরকার ও বর্তমান উপজেলার চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল মতিন সরকারসহ নাম না জানা অন্যান্য ব্যক্তিবর্গ। পাকিস্তানি পতাকা পুড়িয়ে ত্রিশালের মুক্ত আকাশে পাকহানাদারমুক্ত স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করা মাত্রই ত্রিশালের আকাশে বাতাসে ধ্বনিত হয়ে উঠে স্বাধীনতার সেই চিরচেনা সুর, জয় বাংলা-বাংলার জয়।


ত্রিশালমুক্ত দিবস পালন উপলক্ষে মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন সংগঠন নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। তন্মধ্যে শহীদদের বেদিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, মুক্তদিবসের র‌্যালি, মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা, আলোচনাসভা ইত্যাদি।


বিবার্তা/বাপ্পী/জহির

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanews24@gmail.com ​, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com