একযুগ পর লাভে মধ্যপাড়া পাথর খনি
প্রকাশ : ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৫:৩২
একযুগ পর লাভে মধ্যপাড়া পাথর খনি
দিনাজপুর প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

প্রায় এক যুগ পর লাভের মুখ দেখেছে দেশের একমাত্র ভু-গর্ভস্থ্য পাথর খনি মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড (এমজিএমসিএল)।


গত ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে প্রতিষ্ঠানটি ৭ কোটি ২৬ লাখ টাকা মুনাফা করেছে।দিনাজপুরের গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড (এমজিএমসিএল) বাণিজ্যিক ভাবে উৎপাদন শুরু করে ২০০৭ সালের ২৫ মে থেকে। প্রথম অবস্থায় খনি থেকে দৈনিক ১৫ থেকে ১৮শ টন পাথর উত্তোলন হলেও পরে তা নেমে আসে মাত্র ৫০০ টনে। উৎপাদন শুরুর ৬ বছরে খনিটি লোকসান দিয়েছে প্রায় শতকোটি টাকা। অব্যাহত লোকসানের মুখে খনির উৎপাদন বাড়াতে ২০১৪ সালের ২৪ ফেব্রয়ারি খনির উৎপাদন ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য দায়িত্ব দেয়া হয় বেলারুশের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জামানিয়া ট্রেস্ট কনসোটিয়াম জিটিসি কে।


জিটিসি ১৭১.৮৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিনিময়ে ৬ বছরে ৯২ লাখ টন পাথর উত্তোলন করে দেয়ার চুক্তিবদ্ধ হয়।


২০১৪ সালে দায়িত্ব নেয়ার পর জিটিসি ৩ শিফটে পাথর উত্তোলন শুরু করে।৬ মাসের মধ্যে দৈনিক উৎপাদন ৫০০ টন থেকে সাড়ে ৫ হাজার টনে উন্নীত করে।২০১৫ সালের ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তারা পাথর উত্তোলন করে ১১ লাখ ৯২ হাজার টন। কিন্তু আধুনিক ইকুইপমেন্টের অভাব দেখিয়ে ২০১৫ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে পুরোপুরি পাথর উত্তোলন বন্ধ করে দেয় জিটিসি। জিটিসি দায়িত্ব নেয়ার পরও বিভিন্ন সময়ে ইকুইপমেন্টের অভাব, খনি কর্তৃপক্ষের সাথে মতবিরোধ সহ বিভিন্ন কারণে পাথর উত্তোলন ব্যহত হয়। ফলে প্রতিষ্ঠানটিকে কয়েকশ কোটি টাকা লোকসান গুনতে হয়।


গত ২০১৭-১৮ অর্থ বছরেও খনিটি লোকসান হয় ৩ কোটি ৫১ লাখ টাকা। অব্যাহত লোকসানের পর অবশেষে লাভের মুখ দেখতে শুরু করেছে খনিটি। গত ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে প্রতিষ্ঠানটি ৭ কোটি ২৬ লাখ টাকা মুনাফা করেছে। অব্যাহত লোকসানের ১২ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম লাভের মুখ দেথলো।


গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের মহাব্যবস্থাপক (মাইনিং ওপারেশন) আবু তালেব মোহাম্মদ ফারাজী জানান, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে খনি থেকে ১০ লাখ ৬৭ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৬৪ কোটি ১৪ লাখ টাকায পাথর বিক্রি হয়েছে। ইয়ার্ডে বর্তমানে ৬লাখ মেট্রিক টন পাথর মজুদ রয়েছে। খনির নতুন স্টোপ নির্মাণ, নতুন যন্ত্রপাতি,বিদেশি মেশিনারিজ স্থাপন করে ৩ শিফটে পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে। ৭ শতাধিক খনি শ্রমিক পাথর উত্তোলনের জন্য কাজ করছে।এখন গড়ে দৈনিক ৫ হাজার টন পাখর উত্তোলন হচ্ছে। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামিতে আরো বাড়বে পাথর উত্তোলন এমনটাই মন্তব্য করছেন বিশেষজ্ঞরা।


বিবার্তা/শাহী/জাই


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanews24@gmail.com ​, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com