২৪ বছর পর নিখোঁজ মেয়ের সন্ধান পেল মা-বাবা
প্রকাশ : ০৪ এপ্রিল ২০১৮, ১০:৫৩
২৪ বছর পর নিখোঁজ মেয়ের সন্ধান পেল মা-বাবা
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

দুই যুগ ধরে সন্ধান করার পর চীনে এক বাবা তার মেয়েকে খুঁজে পেয়েছেন। ২৪ বছর আগে মেয়েকে হারিয়ে ফেলার পর তাকে হন্যে খুঁজেছেন বাবা ওয়াং মিংকিং।


কোনো একদিন পথে মেয়ের সঙ্গে দেখা হয়ে যেতে পারে এই আশায় বেছে নিয়েছিলেন ট্যাক্সিচালকের পেশাও। তিনি স্বপ্ন দেখতেন যে, সিচুয়ান প্রদেশের চেংডু শহরে গাড়ি চালাতে চালাতে হয়তো একদিন তিনি তার হারিয়ে যাওয়া মেয়েকেই যাত্রী হিসেবে তুলে নিয়েছেন।


কিন্তু এবছরের শুরুর দিকে মেয়ের সঙ্গে তার যোগাযোগ হয়। তবে রাস্তায় গাড়ি চালানোর সূত্রে নয়, তাদের মধ্যে যোগাযোগ হয় ইন্টারনেটের কল্যাণে। অনলাইনে বাবার একটি পোস্ট দেখে মেয়েটি নিজেই তার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন। মঙ্গলবার তারা আবার একত্রিত হয়েছেন। ওয়াং তার মেয়েকে বুকে জড়িয়ে ধরে বলেছেন, ‘বাবা তোমাকে ভালোবাসে।’


অবিশ্বাস্য এই খবরটি চীনের সংবাদ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। অনেকে এই ঘটনায় আনন্দ উৎসবও করেছেন। ওয়াংয়ের কন্যা কিফেং হারিয়ে যায় যখন তার বয়স ছিলো মাত্র তিন বছর।


ওয়াং সংবাদমাধ্যমে জানান, তিনি ও তার স্ত্রী লিও দেংগিং’র রাস্তায় ফল বিক্রি করতেন। একদিন মেয়েকে সাথে নিয়ে স্বামী-স্ত্রী রাস্তার পাশে স্টলে ফল বিক্রি করছিলেন। এক ক্রেতার কাছে ফল বিক্রি করা শেষে তিনি হঠাৎ দেখলেন যে তাদের মেয়ে কিফেং তাদের সঙ্গে নেই।



মেয়ের খোঁজে তারা তাদের শহরে ও আশেপাশের এলাকায় বছরের পর বছর ঘুরে বেড়িয়েছেন। পত্রপত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়েছেন, পোস্ট দিয়েছেন অনলাইনে। এই দম্পতি তাদের মেয়েকে খুঁজে পাবেন এই আশায় তারা কখনো চেংডু শহর ছেড়ে যাননি। তারা ভেবেছিলেন কিফেং যদি রাস্তা খুঁজে বাড়িতে ফিরে আসে। কিন্তু সে রকমটা হয়নি।


ওয়াং তার এই খোঁজ বাড়াতে ২০১৫ সালে যোগ দেন একটি ট্যাক্সি কোম্পানিতে। তার গাড়ির কাঁচে তিনি মেয়ের সন্ধান চেয়ে একটি বিজ্ঞাপন লাগিয়ে দিয়েছিলেন। তিনি যেখানে যেতেন সেখানেই তিনি কিছু কার্ড বিতরণ করতেন যেখানে কিফেংয়ের ব্যাপারে কিছু তথ্য লেখা ছিলো। যেসব যাত্রীকে তিনি তার গাড়িতে তুলতেন তাদের কাছেও তিনি এই কার্ড বিলি করতেন।


এই দম্পতির আরো একটি মেয়ে আছে। কিফেংয়ের কোনো ছবি ছিলো না এই পরিবারটির কাছে। সেকারণে পিতা ওই লিফেলটে তার অন্য মেয়ের ছবি ব্যবহার করতেন। কারণ তাদের চেহারায় মিল ছিলো।


তার এই অভিনব কৌশল চীনা সংবাদমাধ্যমের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, হয়তো একদিন আমার মেয়ে আমার গাড়িতেই উঠবে। এর মধ্যে চীনা পুলিশ বেশ কয়েকজন নারীকে চিহ্নিত করে যারা কিফেং হতে পারে বলে তারা ধারণা করেছিলেন। কিন্তু ডিএনএ পরীক্ষা করে দেখা গেছে সেরকম কিছু নয়।


এই সন্ধানে বড় ধরনের অগ্রগতি ঘটে গত বছরের শেষ দিকে। পুলিশ বিভাগের একজন শিল্পী পিতা ওয়াংকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসেন। বড় হয়ে যাওয়ার পর কিফেং দেখতে কেমন তার একটা ছবি এঁকে দেন তিনি। তারপর সেই ছবিটি ছড়িয়ে দেয়া হয় অনলাইনে।


তখন চীনেরই হাজার মাইল দূরের একটি জায়গায় কাং ইং নামের এক নারী এই ছবিটি দেখতে পান। তার সঙ্গে ছবিটির এতো মিল দেখতে পেয়ে তিনি চমকে যান। এ বছরের শুরুর দিকে তিনি ওয়াংয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তার সঙ্গে কথা বলে দেখতে পান ওয়াং এমন কিছু চিহ্নের কথা বলছেন যার সাথে মিলে যাচ্ছে। যেমন তার কপালের ছোট্ট একটি দাগ। আরো বলেন, তার মেয়ে যখন কাঁদতো তখনই তার বমি হতো।



তারপর খুব দ্রুত ডিএনএ পরীক্ষার উদ্যোগ নেয়া হয়। এবার ফল হলো ইতিবাচক হওয়ায় ওয়াং শেষ পর্যন্ত ২৪ বছর আগে হারিয়ে ফেলা তার মেয়েকে খুঁজে পেলেন। সোমবার তারা একটি ভয়েস ম্যাসেঞ্জার অ্যাপের মাধ্যমে কথা বলেন প্রথমবারের মতো।


ওয়াং বলেন, এখন থেকে বাবা তোমার সঙ্গে। কোনো কিছু নিয়ে আর তোমাকে চিন্তা করতে হবে না। বাবা তোমাকে সাহায্য করবে। মঙ্গলবার তারা সত্যিকার অর্থেই মিলিত হলেন। উত্তরের ঝিলিন প্রদেশ থেকে বিমানে করে উড়ে আসেন চেংডুতে। সঙ্গে ছিলো তার স্বামী, পুত্র ও কন্যাও।


পরে কাং ইং সাংবাদিকদের কান্না মেশানো কণ্ঠে বলেন, সবাই বলতো আমার কোনো মা নেই। কিন্তু আছে। গত ২৪ বছর ধরে আমি কি ধরনের আশা, হতাশা আর কষ্টের মধ্যে দিয়ে গেছি সেটা আমি আপনাদের বলতে পারবো না। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আমরা একে অপরকে খুঁজে পেয়েছি।


চীনা সংবাদমাধ্যমে বলা হচ্ছে, কাং ইং তার বাবার বাড়ি থেকে মাত্র ১২ মাইল দূরের একটি শহরে বেড়ে উঠেছেন। কিন্তু এর বাইরে তিনি আর কিছুই বলেননি। সূত্র: বিবিসি


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com