চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত-পাকিস্তানের মুখোমুখি লড়াই বিকেলে
প্রকাশ : ১৬ জুন ২০১৯, ১২:৪৮
চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত-পাকিস্তানের মুখোমুখি লড়াই বিকেলে
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

অবশেষে প্রাণের সঞ্চার উঠছে বিশ্বকাপে। আগ্রহ, উত্তেজনা কিংবা উন্মাদনা ছড়াতে যাচ্ছে নতুন উদ্যমে। বিশ্বের অন্তত কয়েক কোটি মানুষের চোখ পড়ছে এই একটা ম্যাচে। সেই ম্যাচটা চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত-পাকিস্তানের মুখোমুখি লড়াই।


এই ম্যাচটিকে ঘিরে ইতোমধ্যেই শুরু হয়েছে নানান আলোচনা। ভক্ত, ক্রিকেটবোদ্ধা, সাবেক ও বর্তমান ক্রিকেটার কেউই এই আলোচনার বাইরে নেই। র‌্যাঙ্কিংয়ে এখন ভারতের অবস্থান দুই নম্বরে, আর পাকিস্তান রয়েছে ষষ্ঠ স্থানে।


বিশ্বকাপের শুরু কিংবা শেষ সবটাই যেনো এখানে, ভারত-পাকিস্তান যে মুখোমুখি অবস্থানে। এই একটি ম্যাচ যেখানে লুকিয়ে ক্রিকেটের রোমাঞ্চ, উত্তেজনা ও উদ্দীপনা। সঙ্গে দর্শকদের অতিমাত্রায় আগ্রহ। দু’দেশের রাজনৈতিক বৈরিতা আগুন ঘি ঢেলেছে, পাকিস্তানের নির্বাসিত ক্রিকেটটা তাদের ক্ষোভও বাড়িয়েছে। একটা ক্রিকেট ম্যাচে এতকিছু জড়িয়ে গেলে তা কেবলই আর খেলা থাকে না। জড়িয়ে যায় আবেগ, অনুভূতি আর অস্তিত্বে।


এদিকে, ইংল্যান্ড বিশ্বকাপটা এর মধ্যেই ‘বৃষ্টি কাপ’ নামে খ্যাতি পেয়েছে। চারটি ম্যাচ চলে গেছে বৃষ্টির পেটে। যার তিনটিতে টসই করা সম্ভব হয়নি।


রবিবার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর এই লড়াইটা হবে ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্রাফোর্ডে। বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায়। ম্যাচটি দেখাবে বিটিভি, মাছরাঙা টেলিভিশন, গাজী টিভি, স্টার স্পোর্টস ওয়ান ও টু, পিটিভি স্পোর্টস।


ফুটবলের নগরী ম্যানচেস্টার। সেখানেই ক্রিকেটের সবচেয়ে ঝাঁঝালো দ্বৈরথে মুখোমুখি হবার অপেক্ষায় ভারত-পাকিস্তান। যদিও খেলা হবে কিনা তা নিয়ে আছে শঙ্কা। কেননা যথারীতি বৃষ্টির চোখ রাঙানিতে আছে এই ম্যাচটা।


কেন ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ আলাদা? সেটা যতনা ক্রিকেটের কারণে, তারচেয়ে বেশি প্রতিবেশি দুই দেশের রাজনৈতিক বৈরি সম্পর্কের কারণে। যার শুরুটা সেই ১৯৪৭ সাল থেকে। এখনো চলমান।


পাক-ভারত ম্যাচকে ঘিরে উত্তেজনা, কথার লড়াই আগের মতই আছে। কিন্তু এখন আর নিয়মিত দেখা হয় না দুই দলের। সবশেষ মুখোমুখি গত বছর এশিয়া কাপে। তবে ইংল্যান্ডে সবশেষ দেখায় সুখস্মৃতি পাকিস্তানের। ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলো দলটি। পেস কিংবা স্পিন কোথাও যেনো কম নয়। তবে বিশ্বকাপে শুধুই ভারতের জয়জয়কার। ওয়ানডেতে অবশ্য পাকিস্তান অনেক এগিয়ে ইতিহাসের প্রেরণায়। ১৩১ ম্যাচের ৭৩ জয়ের বিপরিতে ভারতের জয় ৫৪টিতে।


সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সে ভারতই ফেভারিট, সব ডিপার্টমেন্টেই ওরা হিট। পাকিস্তানের সঙ্গে বিশ্বকাপের ছয় দেখাতেও বার বার তাদেরই জিত। ইনজুরিতে শিখর ধাওয়ান, ফিরেছেন রিশভ পান্ত। তবুও রোহিত, কোহলিদের ব্যাটিংটাই মূল স্তম্ভ। চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ঐ ফাইনালে ফখর জামানের অসাধারণ ব্যাটিংয়ে জিতেছিলো পাকিস্তান। কিন্তু দলগত শক্তিতে ভারত অনেক এগিয়ে।


ধাওয়ানের অনুপস্থিতিতে চারে হয় দীনেশ কার্তিক অথবা বিজয় শঙ্কর নামবেন ব্যাট হাতে। কোহলি যদি হন ভারতের প্রাণ। তবে বাবর আজম পাকিস্তানের শক্তি। ভারত অধিনায়ক যেখানে ১০০ রান করেছেন। বাবরের ব্যাট থেকে এসেছে ১১৫ রান। বোলিংয়ে জাসপ্রিত বুমরাহ, ভূবনেশ্বর কুমার, হার্দিক পান্ডিয়ার সাথে যুজবেন্দ্র চাহালরাও ধারাবাহিক।


অগোছালো আর আনপ্রেডিক্টেবল পাকিস্তানের একমাত্র আশা হঠাৎ করে জ্বলে ওঠা কোনো তারা। অফ ফর্মের ফখর জামান যদি ফর্মে ফিরতে পারেন। ইমাম উল হক যদি দেখাতে পারেন তার ঝলক। বাবর আজম যদি ধরে রাখেন তার ছন্দ তাহলেই পাকিস্তান বড় স্কোর করতে পারবে।


সরফরাজের দলটা আছে বড় ভাবনায়, চার ম্যাচে জয় মাত্র একটায়। একটা বৃষ্টি বাকি দুইটাতে জয় নাই, পাকিস্তানের তাই ডু অর ডাই। তবে প্রতিপক্ষ যখন ভারত। তখন অভিজ্ঞতাই দিতে পারে আস্থার পারদ। মোহাম্মদ আমির মূল ভরসা, মিডলঅর্ডারে দূর্বলতা। বুমরাহর সঙ্গে আমেরের প্রতিদ্বন্দ্বীতা উপভোগ করার সুযোগ পাবে ক্রিকেট বিশ্ব। শেষ মুহূর্তে দলে জায়গা পাওয়া এই পেসার ইতোমধ্যে নিয়েছেন দশ উইকেট। বুমরাহর শিকার ৫টি।


এই একটা ম্যাচ যেখানে নিখুঁত হিসেবটাও এলোমেলো হয়, সব ভাবনা উল্টে রয়। প্রতি মুহূর্তেই জয়-পরাজয়ের ভয়, ভারত-পাকিস্তান যদি মুখোমুখি হয়।


বিশ্বকাপের ভিলেন বৃষ্টি এই ম্যাচেও তার চোখ রাঙ্গানি দেখাচ্ছে। ভারত পয়েন্ট হারিয়েছে নিউজিল্যান্ডের কাছে। পাকিস্তানের ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়েছে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। তবে কি ওল্ড ট্রাফোর্ডের ২৬ হাজার আর টেলিভিশনের সামনের বিলিয়ন ক্রিকেটপ্রেমীকে শুধুই দর্শক হয়ে থাকতে হবে?


পাকিস্তানের চূড়ান্ত দল


কোচ: মিকি আর্থার


সরফরাজ আহমেদ (অধিনায়ক), আসিফ আলি, বাবর আজম, ফখর জামান, হারিস সোহেল, হাসান আলি, ইমাদ ওয়াসিম, ইমাম-উল-হক, ওয়াহাব রিয়াজ, মোহাম্মদ আমির, মোহাম্মদ হাফিজ, মোহাম্মদ হাসনাইন, শাদাব খান, শাহিন শাহ আফ্রিদি, শোয়েব মালিক।


ভারতের চূড়ান্ত দল


কোচ: রবি শাস্ত্রী


বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), রোহিত শর্মা (সহ-অধিনায়ক), ঋষভ পান্ত, লোকেশ রাহুল, কেদার যাদব, হার্দিক পান্ডিয়া, রবীন্দ্র জাদেজা, বিজয় শঙ্কর, মহেন্দ্র সিং ধোনি, দিনেশ কার্তিক, যুজবেন্দ্র চেহেল, কুলদীপ যাদব, ভুবনেশ্বর কুমার, জাসপ্রিত বুমরাহ, মোহাম্মদ শামি।


বিবার্তা/শারমিন

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

বি-৮, ইউরেকা হোমস, ২/এফ/১, 

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com