ছেলেধরা আতঙ্ক সর্বত্র, দমনে তৎপর প্রশাসন
প্রকাশ : ২৩ জুলাই ২০১৯, ১৫:০৩
ছেলেধরা আতঙ্ক সর্বত্র, দমনে তৎপর প্রশাসন
খলিলুর রহমান
প্রিন্ট অ-অ+

রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে ছেলেধরা গুজব আতঙ্ক বিরাজ করছে। গুজবের ওপর ভিত্তি করে গণপিটুনিতে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বেশ কয়েকজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অনেকেই। এতে নড়চেড়ে বসেছে প্রশাসন। এমন ভয়ঙ্কর গুজব দমনে কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তারা। মাঠেও তৎপর রয়েছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন ইউনিটের সদস্যরা।


জানা গেছে, সম্প্রতি পদ্মা সেতু নির্মাণে মাথা ব্যবহার করা হচ্ছে-এমন তথ্য দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছাড়ানো হয়। এমন গুজব দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত ছাড়ানো হয়েছে। এ ঘটনায় গত ১৩ দিনে সারা দেশে ১২ জন নিহত ও আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৬৬ জন।


গত শনিবার (২০ জুলাই) সকালে রাজধানীর উত্তর বাড্ডা কাঁচাবাজার সড়কে ছেলেধরা সন্দেহে এক নারীকে পিটিয়ে আহত করে বিক্ষুব্ধ জনতা। গুরুতর অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। নিহত তাসলিমা বেগম রেনু (৪০) নামে ওই নারী উত্তর বাড্ডায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা করছিলেন। এ সময় তাকে গণপিটুনি দেয়া হয়।


ঢাকার সাভার ও কেরানীগঞ্জে গণপিটুনিতে নিহত হয়েছেন দুজন। লালমনিরহাট, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, মাদারীপুর, বগুড়া, নাটর, সুনামগঞ্জ, পাবনা, কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় গণপিটুনির শিকার হয়েছেন আরো কয়েকজন।


মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার বাসিন্দা তাসনিমা আক্তার বিবার্তাকে বলেন, উপজেলাজুড়ে ছেলেধরা আতঙ্ক বিরাজ করছে। এ আতঙ্কে আমরা আমাদের সন্তানদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও যেতে দিচ্ছি না। এছাড়াও সন্তানদের স্কুলে যাওয়ার কথা বললে তারাও ভয়ে যেতে চাচ্ছে না।


রাজধানীর কারওয়ান বাজার এলাকার বাসিন্দা সাবানা বিবার্তাকে বলেন, আমাদের মহল্লায়ও ছেলেধরা আতঙ্ক বিরাজ করছে। কেউ কেউ তাদের সন্তানদের বাসা থেকে বের হতে দিচ্ছেন না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও গণমাধ্যমে গণপিটুনির খবরে আমাদের মধ্যে আরো বেশি আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।


হাবিবুর রহমান নামে এক প্রাইমারি শিক্ষক বিবার্তাকে জানান, ছেলেধরা আতঙ্কে গত সপ্তাহে তাদের শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির সংখ্যা কম ছিল। পরবর্তীতে স্কুলের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে সচেতনা বৃদ্ধির কাজ করায় এ সপ্তাহে স্কুলে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বৃদ্ধি পেয়েছে।


এমন আতঙ্ক ও গুজব রোধে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীও তৎপর। র‌্যাব ও পুলিশের পক্ষ থেকে দেশের প্রতিটি ইউনিটে বার্তা পাঠানো হয়েছে। যারা এ ধরনের গুজব ছড়াচ্ছে, তাদের আটক করে আইনের আওতায় আনতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এছাড়াও ছেলেধরা কাউকে সন্দেহ হলে গণপিটুনি না দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয়ার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।


এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পুলিশ সদর দফতরের সহকারী মহাপরিদর্শক (মিডিয়া) সোহেল রানা বিবার্তাকে বলেন, ছেলেধরা গুজব রোধে পুলিশ কঠোরভাবে কাজ করছে। ইতোমধ্যে দেশের সব ইউনিটে এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।


তিনি বলেন, ছেলেধরার নামে যত গণপিটুনির ঘটনা ঘটেছে, সেগুলো গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করা হচ্ছে। ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনি একটি ফৌজদারি অপরাধ। এ অপরাধের তদন্ত চলছে।


আইন নিজের হাতে তুলে না নেয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ছেলেধরা বিষয়ে সন্দেহ হলে ‘৯৯৯’-এ ফোন দিয়ে পুলিশের সহায়তা নিন।


এদিকে গুজবের ভিত্তিতে কোনো নিরীহ মানুষকে হত্যার বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি জারি করেছে সরকার। সোমবার (২২ জুলাই) সরকারের পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি দেয়া হয়।


এতে বলা হয়েছে, এ ধরনের ঘটনা হবে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। একটি স্বার্থান্বেষী মহল গুজব ছড়িয়ে ছেলেধরা সন্দেহে নিরীহ মানুষ পিটিয়ে হতাহত করছে। এ সংক্রান্ত খবরের প্রতি সরকারের দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত যে কোনো ধরনের গুজব ছড়ানো এবং আইন নিজের হাতে তুলে নেয়া দেশের প্রচলিত আইনের পরিপন্থী ও গুরুতর দণ্ডনীয় অপরাধ। কোনো বিষয়ে কাউকে সন্দেহজনক মনে হলে নিজের হাতে আইন তুলে না নিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে জানানোর জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। এ ধরনের পরিস্থিতিতে ৯৯৯ নম্বরে কল করে পুলিশের সহায়তা নেয়ার পরামর্শও দেয়া হয়েছে।


সরকারি ওই বিবৃতিতে পুলিশ সদর দফতর থেকে স্কুল চত্বর ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপনের পরামর্শ দেয়া হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে জনসচেতনতা সৃষ্টিরও আহ্বান জানানো হয়েছে।


পুলিশ ইউনিটকে টহল এবং সব বিদ্যালয়ের সামনে প্রহরা জোরদার ও স্কুলশিক্ষক, সরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং অভিভাবকদের সঙ্গে পৃথক বৈঠক করার পরামর্শ দেয়া হয়। স্কুল ছুটির পর ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকদের সঙ্গে বাড়ি ফিরে যাওয়া নিশ্চিত করতে ব্যবস্থা নিতে কর্তৃপক্ষকে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।



বিবার্তা/খলিল/রবি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanews24@gmail.com ​, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com