ট্রেন আসলে তড়িঘড়ি, ট্রেন গেলেই লাপাত্তা!
প্রকাশ : ০৪ নভেম্বর ২০১৭, ০৯:৪৩
ট্রেন আসলে তড়িঘড়ি, ট্রেন গেলেই লাপাত্তা!
শামীম কাদির, জয়পুরহাট
প্রিন্ট অ-অ+

ট্রেন আসলে তড়িঘড়ি, ট্রেন চলে গেলেই লাপাত্তা! রেল ষ্টেশনে তিতুমীর আন্তঃনগর ট্রেন আসলে অফিসের তালা খোলা হয়। আবার ট্রেন ষ্টেশন ত্যাগ করলে অফিস বন্ধ হয়ে যায়। এমন চিত্র আক্কেলপুর উপজেলার জামালগঞ্জ রেল ষ্টেশনে।
নেই যাত্রীসেবার নাম গন্ধও। অফিস বন্ধ থাকায় ষ্টেশনে আগত যাত্রীরা জানতে পারে না কখন ট্রেন আসবে কখন যাবে। ভোগান্তিতে যাত্রী ও সাধারণ মানুষ।


ষ্টেশন মাষ্টার তোফাজ্জল হোসেন, গেট ম্যান জহুরুল ইসলাম ও ঝাড়ুদার সুমন হোসেন ষ্টেশনে দায়িত্বে রয়েছেন। ষ্টেশন মাষ্টার সকালে তিতুমীর আন্তঃনগর ট্রেনের সময় অফিস খোলেন আবার ট্রেন চলে গেলে অফিস বন্ধ করে দেন। এরপর থেকে সারাদিন ওই অফিসের তালা আর খোলা হয় না।


সরোজমিনে জামালগঞ্জ রেল ষ্টেশনে গিয়ে দেখা গেছে, ট্রেনের অপেক্ষায় যাত্রীরা বসে আছে। কয়েকজন যাত্রী কখন ট্রেন আসবে খবর নিতে অফিসের সামনে ঘোরাঘুরি করছে। কিন্তু ষ্টেশন মাষ্টারের অফিস ঘরে তালা ঝুলানো। পাশে ষ্টেশনে প্রথম শ্রেণী বিশ্রামাগারটি স্থানীয় কিছু যুবক দখল করে সেখানে কেরাম বোর্ড খেলছেন। ট্রেনের জন্য অপেক্ষামান যাত্রীরা সেখানে বিশ্রাম নিতে পারেন না। ষ্টেশনে কোন লোক না থাকায় যাত্রীদের অভিযোগ দেওয়ারও কোন সুযোগ নেই।


আলী হায়দার নামে এক রকেট মেলের যাত্রী বলেন, আমি বেলা ১১ টা থেকে দুপুর পর্যন্ত ষ্টেশনে ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছি। ষ্টেশন মাষ্টারের অফিস কক্ষ বন্ধ রয়েছে। জানতে পারছিনা ঠিক কখন ট্রেন আসবে।


জামালগঞ্জ বাজার এলাকার শাকিলা আক্তার নামে এক যাত্রী বলেন, আমি রকেট মেলে আক্কেলপুরে যাবো এখানকার অফিস সব সময় বন্ধ থাকে। তাই জানতে পারিনা ঠিক কখন রকেট মেল আসবে। তাই দু’ঘন্টা আগে ষ্টেশনে এসেছি।


স্থানীয় লোকজন বলেন, সকালে তিতুমীর ট্রেন আসার আগে অফিসটি খোলা হয়। আবার ট্রেন ছেড়ে যাবার পরে বন্ধ করে সন্ধ্যায় ওই ট্রেন আসার আগে আবার খোলা হয়। সারাদিন অফিস বন্ধ থাকে। এ কারণে যাত্রীরা ট্রেনের কোন সময় সূচী জানতে পারে না।


জামালগঞ্জ ষ্টেশনে ঝাড়ুদার সুমন হোসেন বলেন, তিতুমীর ট্রেন আসার সময় অফিস খোলা বা বন্ধের বিষয়ে আমি কোন কথা বলতে পারব না। আপনি বড় বাবুর সাথে যোগাযোগ করেন।


গেট ম্যান জহুরুল ইসলাম বলেন, ষ্টেশন মাষ্টার আমাকে কোন নির্দেশনা প্রদান করেন না কখন ট্রেন আসবে। আমি অনুমান করে এবং কিছু সময় আক্কেলপুর ও জয়পুরহাটের পরিচিত লোকদের কাছে ফোন করে যেনে নিয়ে জামালগঞ্জ বাজারের রেল গেট টি ট্রেন আসার সময় ফেলাই আবার উঠাই। অফিস বন্ধ থাকার ব্যাপারে আমি কিছু বলতে পারব না।


জামালগঞ্জ ষ্টেশন মাষ্টার তোফাজ্জল হোসেন অফিস বন্ধ রাখার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, সকালে তিতুমীর ট্রেনের সময় অফিস খোলা হয় দুপুরে খাবারের সময় বন্ধ করা হয়। অফিস সব সময় খোলা থাকে।


বিবার্তা/শামীম/ইমদাদ

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com