শীতেও পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত নেপালের দর্শনীয় স্থান
প্রকাশ : ০৫ জানুয়ারি ২০২০, ১৬:৪৭
শীতেও পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত নেপালের দর্শনীয় স্থান
খলিলুর রহমান, নেপাল থেকে ফিরে
প্রিন্ট অ-অ+

হিমালয়ের পাদদেশে দক্ষিণ এশিয়ার একটি ছোট দেশের নাম নেপাল। তবে দেশটি দেখতে ছোট হলেও এটাকে দেখতে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ভ্রমণপ্রিয় মানুষগুলো ছুটে আসেন সময় ও অসময়ে। এ ধারাবাহিকতায় বছরের শেষ মাসেও পর্যটকদের পদচারণা ছিল লক্ষণীয়।


তবে বছরের ডিসেম্বর ও জানুয়ারি মাস ওই দেশে অনেক শীত থাকে। ওই শীতকে অপেক্ষা করেই পর্যটকরা নেপাল ঘুরে বেড়াচ্ছেন। ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসের শেষে দিকে নেপাল ঘুরে এমন দৃশ্য দেখা গেছে।



কাঠমান্ডু দরবার স্কয়ারে বিদেশি পর্যটকদের সাথে প্রতিবেদক খলিলুর রহমান


জানা গেছে, ভারত ও চীনবেষ্টিত নেপাল ভূ-প্রাকৃতিক বৈচিত্র্যময়তা থাকার কারণে এখানে প্রতিবছর বিপুল পরিমাণ পর্যটক সমাগম হয়। নেপালের জনগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ভিন্নতা, রাজপ্রাসাদ ও রাজকীয় বিভিন্ন স্থান, শতবর্ষী বিভিন্ন পুরোনো হিন্দু ও বৌদ্ধ মন্দির, বিভিন্ন উৎসব এবং পণ্য দ্রব্যগুলো নেপালে আসা পর্যটকদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু।


বিশেষ করে সার্কভুক্ত দেশ থাকায় নেপালে যেতে বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্য কোনো ভিসা লাগে না। সে সুযোগ হাত ছাড়া করতে নারাজ বাংলাদেশীরা। তাই অন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশী নাগরিকরা নেপাল ভ্রমণ করেন বেশি।


বাংলাদেশ ও বিশ্বের অন্য দেশ থেকে নেপালে যাওয়া পর্যটকরা প্রথমেই দেশটির রাজধানী কাঠমান্ডুতে অবস্থান নেন। সেখান থেকে জানকপুর, খুম্ব, নাগরকোট, চিতন জাতীয় উদ্যান, পাটান, কাকানি, কীর্তিপুর, কোপান মঠ, সাঙ্খু, লুম্বিনি, পোখরা, অন্নপূর্ণা, ভক্তপুরসহ বিভিন্ন দর্শনীয় এলাকা ঘুরে বেড়ান।



পাটান দরবার স্কয়ারে পর্যটকদের ঢল


সম্প্রতি নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুতে গিয়ে দেখা গেছে, দেশি-বিদেশি পর্যটকদের ঢল নামছে শহটিতে। কেউবা একা গেছেন, আবার কেউবা বন্ধুবান্ধবের সাথে গেছেন। আবার কেউ কেউ হানিমুন করতে হিমালয়ের ওই দেশটিকে বেঁচে নিয়েছেন। শুধু তাই নয়, দেশটির বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানেও গিয়ে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।


নেদারল্যান্ড থেকে নেপাল ঘুরতে আসা নেদার পুল বিবার্তাকে বলেন, তিনি ছুটি কাটাতে নেপাল ঘুরতে এসেছেন। এক সপ্তাহ থেকে তিনি ফের নিজ দেশে চলে যাবেন।


নিজেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পরিচয় দিয়ে এ পর্যটক বলেন, বিশ্বের দশর্নীয় স্থানগুলো ঘুরতে আমার ভালো লাগে। তাই আমি নেপাল ঘুরতে এসেছি।


বাংলাদেশ থেকে যাওয়া আবুল হাসনাত নামের এক ব্যক্তি বিবার্তাকে জানান, তিনি ও তার বন্ধুরা মিলে নেপাল ঘুরতে গেছেন। কিন্তু প্রচণ্ড শীত থাকায় তেমন ঘুরা হচ্ছে না। তারপরও বেশ ভালোই লাগছে।



কাঠমান্ডুর একটি শপিং সেন্টারে বিদেশি পর্যটকদের পদাচারণা


এদিকে, নেপালের আবাসিক হোটেল ও শপিং মহলগুলোতেও পর্যটকদের পদাচরণা রয়েছে লক্ষণীয়। পর্যটকরা নিজেদের পছন্দের হোটেল বেঁচে নিচ্ছেন। শুধু তাই নয়, তারা বিভিন্ন শপিং মহলগুলো ঘুরে পছন্দের জিনিস কেনাকাটা করতেও দেখা গেছে।


কাঠমান্ডুর থামলে অবস্থতি আবাসিক হোটেল ডলপিন। ওই হোটেলের কো-অডিনটর ডিপাক বিবার্তাকে বলেন, বছরের প্রতিটি মাসেরই কম বেশি দেশে-বিদেশি পর্যটকরা আমাদের এখানে আসেন। তবে বছরের শেষ দিকে একটু বেশি পর্যটকের দেখা মিলে। এ ধারাবাহিকতায় এবারও পর্যটকরা নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুতে এসেছেন।



পাটান দরবার স্কয়ারে পর্যটকদের কেনাকাটা


হুথেম নামের এক নেপালী বাসিন্দা বিবার্তাকে বলেন, আমি নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডু এলাকায় বসবাস করি। সে সুবাদে বছরের প্রতিটি মাসেই পর্যটকদের দেখা পাই। তবে অন্য বছরের তুলনায় এবার পর্যটকদের আনাগোনা একটু বেশি।


তিনি বলেন, আমরা এখানে বিদেশি পর্যটকদের অনেক মূল্যায়ন করি। কেউ যদি আমাদের কাঠমান্ডুতে এসে সমস্যায় পড়েন তা হলে তাকে আমরা সহযোগিতা করার চেষ্টা করি।


বিবার্তা/খলিল/উজ্জ্বল


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanews24@gmail.com ​, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com