এবার ইএসএফওর ব্যাপক অনিয়ম
অবকাঠামো না থাকা সত্ত্বেও ৫ কোটি টাকার ঋণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন!
প্রকাশ : ১০ অক্টোবর ২০১৯, ১১:২১
অবকাঠামো না থাকা সত্ত্বেও ৫ কোটি টাকার ঋণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন!
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

অবকাঠামো না থাকা সত্ত্বেও দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে এন্টারপ্রেনারশিপ সাপোর্ট ফান্ড (ইএসএফ) থেকে ৫ কোটি টাকার ঋণ নেয়ার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে।


কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের নিলখী মৌজায় অবস্থিত ওরিয়ন হ্যাচারি অ্যান্ড ব্রিডার ফার্ম নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে এ ঋণ দিচ্ছে ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি)।


খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কৃষিখাতের উন্নয়নের জন্য সরকার ইক্যুইটি অ্যান্ড এন্টারপ্রেনারশিপ ফান্ড (ইএসএফ) চালু করেছিল। কিন্তু ওই ফান্ডের ব্যাপক দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ উঠলে সে কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়। পরবর্তীতে ২০১৮ সালে নাম পরিবর্তন করে এ কার্যক্রম ফের শুরু করা হয়।


এন্টারপ্রেনারশিপ সাপোর্ট ফান্ড (ইএসএফ) নামে শুরু হওয়া কার্যক্রমেও দুর্নীতি ও অনিয়নম শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে এক ব্যক্তিকে ৫ কোটি টাকার ঋণ দেয়ার পক্রিয়া সম্পন্ন করেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র বিবার্তাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে।


আইসিবির একটি উচ্চপর্যায়ের সূত্র জানায়, কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের জোয়ারিয়া গ্রামের বাসিন্দা মো. জুবায়ের ইব্রাহিম ও শাহানাজ আক্তার নামে দুজন যৌথভাবে একই ইউনিয়নের নিলখী মৌজায় আড়াই একর জমির মধ্যে ওরিয়ন হ্যাচারি অ্যান্ড ব্রিডার ফার্ম নামের একটি ফার্ম গড়ে তুলেছেন। কিন্তু সেখানে একটি পুকুর ও একটি পরিত্যক্ত মুরগির ফার্ম রয়েছে। আর কিছু জায়গা ফাঁকা পড়ে আছে। ওই খানে যে পরিমাণ জমি আছে এবং পুকুর ও পরিত্যক্ত মুরগির খামারটি বিক্রি করলে আনুমানিক ৪০ থেকে ৫০ লাখ টাকা পাওয়া যাবে।


শুধু তাই নয়, ওই আড়াই একর জমির দলিল একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে জমা দিয়ে ইতোমধ্যে ১০ লাখ টাকা ঋণও নেয়া হয়েছে। এখনো ওই ঋণ পরিশোধ করা হয়নি। তাই ওই ব্যাংক থেকেও জমির দলিল দেয়নি।


এ অবস্থায় ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) এন্টারপ্রেনারশিপ সাপোর্ট ফান্ড (ইএসএফ) থেকে আরো ৫ কোটি টাকা ঋণ গ্রহণের জন্য আবেদন করেন। আবেদনের পর মোটা অঙ্কের টাকা সংশ্লিষ্ট দফতরের কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করা হয়। তদবির ও ঘুষ বাণিজ্যের মাধ্যমে জমির দলিল না দিয়েই ইতোমধ্যে ৫ কোটি টাকার ঋণ প্রক্রিয় সম্পন্ন করেছে আইসিবি।


নিলখী মৌজার বাসিন্দাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ওই জাগায় আগে কোনো হ্যাচারি ছিল না। কিন্তু ব্যাংক থেকে ঋণ সংগ্রহ করার জন্য বর্তমানে সেখানে একটি পুকুর খনন করা হয়েছে।


অতচ এন্টারপ্রেনারশিপ সাপোর্ট ফান্ড (ইএসএফ) থেকে ঋণ নিতে গলে একটি হ্যাচারিতে ৪ থেকে ৫টি পুকুর থাকা দরকার। কিন্তু সেখানে একটি মাত্র পুকুর রয়েছে। এছাড়াও ওই পুকুরে তেমন পানিও নেই।


শুধু তাই নয়, মানসম্মত হ্যাচারি করতে ওভার হেড ট্যাংক, মাছের পোনা রাখার জন্য বিশেষ ধরনের পুকুর লাগে। আবার নার্সারির জন্য আরেক ধরনের একটি পুকুর ও আয়রন ফ্রি করার জন্য যন্ত্রপাতি লাগে। কিন্তু সেখানে এসব কিছুই নেই। তারপরও এন্টারপ্রেনারশিপ সাপোর্ট ফান্ড (ইএসএফ) থেকে ৫ কোটি টাকার ঋণ পরিক্রয়া সম্পন্ন করেছেন সংশ্লিষ্টরা।


এ ব্যাপারে ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আবুল হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিবার্তাকে বলেন, ‘আইসিবি থেকে এ ধরনের লোন দেয়া হচ্ছে- সেটা আমার জানা নেই। লোন নেয়ার ব্যাপারে যত কিছুই হোক নিয়মের বাইরে গিয়ে কিছু হবে না।’


বিবার্তা/খলিল/রবি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanews24@gmail.com ​, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com