রমনায় ৩ হাজারে মিলছে ১০ কেজির কাতলা!
প্রকাশ : ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:০১
রমনায় ৩ হাজারে মিলছে ১০ কেজির কাতলা!
রমনা পার্কের লেকে বড়শি দিয়ে মাছ ধরছেন শখপ্রিয় মানুষ
আকরাম হোসেন
প্রিন্ট অ-অ+

রাজধানীর রমনা পার্কের লেকে চার-পাঁচজন মধ্যবয়স্ক লোকের একটি দল বড়শি দিয়ে মাছ ধরছে। তাদের ঘিরে দাঁড়িয়ে আছেন আরো কিছু উৎসুক জনতা। একজন বড়শিতে ধরা একটি বড় মাছ পানি থেকে তোলার চেষ্টা করছেন। দাঁড়িয়ে থাকা লোকদের কেউ কেউ সেটা মুঠোফোনে ধারণ করার চেষ্টাও করছেন।


অল্প সময়ের মধ্যে পানি থেকে তোলা হয় ৮ থেকে ১০ কেজি ওজনের একটি কাতলা মাছ। দাঁড়িয়ে থাকা উৎসুক লোকগুলো এবার হাতে তালি দিচ্ছিলেন। নেটে মাছ রেখে লোকটি আবারো পানিতে বড়শি ফেলার জন্য প্রস্তুত নিচ্ছেন।


সরেজমিন দেখা গেছে, রমনা পার্কের লেকজুড়ে প্রায় ৫০টি দলে ২০০ জনেরও বেশি মানুষ মাছ ধরছেন। রাজধানীর বিভিন্ন জায়গা থেকে মানুষ মাছ ধরতে আসছেন এখানে। শুক্র ও শনিবার সরকারি বন্ধের দিন হওয়ায় এদিনে মাছ ধরতে সুযোগ দিচ্ছে পার্ক কর্তৃপক্ষ।


রাজধানীর নয়াবাজার থেকে মাছ ধরতে এসেছেন মিলন হোসেন। তিনি বিবার্তাকে বলেন, আমরা মাঝে মাঝে বড়শি দিয়ে মাছ ধরি। তবে রমনার লেক বা ঢাকার অন্যান্য জায়গায় কম আসি। আমরা চেষ্টা করি বিল, হাওড়, নদী বা খামার এলাকায় যেতে। সেখানে ভালো মাছ পাওয়া যায়।



রমনা পার্কের লেকে বড়শিতে ধরা পড়ে বড় আকৃতির মাছ


রুবেল নামে একজন বলেন, মাছ ধরতে আসার আগে টিকিট কাটতে হয়। এক টিকিটের দাম ৩ হাজার টাকা। শুক্রবার হওয়ায় কোনো কাজ নেই তাই শখ করে মাছ ধরতে আসছি। এক টিকিটে কেউ একটা বড়শি দিয়ে মাছ ধরতে পারে। আবার কেউ একাধিক বড়শি দিয়েও মাছ ধরতে পারে।


বিল্লালও শখ করে পার্কে মাছ ধরতে এসেছেন। তিনি বিবার্তাকে বলেন, মাছ ধরতে আসার পেছনে প্রায় ১৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। ৩ হাজার টাকা টিকিট আর মাছ ধরার জন্য মাছের খাবার ও অন্যান্য সরঞ্জাম কিনতে হয়েছে। এমনও হতে পারে, এক টাকার মাছও পাইনি। অধিকাংশ সময় যে টাকা খরচ করে মাছ ধরতে যান, সে টাকার মাছ পাওয়া যায় না। তবে কিছু মাছ পাওয়া যায়। কেউ কেউ আবার যে টাকা খরচ করেন তার থেকে অনেক বেশি টাকার মাছ পান। আসলে কেউ তো টাকার চিন্তা করে মাছ ধরতে আসেন না। সাধারণত মানুষ শখের বসে মাছ ধরতে আসেন।



রমনার লেকে বড়শি ফেলে মাছের অপেক্ষায় থাকেন বহু মানুষ


মাছ ধরা দেখতে কমলাপুর থেকে এসেছেন রুহুল আমিন। তিনি বিবার্তাকে বলেন, মাছ ধরা অনেক ধর্যের ব্যাপার। সারাদিন বসে থাকতে হয়। অনেক সময় বসে থেকেও মাছ পাওয়া যায় না। আবার এমনও হয় সারাদিন বসে থেকে যাওয়ার আগে ১০-১২ মিনিটের মধ্যে আপনার সারা দিনের কাজ হয়ে গেছে। ৮ থেকে ১০ কেজি ওজনের একটা মাছ পানি থেকে তুলতেও অনকে পরিশ্রম করতে হয়। মানুষ মূলত শখের বসেই মাছ ধরে।


তিনি আরো বলেন, রাজধানীতে শখের বশে মাছ ধরা আগের তুলনায় এখন বৃদ্ধি পেয়েছে।


রমনা পার্কের ওয়ার্ক অ্যাসিস্ট্যান্ট মো. শামসুল ইসলাম বিবার্তাকে বলেন, এক টিকিট দিয়ে ৩টা বড়শি অনুমোদন দেয়া হয়। কেউ যদি এর বেশি বড়শি দিয়ে মাছ ধরার চেষ্টা করেন, তাহলে আমাদের লোক তাদের অতিরিক্ত বড়শি তুলে ফেলেন। আমরা সব সময় বিষয়টি মনিটরিং করি।



বড়শিতে ধরা পড়া মাছ ছাড়াচ্ছেন


শামসুল ইসলাম বলেন, আজকের (শুক্রবার) জন্য ২৫টার মতো টিকিট বিক্রি হয়েছে। এক টিকিটে মূল্য ৩ হাজার টাকা নেয়া হয়। এ টাকা সরকারি কোষাগার জমা দেয়া হয়।


তিনি বলেন, শুক্র ও শনিবার যে কেউ চাইলে মাছ ধরতে পারবেন। অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর মানুষের মাছ ধরার প্রতি আগ্রহ বেড়েছে।


বিবার্তা/আকরাম/উজ্জ্বল/রবি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanews24@gmail.com ​, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com