ঢাবি ভিসি প্যানেল: এক মাসেও হয়নি নিয়োগ!
প্রকাশ : ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৮:১৩
ঢাবি ভিসি প্যানেল: এক মাসেও হয়নি নিয়োগ!
ফাইল ছবি
মহিউদ্দিন রাসেল
প্রিন্ট অ-অ+

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) প্যানেল সিনেট কর্তৃক চূড়ান্ত হওয়ার পর এক মাস পেরিয়ে গেলেও এখনো নিয়োগ পাননি নতুন উপাচার্য। আর এ নিয়ে গুঞ্জন উঠেছে প্যানেলের বাইরে থেকে কাউকে উপাচার্য নিয়োগ দেয়া হয় কিনা?


বুধবার (৩১ জুলাই) বিকেল ৪টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে সিনেটের বিশেষ অধিবেশনে তিনজনের উপাচার্য প্যানেল চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হয়। অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন সিনেটের চেয়ারম্যান ও ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।


তিনজনের ভিসি প্যানেলে রয়েছেন, উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল। পরে চূড়ান্ত এই প্যানেল শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্যের নিকট পাঠানো হয়। সেখান থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য হিসেবে রাষ্ট্রপতি একজনকে উপাচার্য পদে চার বছরের জন্য নিয়োগ দেয়ার কথা।


এর আগে মঙ্গলবার (৩০ জুলাই) রাতে আওয়ামী লীগপন্থী শিক্ষকদের নীল দল ভিসি প্যানেল চূড়ান্ত করেছিল। নীল দলের অভ্যন্তরীণ বৈঠকে ভিসি প্যানেল নিয়ে ভোটাভুটি হয়েছিল। এতে উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ ৪২ ভোট, উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান ৩৬ ভোট ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক এস এম মাকসুদ কামাল ৩০ ভোট পেয়ে প্যানেলে মনোনীত হয়েছিলেন। এছাড়া উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমাদ ২৮ ভোট ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান ২০ ভোট পেয়েছেন।


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯৭৩ সালের আদেশের ১১(১) ধারা অনুযায়ী, সিনেট এই প্যানেল নির্বাচন করে। আদেশ অনুযায়ী, তিন সদস্যের এই প্যানেল থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের পরবর্তী ভিসি নিয়োগ দেবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও রাষ্ট্রপতি।


দীর্ঘ ২৮ বছর পর অনুষ্ঠিত ডাকসু নির্বাচনের মাধ্যমে ছাত্র প্রতিনিধি পায় সিনেট। আর তাদের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ হওয়া সিনেটের মাধ্যমে তিনজনের ভিসি প্যানেল চূড়ান্ত করা হয়। তবে তিনজনের এই ভিসি প্যানেল চূড়ান্ত করার পর এক মাস পেরিয়ে গেলেও নতুন ভিসি নিয়োগ না পাওয়ায় গুঞ্জন উঠেছে প্যানেলের বাইরে থেকে কাউকে ভিসি নিয়োগ দেয়া হয় কিনা?


এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বলছেন, ডাকসু নির্বাচন হওয়ায় ছাত্র প্রতিনিধিসহ পূর্ণাঙ্গ হয়েছে সিনেট। আর এ পূর্ণাঙ্গ সিনেট কর্তৃক নির্বাচিত ভিসি প্যানেলের বাইরের কেউ ভিসি হলে তা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটকে অবমাননা করা হবে। আর এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা ও প্রশাসনিক সৌন্দর্য নষ্ট হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের আদেশ অনুযায়ী ভিসি নিয়োগ হওয়া উচিত বলে তারা মনে করেন।


ভিসি নিয়োগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব সোহরাব হোসাইন সাংবাদিকদের বলেন, সিনেটের প্রস্তাবের ওপর সিদ্ধান্ত গ্রহণের কাজটি প্রক্রিয়াধীন আছে। সাধারণত ভিসির পদে কেউ না থাকলে দ্রুত নিয়োগ দেয়ার বিষয় থাকে। যেহেতু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিসি পদে একজন দায়িত্বরত আছেন, তাই তাড়াহুড়া করা হচ্ছে না। শিগগিরই সিদ্ধান্ত আসতে পারে।


নতুন ভিসি নিয়োগের বিষয়ে বর্তমান ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বিবার্তাকে বলেন, এটি বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য এবং রাষ্ট্রপতির ওপর নির্ভর করছে। এ ব্যাপারে তিনি সিদ্ধান্ত নেবেন।


ঢাবি নীল দলের যুগ্ম-আহ্বায়ক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য ড. হুমায়ুন কবির বিবার্তাকে বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রদত্ত ১৯৭৩ সালের আদেশ অনুযায়ী নির্বাচিত ভিসি প্যানেল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দ্রুততম সময়ে নতুন উপাচার্য নিয়োগ পাবেন, এটাই আমাদের প্রত্যাশা।


প্যানেলের বাইরে থেকে উপাচার্য নিয়োগের গুঞ্জনের বিষয়ে তিনি বলেন, ১৯৭৩ সালের আদেশ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান অবস্থা অনুযায়ী প্যানেলের বাইরে থেকে উপাচার্য নিয়োগ দেয়ার কোনো সুযোগ নেই। কেননা, বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১(২) ধারা অনুযায়ী ছুটিজনিত, অসুস্থতাজনিত বা অন্য কোনো কারণে পদশূন্য হলে তখন প্যানেলের বাইরে থেকে উপাচার্য নিয়োগ দেয়া যায়। কিন্তু বর্তমানে এসবের কোনো কারণ বিদ্যমান নেই।


বিবার্তা/রাসেল/উজ্জ্বল/জহির

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com