রাইড শেয়ারিংয়ের এক নতুন দিগন্ত ‘সহযাত্রী’
প্রকাশ : ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১২:২৭
রাইড শেয়ারিংয়ের এক নতুন দিগন্ত ‘সহযাত্রী’
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

এমন একটা সময় ছিল যখন কর্মব্যস্ত দিনে ঢাকায় একটি রাইড খুঁজে পাওয়া ছিল দুঃসাধ্য। রাস্তায় অনেক গাড়ি, ট্যাক্সি আর সিএনজি থাকলেও আপনার জন্য ছিল না কিছুই। কিন্তু আশার বিষয় এই যে, সম্প্রতি ঢাকায় বিভিন্ন রাইড শেয়ারিং সার্ভিস চালু হয়েছে।


আপনি চাইলেই এখন বিভিন্ন অ্যাপের মাধ্যমে পরিবহন সেবা পেতে পারেন। কর্মব্যস্ত দিনে রাইড খুঁজে পাওয়া সহজ হলেও কিছু সমস্যা কিন্তু রয়েই গেছে। যার মধ্যে অন্যতম হল অতিরিক্ত খরচ, ট্র্যাফিক জ্যাম এবং বাইক দুর্ঘটনা।


শহরবাসীর ভ্রমণকে আরোও কম খরচে আরামদায়ক করে তুলে ট্র্যাফিক জ্যাম এড়িয়ে সড়ক দুর্ঘটনা থেকে বাঁচার কিছু সুযোগ তৈরি করতে বাজারে আসছে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন এবং ওয়েবভিত্তিক রাইড শেয়ারিং সেবা ‘সহযাত্রী’।


‘সহযাত্রী’ অ্যাপটি কীভাবে কাজ করবে জানতে চাইলে ‘সহযাত্রী’ রাইড শেয়ারিং সেবার উদ্যোক্তা সাফায়েত হোসাইন বিবার্তাকে বলেন, ‘সহযাত্রী’ বাজারে আসছে ‘কানেক্টিং প্যাসেঞ্জার্স’ এই নিজস্ব ট্যাগ লাইনে। একই গন্তব্যে যেতে চায় এমন একজন যাত্রীর সাথে অপর যাত্রীকে কানেক্টেড করে দেয়াই হলো ‘সহযাত্রী’ এর কাজ। মূলত ‘সহযাত্রী’ অ্যাপ অথবা ওয়েবের মাধ্যমে একজন যাত্রী একটি রাইড তৈরি করবেন এবং অন্য যাত্রীদের সাথে সেই রাইডটি শেয়ার করতে পারবেন। সময় আর গন্তব্য মিলে গেলে যাত্রীরা রাইড শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করতে পারবেন।



সাফায়েত বলেন, আপনি যদি রাইড শেয়ার করতে চায় এমন একজন ‘সহযাত্রী’ খুঁজে পান তাহলে আপনি রাইডের ৫০% টাকা সেভ করতে পারবেন আর যদি আপনি আরো বেশি যাত্রীর সাথে শেয়ার করেন তাহলে আরো বেশি টাকা সেভ করতে পারবেন। ধরুন, আপনি ৪ জন সহযাত্রী পেলেন যারা একই দিয়ে যাচ্ছে একটি ট্যাক্সিতে করে, সেক্ষেত্রে আপনি আপনার পরিবহন খরচের ৭৫% সেভ করতে পারবেন। আর মজার ব্যাপার হলো, ‘সহযাত্রী’ ব্যবহার করে আপনি মোটরসাইকেলের চাইতে কম খরচে ভ্রমণ করছেন এয়ার কন্ডিশন গাড়ি অথবা ট্যাক্সিতে।


জানা গেছে, ৩ জন বাংলাদেশী তরুণ উদ্যোক্তার একটি টিম দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন এই প্ল্যাটফর্মটিকে গড়ে তুলতে। তারা ভার্চুয়ালি কাজ করে যাচ্ছেন বিশ্বের ৩টি শহর ঢাকা, সিডনি আর মেলবোর্ন থেকে। সাফায়েত হোসাইন আর হাসানুল হক উজ্জ্বল একে অপরকে চেনেন ২০০৪ সাল থেকে, যখন তারা একসাথে গ্রামীনফোনে কাজ করতেন। গ্রামীনফোনের কাজ ছেড়ে তারা দুইজনই একসাথে এরিক্সনে যোগদান করেন এবং সাফায়েত ২০০৯ সালে অস্ট্রেলিয়াতে চলে যাবার আগ পর্যন্ত একসাথে কাজ করেন। সাইফুল্লাহ চৌধুরী রাশেদ এবং সাফায়েত হোসাইন ২০০৮ সাল থেকে ভালো বন্ধু।


গতবছরে মেলবোর্নে একটা বুটক্যাম্প করার সময় এই আইডিয়াটা সর্বপ্রথম রাশেদ আর সাফায়েত এর মাথায় আসে। তখন তারা এই প্রোডাক্টটি একইসাথে বেশ কয়েকটি দেশে চালু করার কথা ভাবেন। তারা ২-৩টি দেশের বিনিয়োগকারীদের সাথে কথা বলেন এবং সিদ্ধান্ত নেন। প্রোডাক্টটিকে তারা ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ হিসেবে বাজারজাত করবেন। এই কারণেই প্রোডাক্টটি সর্বপ্রথম বাংলাদেশে লঞ্চ করা হবে। যার ফলে সাফায়েত ঢাকা আসেন তাদের কোম্পানি ‘Onedotone Private Limited’ প্রতিষ্ঠা করতে। সাফায়েতকে ঢাকায় অফিস নেয়াসহ অন্যান্য বিষয়ে সাহায্য করেন হাসানুল। তারা বিশ্বাস করেন, তাদের এই প্রচেষ্টা আমাদের দেশের কঠোর পরিশ্রমী মানুষের জীবনকে আরো সহজ করে তুলবে পাশাপাশি বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে পরিচিত করে তুলবে।



যাত্রীরা কেন ব্যবহার করবেন ‘সহযাত্রী’


# নিরাপত্তার ব্যপারে আমরা আপোষহীন-৩টি ধাপে আইডি ভেরিফেকেশন করা হবে। মোবাইল ফোন নম্বর, ফেসবুক প্রোফাইল এবং জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা পাসপোর্ট।


# এখানে পুরুষ এবং মহিলাদের জন্য আলাদা আলাদা রাইডের সুব্যবস্থা থাকবে।


# যাত্রী নিজের পছন্দ মতো সহযাত্রী পছন্দ করার ব্যবস্থা থাকবে। যাত্রী নিজে নির্বাচন করতে পারবেন কার/কাদের সাথে ভ্রমণ করবেন।


# পরিবহন নির্বাচনের স্বাধীনতা। যেমন ট্যাক্সি, সিএনজি, গাড়ি।


# মোটরসাইকেলে ভ্রমণের চেয়ে গাড়ি বা ট্যাক্সিতে ভ্রমণ অনেক বেশি নিরাপদ, ঝুঁকি আর মানসিক চাপ কমায়।


যে কারণে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য সংরক্ষণ করা হবে


# আপনাকে জানা এবং আপনার সম্পর্কে যথাযথ অনুসন্ধান করার জন্য।


# আপনি আমাদের সেবা ব্যবহার করার আগে আপনার এবং অন্যান্য সহযাত্রী সেবা ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য।


# একে অপরের উপর আস্থা গড়ে তুলতে অন্যান্য সহযাত্রী সেবা ব্যবহারকারীদের সাথে প্রয়োজনীয় তথ্যাদি শেয়ার করার জন্য।


# আমাদের সহযাত্রী অ্যাপটি সঠিকভাবে পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য।


# অভিযোগ বা বিরোধ সংক্রান্ত বিষয়াদি আমলে নেয়া এবং যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য।


# যেকোন দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে অবহিত করতে এবং আদালতে যথাযথ প্রমাণ প্রদানের জন্য।


‘সহযাত্রী’ অ্যাপটি বিনামূল্যে ডাউনলোড ও ব্যবহারের জন্য গুগল প্লে-স্টোর এবং অ্যাপস্টোরে পাওয়া যাচ্ছে। অ্যাপটি ইতোমধ্যে ১০ হাজারের বেশি ডাউনলোড করা হয়েছে। ডাউনলোড করতে যেতে হবে-https://play.google.com/store/apps/details?id=com.sohozatri.sohozatri&hl=bn এই লিংকে।


বিবার্তা/উজ্জ্বল/জহির

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com