‘তুরিন কখনোই অনৈতিক কাজ করতে পারে না’
প্রকাশ : ১৪ মে ২০১৮, ০৩:২৪
‘তুরিন কখনোই অনৈতিক কাজ করতে পারে না’
মো. মাজেদুল ইসলাম
প্রিন্ট অ-অ+

তুরিন কখনোই অনৈতিক কাজ করতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন তুরিন আফরোজের চাচা বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাজেদুল ইসলাম।


প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজের ছোট চাচা মাজেদুল ইসলাম বিশ্বাস করেন তার ভাতিজী প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজ কখনোই কোনো অন্যায়ের সাথে আপোষ করেনি। আজকে তাকে নিয়ে অনৈতিকতার যে অভিযোগ তোলা হয়েছে সেটি তার বিরুদ্ধে এক বিশাল চক্রান্ত।


যেই তুরিন আফরোজ বড় বড় যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি নিশ্চিত করলোএবং কখনোই কোন প্রলোভনে সাড়া দেয়নি, আজকে কেন সে টাকার বিনিময়ে বিক্রি হয়ে যাবে? এটা শুধু তার বিরুদ্ধে নয়, এটা যুদ্ধাপরাধের সম্পূর্ন বিচার প্রক্রিয়ার বিরুদ্ধে একটি জঘন্য ষড়যন্ত্র। আমার বিশ্বাস তুরিন যেটা করেছে আইনের মধ্যে থেকেই বিচারের স্বার্থে করেছে।


আমরা তিনভাই। আমাদের বড়ভাই মরহুম তসলিম উদ্দিন আহমেদের একমাত্র মেয়ে তুরিন, যার ডাকনাম সেতু। জন্ম থেকেই আমি আমার ভাতিজিকে ভালো করে চিনি। যেহেতু ১৯৭০ সাল হতে আমি আমার বড়ভাইয়ের ঢাকার বাড়িতে থেকে লেখাপড়া করেছি ও মানুষ হয়েছি তাই আমি বলতে গেলে জন্ম থেকেই তুরিনকে কোলে-পিঠে করে বড় করেছি। স্কুলে নিয়ে যাওয়া আসা থেকে শুরু করে তার বড় হয়ে ওঠার সবটুকু গল্পই আমি জানি।


ছোটকাল থেকেই তুরিনের যে অসাধারন মেধা এবং নৈতিক সাহসিকতা আমি ও আমাদের পরিবার দেখেছি তাতে আজকে তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ শুনে আমরা হতভম্ব। যেই তুরিন দেশে এবং বিদেশে সুনাম অর্জন করে আমাদের বংশের নাম গৌরব উজ্জল করেছে সে কখনই নীতির সাথে আপোষ করতে পারে না।


তুরিন আমাদের বংশের গৌরব, আমাদের বংশের অহংকার। আমরা দুই জীবিত ভাই কোনভাবেই মেনে নিতে পারছি না তুরিনের বিরুদ্ধে ওঠা এ মিথ্যে অভিযোগ।


ব্যক্তিগতভাবে তুরিন খুবই সাধারণ জীবনযাপন করে। আজকের এই ‘তুরিন আফরোজ’ হয়ে ওঠার অনেক আগে থেকেই তুরিন আমাদের গ্রাম এবং উপজেলার উন্নয়নে অনেক কাজ করেছে।


নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলার চাওড়াডাঙ্গীর মতো এই প্রত্যন্ত গ্রামে বছরের পর বছর নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে আমাদের তুরিনই বিদ্যুতের সংযোগ নিয়ে আসে। এছাড়াও নারীশিক্ষা সুনিশ্চিত করার জন্য গড়ে তুলেছে স্কুল, প্রতিষ্ঠা করেছে মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগার, এতিম বাচ্চাদের জন্য যখন যতটুকু সম্ভব হয়েছে সাহায্য করেছে, মসজিদ আর মন্দিরে করেছে নিজের সাধ্যমত দান। জলঢাকার মতো জামাতপ্রবণ একটি এলাকায় তুরিন সাহসী যোদ্ধার মতো মাদ্রাসাগুলোতে গিয়ে শুনিয়েছে মুক্তিযুদ্ধের গল্প, পূজোর সময় শরীক হয়েছে হিন্দুদের উৎসব-পার্বনেও, বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে আন্দোলনেও থেকেছে সোচ্চার। আজকের তুরিন আফরোজ হয়তো দেশে-বিদেশে একটি বড় নাম, কিন্তু এ সমস্ত কাজই তুরিন করেছে এত বড় কিছু হওয়ার অনেক আগে থেকেই। আমাদের পরিবারের সবচাইতে প্রিয় আদরের এবং আপোষহীন মানুষটি আর যা কিছুই করুক না কেন, কোনভাবেই নীতি এবং অর্থের কাছে মাথা নোয়াতে পারে না।


তুরিনের অসম্মান হলে তা হবে আমাদের পরিবারের অসম্মান, আমাদের বংশের অসম্মান, আমাদের গ্রামের অসম্মান।


লেখক : তুরিন আফরোজের চাচা মাজেদুল ইসলাম


বিবার্তা/নুর

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com