ছুটিতে ঘুরে আসুন ‘ছুটি রিসোর্ট’
প্রকাশ : ২২ অক্টোবর ২০১৭, ১৭:০৪
ছুটিতে ঘুরে আসুন ‘ছুটি রিসোর্ট’
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

ভাওয়াল বনের সবুজ দ্বীপ। বিরল প্রজাতির সংরক্ষিত বৃক্ষের বনে রয়েছে টানানো তাঁবু। সারা দিন পাখির কলরব, সন্ধ্যায় শিয়ালের হাঁক, বিভিন্ন প্রজাতির বাদুড়, জোনাকি পোকার মিছিল ও আতশবাজি, ঝিঁঝি পোকার হৈচৈ। আর ভরা পূর্ণিমা হলে তো কথাই নেই। রিসোর্টের নিয়ম অনুসারে চাঁদনী রাতে বিদ্যুতের আলো জ্বালানো হয় না। ভরা পূর্ণিমা এবং রিমঝিম বর্ষা উপভোগ করার জন্য এই ‘ছুটি’ই হচ্ছে অন্যতম রিসোর্ট।


এই রিসোর্টটি প্রায় ৫০ বিঘা জমির ওপর গড়ে উঠেছে।ঢাকার আশপাশের রিসোর্টগুলোর মধ্যে অন্যতম এ রিসোর্ট। এটি রিসোর্ট এবং পিকনিক কর্নার দুটি অংশে বিভক্ত। আছে গাড়ি রাখার সুব্যবস্থা।


ছনের ঘর, রেগুলার কটেজ, বার্ড হাউস, মাছ ধরার সুব্যবস্থা, হার্বাল গার্ডেন, বিষমুক্ত ফসল, দেশীয় ফল, সবজি, ফুলের বাগান, বিশাল দুটি খেলার মাঠ, আধুনিক রেস্টুরেন্ট, দুটি পিকনিক স্পট, গ্রামীণ পিঠা ঘর, ছোট বাচ্চাদের জন্য কিডস জোন।


এখানে আগত দর্শনার্থীদের নানা ধরনের মৌসুমি ফল সম্পূর্ণ ফ্রি দেয়া হয়। অতিথিদের জন্য এখানে সকালে পরিবেশন করা হয় চালের নরম রুটি অথবা চিতই পিঠা, সঙ্গে দেশি নানা প্রকার সবজি, ডাল ভুনা ও মুরগির গোশত। একবারে কাছ থেকে বিল-ঝিলের আনন্দ উপভোগ করা যায় এখানে।



রিসোর্টের গা ঘেঁষে গভীর জঙ্গল। ভেতরে দুটো বড় মাঠ, অসংখ্য গাছ, ঝোপঝাড়। এর চারপাশ ঘিরে আছে একটি বিশাল দিঘি। আছে নৌভ্রমণের ব্যবস্থা।


রিসোর্টসে বড় আকর্ষণ ফিশিংয়ের ব্যবস্থা। আগত দর্শনার্থীরা ভিতরের লেকে ইচ্ছামতো মাছ শিকার করতে পারবেন। অবশ্য এ জন্য একটু আলাদা ফি লাগে।


ভেতরের বড় বড় ৩টি লেক দেখলে মনে হয় যেন একেকটি বিশালাকার বিল-ঝিল। দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে ফুটবল, ক্রিকেট, ব্যাডিমিন্টন খেলার মাঠ রয়েছে।


এখানে দুই ধরনের থাকার ব্যবস্থা আছে। পরিপূর্ণ গ্রামীণ আমেজের প্রাণময় লোকজ বসবাস অথবা ইট কাঠ বালুর কটেজ। এসি, নন-এসি ২১টি কটেজ রয়েছে। আরো আছে সুইমিং পুল ও দু’টি কনফারেন্স রুম।


খাবার হোটেলে বাংলা, চাইনিজ, ইন্ডিয়ান, থাই, কন্টিনেন্টাল খাবার পাওয়া যায়।


ভাড়া : কটেজগুলো ২৪ ঘণ্টার ভাড়া ৩ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা। কনফারেন্স রুম ২০ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা এবং পিকনিকের জন্য ১০০ থেকে ২০০ জনের ভাড়া ৯০ হাজার টাকা।



ছুটি রিসোর্টের বিভিন্ন ধরনের কটেজের সুবিধা :


কাঠের কটেজ : লেক ভিউ, ২ বিছানা, এল ই ডি টিভি, বারান্দা এবং এটাচ বাথরুম। ভাড়া – ৬০০০+


ফ্যামিলি কটেজ : লেক ভিউ, ২টি পৃথক এসি কক্ষ, ২টি বড় আকার বিছানা, হ্রদ সংযুক্ত স্নান, LED টিভি, লিভিং রুম, বারান্দা ও কাঠের ডেক. ২ কপল / ৪জন ++


ভাড়া – ১০০০০+


এ ছাড়াও রয়েছে প্রিমিয়াম কটেজ যার ভাড়া – ৮০০০+, সেমি প্রিমিয়াম কটেজ যার ভাড়া – ৫০০০+, এবং রয়েল কটেজ যার ভাড়া – ৯০০০+


আরো আছে ডরমিটরি যেখানে জনপ্রতি সিট ভাড়া এক হাজার টাকা।


পিকনিক স্পট ভাড়া : ৯০০০০ – ১০০০০০ টাকা।


রেষ্টুরেন্টের বৈশিষ্ট্য:ছুটি বিশেষ খাদ্য, ঐতিহ্যবাহী বাংলা খাদ্য, ভারতীয় মসলাযুক্ত খাবার, বিরতি ফাস্ট (ঐতিহ্যবাহী ওরিয়েন্টাল ও কন্টিনেন্টাল), তাজা রস,মিনারেল ওয়াটার, আইসক্রিম, নরম পানীয়, বার বি কিউ, ঐতিহ্যবাহী পিঠা।


এছাড়াও আছে প্যাকেজ সুবিধা। সারা দিনের জন্য খাওয়াসহ জনপ্রতি ১২০০ টাকা। সঙ্গে বিনা মূল্যে রয়েছে বোটিং, ফিশিং ও সাইট সিয়িং।


কিভাবে যাবেন :


ঢাকার গুলিস্তান, মহাখালী থেকে বিআরটিসি কিংবা অন্য যে কোনো বাসে গাজীপুর শহর, সেখান থেকে রিকশায় তিন কিলোমিটার আমতলী বাজার। আমতলী বাজারের পাশেই ছুটি রিসোর্ট ও পিকনিক কর্নার।


বিবার্তা/মৌসুমী

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com