গ্রন্থাগার সমিতি নির্বাচনে লড়ছেন ড. নাসির
প্রকাশ : ২৫ ডিসেম্বর ২০১৭, ২০:৩১
গ্রন্থাগার সমিতি নির্বাচনে লড়ছেন ড. নাসির
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

বাংলাদেশ গ্রন্থাগার সমিতির আসন্ন নির্বাচনে মিতুল-লিটন-মহিউদ্দিন পরিষদে সভাপতি পদে লড়ছেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন প্রফেসর ড. মো. নাসিরউদ্দিন মিতুল।


নিচে প্রফেসর ড. মো. নাসিরউদ্দিন মিতুলের বর্ণাঢ্য জীবনের কিছু অংশ তুলে ধরা হলো।


পেশার উৎকর্ষ সাধন, আধুনিকায়ন, পেশাজীবীদের অধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় বদ্ধপরিকর ড. মিতুল এ পেশায় এদেশের সর্বপ্রথম ব্যক্তি, যিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো একটি বৃহত্তম বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন। তাছাড়া তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ও সিন্ডিকেট সদস্য, হেড অব লাইব্রেরি এবং হেড অব ডিপার্টমেন্ট।


ড. মো. নাসির উদ্দিন মিতুল ১৯৯২ সালে গ্রন্থাগার ও তথ্যবিজ্ঞান বিষয়ে অনার্স এবং ১৯৯৩ সালে একই বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রথম শ্রেণীতে মাস্টার ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি ১৯৯৭ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসাবে যোগদান করেন। এরপর তিনি সহকারী প্রক্টর এবং গ্রন্থাগার ও তথ্যবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।


আন্তর্জাতিক সংস্থা ইফলা, এএলপি, নাকলিন, টেরি, কমলা, ক্লিফ প্রভৃতির আমন্ত্রণে তিনি আমেরিকা, ইংল্যান্ড, জাপান, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, নরওয়ে, ফিনল্যান্ড ফ্রান্স, শ্রীলংকা, ভারত ও মালয়েশিয়া প্রভৃতি অনেক দেশে ভিজিটিং লেকচারার হিসাবে ভ্রমণ করেন।


দেশি-বিদেশি বিভিন্ন খ্যাতনামা জার্নালে প্রফেসর নাসিরের ৪৫টিরও অধিক গবেষণা প্রবন্ধ রয়েছে।


২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে শ্রীলংকার রাজধানী কলম্বোতে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক সেমিনারে প্রায় ২৫টি দেশের মধ্যে তাঁর প্রবন্ধ “শ্রেষ্ঠ প্রবন্ধ” পুরস্কার লাভ করে। স্থানীয় সকল গণমাধ্যমসহ আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম যেমন “দা ইন্টারন্যাশনাল ডেইলি মিরর” তাদের সম্পাদকীয়তে এ খবর তুলে ধরে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করে।


প্রফেসর নাসির জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রকাশিত দি ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি জার্নাল অব হিউমানিটিস, সোস্যাল সায়েন্স অ্যান্ড বিজনেস স্টাডিজ ও ত্রৈমাসিক পত্রিকা দি ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি নিউজলেটার-এর সম্পাদক।


সুদীর্ঘ ২০ বছরের চাকুরীজীবনে তিনি ইউএনডিপি, ইউএনএফপিএ, ডাব্লিউটিও, বিএফটিআই, মাইডাস, কনসারন ওয়ার্ল্ডওয়াইডসহ বেশ কিছু আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থায় বিভিন্ন প্রজেক্টে পরামর্শক ছিলেন।


২০১১ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত উচ্চশিক্ষার্থে তিনি সস্ত্রীক লন্ডনে অবস্থান করেন।


২০১৪ সালের ০২ মার্চ প্রফেসর নাসির জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করেন। পেশাগত উন্নয়নে ইতোমধ্যে সেখানে তিনি বেশ-কিছু কাজ করেছেন, যা তাঁর সৃজনশীলতা ও কর্মতৎপরতার স্বাক্ষর বহন করে।


এসব কাজের মধ্যে আছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন বিভাগ (গ্রন্থাগার ও তথ্যবিজ্ঞান বিভাগ) চালুকরণ; এমএএস ও এমফিল প্রেগ্রাম চালুকরণ;অন ক্যাম্পাস ডিপ্লোমা প্রোগ্রাম চালুকরণ; নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইন্সটিটিউট অব ইনফরমেশন সায়েন্স (আইআইএস) চালুকরণ; জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ২শতাধিক লাইব্রেরীয়ান নিয়োগ; ডিপ্লোমা শিক্ষা কার্যক্রমের সিলেবাসের আধুনিকীকরণ ও সেমিস্টার পদ্ধতি প্রবর্তন; ঢাকা শহরে ৮টিরও অধিক খ্যাতনামা কলেজে এ বিষয়ে অনার্স ও ডিপ্লোমা কোর্স চালুকরণ; পর্যায়ক্রমে প্রত্যেক বিভাগীয় শহরে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাধ্যমে এ কোর্স চালুকরণ; এ পর্যন্ত প্রায় ২৮টি ইন্সটিটিউটের মাধ্যমে সারা দেশে ডিপ্লোমা শিক্ষা কার্যক্রম প্রসারে ভুমিকা পালন; জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে এ বিষয়টি চালুর যাবতীয় প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্নকরণ।


গুণী এ মানুষটি বাংলাদেশ গ্রন্থাগার সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হলে সংগঠনের জন্য একটি গৌরবময় অধ্যায়ের সূচনা হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট অনেকেই।


বিবার্তা/হুমায়ুন/কাফী

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com