স্বাস্থ্যসেবায় ফিজিওথেরাপিস্টদের সমান গুরুত্ব দিতে হবে : সায়মা
প্রকাশ : ২২ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৭:০২
স্বাস্থ্যসেবায় ফিজিওথেরাপিস্টদের সমান গুরুত্ব দিতে হবে : সায়মা
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

ফিজিওথেরাপিসহ অন্যান্য পুনর্বাসনভিত্তিক পেশাজীবীদের জন্য একটি নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান গঠনের বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেছেন অটিজম ও নিউরোডেলেপম্যান্ট ডিজঅর্ডার জাতীয় উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারম্যান সায়মা ওয়াজেদ হোসেন। তিনি বলেন, স্বাস্থ্যসেবায় অন্যদের মতো ফিজিওথেরাপিস্টদেরও সমান গুরুত্ব দিতে হবে।


বাংলাদেশ ফিজিওথেরাপি অ্যাসোসিয়েশন (বিপিএ) আয়োজিত দুই দিনব্যাপী রিহ্যাবিলেটেশন প্রফেশনালদের জন্য প্রথম আন্তজার্তিক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রিহ্যাবিলিটেশন প্রফেশনের রেগুলিটরি বডি নিয়ে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন সায়মা ওয়াজেদ।


শুক্রবার কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠান হয়। সম্মেলনের মূল প্রতিপাদ্য ছিল ‘এসডিজি বাস্তবায়নের জন্য সমন্বিত পুনর্বাসন সেবা নিশ্চিতকরন’।


অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আয়োজক সংগঠনের সভাপতি সহযোগী অধ্যাপক ডা. নাসিরুল ইসলাম। প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিপিএ’র এডভাইজর ও সেন্টার ফর দ্য রিহ্যাবিলিটেশন অফ দ্য প্যারালাইজড (সিআরপি)-এর প্রতিষ্ঠাতা ভেলরি এ টেইলর।
সায়মা ওয়াজেদ বলেন, দেশে স্বাস্থ্যসেবার ইতিহাস দেখলে দেখা যায় প্রথম থেকেই ফিজিওথেরাপিসহ অন্যান্য পুনর্বাসনভিত্তিক পেশাজীবীরা অবহেলিত। তাদের সম্পর্কে সাধারণ মানুষের সঠিক ধারণা এবং নিয়ন্ত্রণের অভাব ছিল।


সায়মা ওয়াজেদ বলেন, আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বলব একটি রেগুলেটরি বডি গঠন করে কিভাবে এই সেবা আরো যুগোপযোগী করা যায় সে বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া উচিত। এর মাধ্যমে নির্ধারণ করতে হবে এই পেশায় কারা কাজ করবেন এবং তাদের যোগ্যতার মাপকাঠি কী হবে।


তিনি বলেন, আমাদের সবাইকে পুনর্বাসনসেবা সম্পর্কে অবগত হবে। মানুষের শারীরিক বিষয়গুলো, কথা বলা, হাতের ক্ষুদ্র কাজ এবং মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কে জানতে হবে। আমাদের সহযোগিতার মাধ্যমে প্রতিবন্ধীদের জীবনের দৈনন্দিন কাজকে গতিশীল করতে হবে। তাদের নিজেদের কাজ, কর্মক্ষেত্রের কাজে সহযোগিতার পাশাপাশি তাদের মানসিক অনুভুতির উন্নয়নে কাজ করতে হবে।


সাধারণ মানুষের উদ্দেশে সায়মা ওয়াজেদ বলেন, এই সমাজের দায়িত্ব শুধু সরকার বা নির্দিষ্ট কোনো প্রতিষ্ঠানের নয়। এই দায়িত্ব আমাদের সবার।


আমি এই পেশার সঙ্গে যারা যুক্ত তাদের উদ্দেশে বলব, আপনারা জ্ঞান অর্জনের দিকে মনোযোগী হবেন। নতুন নতুন গবেষণায় নিজেদের যুক্ত করে এই খাতকে আরো সমৃদ্ধ করবেন। স্বাস্থ্য খাতে পড়াশোনা কখনো শেষ হয় না। ধারাবাহিকভাবে নানা বিষয় সামনে আসে। আপনাদের যেই নামেই ডাকুক না কেনো আপনারা স্বাস্থ্যপেশাজীবী।
মো. নাসিম তার বক্তব্যে কলেজ অব ফিজিওথেরাপি’র জন্য বরাদ্দকৃত জমিতে যে বস্তি রয়েছে (মহাখালীর সততলা বস্তি) সেটি উচ্ছেদ করে কলেজ প্রতিষ্ঠা, ফিজিওথেরাপিস্ট, অকুপেশনাল থেরাপিস্ট, স্পীচ অ্যান্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপিস্ট ও অর্থোটিস্ট এবং ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্টদের জন্য কাউন্সিল এবং নিয়োগবিধি নিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন।


ভেলরি এ টেইলর বলেন, গত কয়েক বছরে এই ফিজিওথেরাপিস্টদের পেশাগত উন্নয়ন হয়েছে তা দৃশ্যমান। ১৯৬৯ সালে যখন আমি বাংলাদেশে আসি, আমার মনে হয় আমিই একমাত্র ফিজিওথেরাপিস্ট সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে এই সেবা দেয়া শুরু করি। তৎকালীন পূর্বপাকিস্তানের অল্প কিছু ছাত্রছাত্রী ফিজিওথেরাপি কোর্সে অধ্যয়নরত ছিল। বর্তমানে এই পেশার জনপ্রিয়তা বেড়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা অনুষদের অধীনে এখন প্রতি বছর ৫০ জন ফিজিওথেরাপি, ৪০ জন অকুপেশনাল থেরাপি ও ৩০ জন স্পিচ অ্যান্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপি কোর্সে পড়ছেন। পাশাপাশি মাস্টার্স ইন ফিজিওথেরাপি অ্যান্ড মাস্টার্স ইন রিহ্যাবিলিটেশন সাইন্স চালু আছে। বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন দেশে পিএইচডিতেও অধ্যয়নরত আছেন।
শুক্র ও শনিবার দুই দিনব্যাপী এই সম্মেলনে বিশ্বের ১২টি দেশের চিকিৎসা ও পূনর্বাসন পেশাজীবী ও প্রতিনিধিগন অংশগ্রহণ করছেন। তাদের বক্তব্যে পুনর্বাসন চিকিৎসার গুরুত্ব উঠে আসে। বক্তারা বলেন ১৬ কোটি মানুষের এই দেশে স্বাস্থ্যসেবায় অনেক এগিয়ে গেলেও পুনর্বাসন চিকিৎসা নিয়ে মানুষের মাঝে সচেতনতা ও সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় সমন্বিত পূর্নবাসন চিকিৎসা বাস্তবায়ন জরুরি।


অধ্যাপক ডা. নাসিরুল ইসলাম বলেন, সঠিক পূর্নবাসন চিকিৎসা নিশ্চিতের জন্য প্রয়োজন সঠিক নীতিমালা, ভাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং সরকারি হাসপাতালে পুনর্বাসন চিকিৎসা পেশাজীবী নিয়োগ। সর্বোপরি সাধারণ মানুষের সচেতনতা এবং অপচিকিৎসা প্রতিরোধে দ্রুত “বাংলাদেশ থেরাপি ও রিহ্যবিলিটেশন কাউন্সিল আইন ২০১৭” এর বাস্তবায়নের দাবি তোলা হয়।


বিবার্তা/বিপ্লব/সোহাগ

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com