সউদি প্রবাসীরা কেন আরবী পারে না
প্রকাশ : ২৭ নভেম্বর ২০১৭, ১৭:৩৩
সউদি প্রবাসীরা কেন আরবী পারে না
মুহাম্মাদ আল-মাযিনি
প্রিন্ট অ-অ+

সউদি আরবে ৩০ বছর ধরে বসবাস করছে এমন অনেক প্রবাসীকেও আমি দেখেছি তারা আরবী ভাষা বলতে গেলে জানেই না, বুঝতেও পারে একেবারেই কম। কেউ-কেউ ভাঙ্গা-ভাঙ্গা আরবীতে হয়তো কিছু কথা বলতে পারে।


আবার এর উল্টো চিত্রও আছে। কোনো-কোনো প্রবাসীর মুখে আরবী শুনে আমরা সউদিদেরই অবাক হয়ে যেতে হয়। কারণ, তাদের মুখের আরবী শুনে বোঝার উপায়ই থাকে না যে তারা আরব কী অনারব। মনে হয় যেন কোনো আরবই কথা বলছে।


রিয়াদের এক গ্যাস স্টেশনে আমি এরকম এক ফিলিপিনোর দেখা পেয়েছিলাম। লোকটি সউদি আরবে আছে মাত্র ছয় বছরের মতো, কিন্তু আরবী বলে একেবারে বেদুঈনদের মতো। ভারী মজার লোক। আপনি যদি কখনো তার গ্যাস স্টেশনে যান, দেখবেন সে একেবারে বেদুঈন স্টাইলে আপনাকে স্বাগত জানাচ্ছে, বেদুঈনরা কাউকে স্বাগত জানাতে যেসব প্রবচন বলে থাকে, সেগুলোই সে দিব্যি বলে যাচ্ছে। আপনি বুঝতেই পারবেন না যে, এসব একজন অনারব ব্যক্তির মুখের কথা। ক্ষণিকের জন্য হলেও আপনি ভাববেন যে আপনি বুঝি কোনো সউদি তরুণের সঙ্গে কথা বলছেন।


আমি ওর কাছে জানতে চেয়েছিলাম যে ও এতো সুন্দর বেদুঈন উচ্চারণে কথা বলতে শিখলো কী করে। সে জানালো যে সে মরুভূমিতে উট চরানোর কাজ করেছে দু'বছর। এসময় তার মালিক প্রতিদিন নানা বিষয়ে দু'ঘণ্টা তার সঙ্গে কথা বলতেন। এভাবে দু'বছরের মধ্যেই বেদুঈন উচ্চারণ তার পুরোপুরি আয়ত্তে এসে যায়।


প্রসঙ্গক্রমে বলে রাখি, মরুভূমিতে থাকাকালে ওই ফিলিপিনো মানুষটি তার মালিক ছাড়া আর কারো সঙ্গে মেশার সুযোগই পায়নি। তার কাহিনী জেনে আমার মনে ভাবনা এলো, কেন অনেক ভিনদেশি মানুষ দশকের পর দশক সউদি আরবে বাস করেও ভালো করে আরবী বলতে ও বুঝতে পারে না, পারে না স্থানীয় উচ্চারণ শিখতে?


বাস্তবিকই এদেশে বসবাসকারী বিদেশি কর্মীদের একটা বিরাট অংশেরই আরবী শেখায় অনেক প্রতিবন্ধকতা রয়ে গেছে। তাই তারা তাদের দৈনন্দিন কাজকর্মে, যেমন সুপারমার্কেট বা শপিংমলে গেলে ইংরেজি বলতেই পছন্দ বা স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। কিন্তু একজন ফিলিপিনো যেখানে মাত্র দু'বছরে কঠিন বেদুঈন উচ্চারণ শিখে ফেলতে পারলো, সেখানে কিছু প্রবাসী কেন আরবী শিখতে পারছেন না?


এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে আসুন, আমরা একটুখানি দৃকপাত করি ১৪০০ বছরের পুরনো আরব ঐতিহ্যের দিকে, যখন আরব মা-বাবারা তাদের দুধের শিশুদের লালনপালনের জন্য মরুভূমিতে কোনো বেদুঈন পরিবারে পাঠাতেন। এর উদ্দেশ্য ছিল, বেদুঈনদের সঙ্গে বেড়ে ওঠার সঙ্গে ওই শিশুরা বিশুদ্ধ আরবী ভাষায় দক্ষ হয়ে উঠবে। ঠিক এভাবেই আমাদের আলোচ্য ফিলিপিনো নাগরিকটিও বেদুঈন উচ্চারণ শিখেছেন।


আমাদের নিজেদেরই নিজেদের দোষারোপ করা উচিত যে, নিজের ভাষাটিকে, এর গৌরব করার মতো দিকগুলোকে অন্যদের কাছে তুলে ধরতে আমরাই ব্যর্থ হয়েছি, ব্যর্থ হয়েছি আমাদের ভাষাকে অন্যদের মনে প্রোথিত করে দিতে। নিজেদেরকেই আমাদের প্রশ্ন করা উচিৎ, যেসব সউদি তরুণ-তরুণী লেখাপড়া করতে বিদেশে যায়, তারা কিভাবে এক-দুই বছরের মধ্যে ওই দেশের ভাষা শিখে ফেলে?


ব্রিটেনে সেদেশের মানুষেরা ইংরেজি বলতে গৌরব বোধ করে। ইংরেজি শেখার জন্য কোনো বিদেশি ব্রিটেন গেলে সহজেই ভাষাটি শিখে ফেলতে পারে। আমাদেরও ঠিক তা-ই করা উচিত। নিজ দেশে আমাদের ইংরেজির পরিবর্তে আরবীই বলা উচিত। আরো উচিত ইংরেজ, ফরাশি, জার্মান এবং অন্যান্য দেশের প্রবাসীদের মধ্যে আরবী চালু করা। আমাদের এমন ব্যবস্থা করা উচিৎ, যেসব বিদেশি আরবী শিখতে এদেশে আসেন, তারা যেন এদেশ ছাড়ার আগেই আরবী ভাষাটি শিখে ফেলতে এবং এ ভাষা পড়তে ও লিখতে পারেন।


সউদি গেজেট থেকে অনুবাদ : হুমায়ুন সাদেক চৌধুরী


বিবার্তা/হুমায়ুন/কাফী

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com