‘হত্যাকাণ্ড ও শিশু ধর্ষণের মতো ঘটনাগুলো বিবেককে নাড়া দেয়’
প্রকাশ : ১১ জুলাই ২০১৯, ১৬:১৩
‘হত্যাকাণ্ড ও শিশু ধর্ষণের মতো ঘটনাগুলো বিবেককে নাড়া দেয়’
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, হত্যাকাণ্ড ও শিশু ধর্ষণের মতো অমানবিক ঘটনাগুলো আমাদের বিবেককে নাড়া দেয়।


তিনি বলেন,বরগুনায় রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যার মামলার অপরাধীদের গ্রেফতার করে বিচারের মুখোমুখি করাই আমাদের মূল কাজ। রিফাত হত্যার আসামিদের ধরা হয়েছে। আমরা দ্রুত এ মামলার চার্জশিট দেয়ার চেষ্টা করবে। যাতে এ ঘটনার দ্রুত বিচার হয়।


ই-পাসপোর্ট চালুর বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সময় দিলে চলতি জুলাই মাসেই ই-পাসপোর্ট উদ্বোধন করা হবে।


স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরামের (বিএসআরএফ) নেতাদের সঙ্গে বৃহস্পতিবার মতবিনিময় সভায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।


স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেশের সামাজিক শাসন ক্ষয়ে গেছে। সামাজিক মূল্যবোধ কমে গেছে। এগুলো রোধ করতে পারলে, আমরা কিছুটা ফল পাবো। যেমন, ছোটবেলায় দেখেছি, এ ধরনের ঘটনা ঘটলে গ্রামে বিচার হতো। এখন আর সেটা হয় না। সামাজিক বিচারব্যবস্থা উঠে গেছে। তবে আমরা অপরাধীকে ধরে এনে আইনের হাতে তুলে দিচ্ছি; এটাই আমাদের প্রধান কাজ। এক্ষেত্রে আপনাদেরও (সাংবাদিকদের) ভূমিকা আছে। সংবাদমাধ্যম অনেক শক্তিশালী, সংবাদিকরা যদি লেখনীতে এগুলো তুলে আনেন, তবে আমরা সামাজিক অবক্ষয় থেকে মুক্তি পাব।


তিনি বলেন, সমাজের শুরু থেকেই অনাচার ছিল। শুধু বাংলাদেশ নয়, সমগ্র পৃথিবীতেই এটা হচ্ছে। এর জন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।


অপরাধীদের বিচার বিলম্বের বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, মামলা জটের কারণে বিচার বিলম্বিত হচ্ছে।


চার্জশিটের ফাঁক ফোকরে আসামিরা বেরিয়ে যাচ্ছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নিখুঁত চার্জশিট দেয়ার জন্য আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। প্রধান বিচারপতিও আমাকে বলেছিলেন, এ বিষয়ে। নিখুঁত চার্জশিট দেয়ার জন্য পুলিশকে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।


পুলিশ চার্জশিট দিতে অনিয়ম করে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, ভুল সবাই করে। কিন্তু ইচ্ছাকৃত ভুল শাস্তিযোগ্য অপরাধ। যারাই এ ধরনের ইচ্ছাকৃত ভুল করে ধরা পড়ে তাদের শাস্তি হচ্ছে। তাদের কারো কারো বিরদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়েছে, প্রমাণ সাপেক্ষে অনেককে আইনের আওতায় আনা হয়েছে।


সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ডিআইজি মোজ্জাম্মেল হকের ঘটনা আমি শুনেছি। তার সম্পর্কে অভিযোগগুলো আমাদের কানে এসেছে। বিষয়গুলো নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার প্রমাণ মিললে আপনারা সঠিক বিচার দেখতে পাবেন।


কবে নাগাদ ই-পাসপোর্ট চালু হচ্ছে- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ই-পাসপোর্ট ও ই-গেট করতে আমরা প্রজেক্ট নিয়ে কাজ করছি। জার্মানির একটি খ্যাতনামা কোম্পানি পুরো প্যাকেজ হিসেবে কাজ করছে। তারা সব ধরনের কাজ গুছিয়ে এনেছেন। আমার মনে হয়, প্রতিদিনই তো খবর নিচ্ছি- জুলাইয়ের যে কোন সময় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এটা উদ্বোধন করতে পারবেন। যদি না হয়, এটা প্রধানমন্ত্রীর সময়ের ওপর নির্ভর করছে। কারণ এটা একটা ঐতিহাসিক জিনিস আমরা করতে যাচ্ছি। সেই জায়গাটিতে যখন যাব প্রধানমন্ত্রী সেটা উদ্বোধন করবেন। এটা প্রায় রেডি হয়ে আছে, যেকোনো সময় আমরা করতে পারব।


বিএসআরএফের সভাপতি তপন বিশ্বাস ও সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদের নেতৃত্বে ২১ সদস্যের প্রতিনিধিদল সভায় অংশ নেয়।


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanews24@gmail.com ​, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com