‘চোখে অপারেশন না হলে আমি নিজেই ধান কাটতে যেতাম’
প্রকাশ : ২৩ জুন ২০১৯, ১৭:২৬
‘চোখে অপারেশন না হলে আমি নিজেই ধান কাটতে যেতাম’
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, প্রয়োজনে সব কাজ করতে হবে। চোখেঅপারেশন না হলে আমি নিজেই ধান কাটতে যেতাম। আমি দেখিয়ে দিতাম আমার কাছে সব কাজ সমান।


রবিবার রাজধানীর শাহবাগে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন একাডেমিতে চলমান ১১০, ১১১ এবং ১১২তম আইন ও প্রশাসন কোর্সের সমাপনী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।


তিনি বলেন, কোনো কাজই ছোট কাজ নয়। একবার ফুলপ্যান্ট পরলে আর লুঙ্গি পরা যাবে না বা গামছা পরে মাঠে যাওয়া যাবে না এই চিন্তাটা যেন মাথায় না আসে। মানুষকে বলতে হবে, বোঝাতে হবে। প্রয়োজনে সব কাজ করতে হবে।


বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, শিক্ষায় আমরা সবাইকে উৎসাহিত করছি কিন্তু কোনো কাজ যে ছোট কাজ না সেটা মাথায় রাখতে হবে। লেখাপড়া শিখলে ধান কাটতে পারবো না এই মানসিকতা থাকতে পারবে না।


তিনি বলেন, খালি বলেন ধান কাটা নিয়ে সমস্যা ধান কাটার লোক পাওয়া যায় না। আমি যখন ছাত্রলীগকে হুকুম দিলাম সবাই লেগে যাও, যার যার এলাকায়। সবাইকে মাঠে গিয়ে ধান কাটতে হবে, শিখতে হবে। যিনি জানেন এ রকম কৃষককে সঙ্গে নিতে হবে। ধান কাটার একটা নিয়ম আছে।


প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের দেশপ্রেম নিয়ে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে জায়গায় যাবেন খালি চাকরির জন্য চাকরি করা নয়, জনসেবা করা, দেশসেবা করা, দেশকে ভালোবাসা, দেশের মানুষকে ভালোবাসা একথাটা মনে রাখতে হবে। শুধু চাকরি করার জন্য চাকরি করা নয়, কর্তব্যবোধ, দেশের প্রতি ভালোবাসা, জনগণের প্রতি ভালোবাসা এবং তাদের প্রতি দায়িত্ববোধ- এই চিন্তাটা সব সময় মাথায় থাকলে দেশটাকে সুন্দরভাবে গড়ে গড়ে তোলা যায়।


তিনি বলেন, প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন কর্মক্ষেত্রে অনেক পরিবর্তন এনেছে। এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে।


প্রশাসনের কর্মকর্তাদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মাঠ প্রশাসনে যারা কাজ করবেন ওখানকার সমস্যাগুলো খুঁজে বের করতে হবে। জনগণের জন্য কাজ করতে হবে। তারা যেন ন্যায়বিচার পায় সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে। শুধু গতানুগতিকভাবে দেশ চালালে চলবে না, দেশটাকে আধুনিক প্রযুক্তি জ্ঞানসম্পন্ন করে গড়ে তুলতে হবে একেবারে তৃণমূল পর্যায় থেকে। দেশটাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারলে সব সুযোগ-সুবিধা পাবেন।


জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, দুর্নীতি যাতে সমাজটাকে ধ্বংস করতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।


শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশটাকে স্বাধীন করে দিয়ে গেছেন বলেই আজ সর্বক্ষেত্রে বাঙালিরাই স্থান করে নিতে পারছে বাঙালিরা যে পারে সেটাই হচ্ছে বড় কথা।


আওয়ামী লীগ সরকারের জনকল্যাণমূলক কাজের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা হয়েছিল বাঙালির অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য। যে কারণে আপনারা দেখবেন আওয়ামী লীগ যখন সরকারে আসে তখন কিন্তু দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন হয়।


এসময় ১১০, ১১১ এবং ১১২তম আইন ও প্রশাসন কোর্সের প্রশিক্ষণার্থীদের হাতে সনদ তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে রেক্টর অ্যাওয়ার্ড পাওয়া দু’জন শিক্ষার্থী ও বক্তব্য রাখেন।


অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, জনপ্রশাসন বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এইচ এন আশিকুর রহমান, জনপ্রশাসন সচিব ফয়েজ আহম্মদ, বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন একাডেমির রেক্টর কাজী রওশন আক্তার।


বিবার্তা/জহির

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

বি-৮, ইউরেকা হোমস, ২/এফ/১, 

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com