স্বস্তিদায়ক ঈদযাত্রায় নিহত ২২১
প্রকাশ : ১২ জুন ২০১৯, ২০:২৪
স্বস্তিদায়ক ঈদযাত্রায় নিহত ২২১
(ফাইল ছবি)
আকরাম হোসেন
প্রিন্ট অ-অ+

ঈদের আগে সড়ক পরিবহনও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরসহ সরকারের বিভিন্ন পর্যায় থেকে বার বার বলা হয়েছে এবারের ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক হবে। এমনকি এবার ইতিহাসের সেরা ঈদ যাত্রা হবে। কথা ও কাজের অনেকটা মিলও পাওয়া গেছে। যাত্রীদের সাথে কথা বলে জানা যায় অন্যান্য বছরের তুলনায় এবারের ঈদযাত্রায় রাস্তাতে তেমন যানজট ছিল না। জনদুর্ভোগও তুলনামূলক কম হয়েছে। তবে কিছু কিছু জায়গার চিত্র ভিন্ন রকম দেখা গেছে। তাদের অভিযোগ পূর্বের মত এবারো রাস্তাতে যানজট ছিল।


কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের কর্মরত ফারজানা সুমি বলেন, আমার বাড়ি চট্টগ্রামের মিরসরাই। অন্যান্য সময় ঢাকা থেকে বাড়ি যেতে ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা লেগে যেত। ঈদের আরো অনেক বেশি সময় লাগত।এবার যাওয়ার সময় মাত্র ৩ ঘণ্টা লেগেছে এবং আসার সময় সাড়ে ৩ ঘণ্টা লেগেছে। এবারের ঈদ যাত্রা বেশ স্বস্তিদায়ক ছিল।


সেভ দ্যা চিল্ডেনে কর্মরত এক কর্মকর্তা বিবার্তাকে জানান, অন্য সময় কক্সবাজার থেকে ঢাকা আসতে সময় লাগত ১২-১৩ ঘণ্টা। ঈদের সামনে আরো বেশি সময় লাগত। তবে এবারের ঈদে ৭-৮ ঘণ্টায় সময় লেগেছে।


আরিফ আহমেদ বিবার্তাকে বলেন, এবারের ঈদে রাস্তায় কোনো যানজট ছিল না। ঢাকা থেকে চাঁদপুর যেতে আমার সময় লেগেছে ২ ঘণ্টা। অন্য সময় ৩-৪ ঘণ্টা লেগে যেত। তবে কেউ কেউ ভিন্ন মতামতও দিয়েছেন।


জাহিন আহমেদ নামে এক ব্যক্তি বিবার্তাকে বলেন, ঈদের আগের দিন ঢাকা থেকে রংপুরে যেতে আমার প্রায় ১৮ ঘণ্টা লেগেছে। আসার সময় লেগেছে ১০ ঘণ্টার মত। অন্যান্য সময় যেতে লাগে ৭ থেকে ৮ ঘণ্টা। অন্যান্য ঈদে যেমন সময় লাগে এবারের ঈদেও তেমন সময় লেগেছে।


সবুজ হোসাইন বিবার্তাকে বলেন, এবারের ঈদযাত্রা মোটামুটি স্বস্তিদায়ক ছিল। সাতক্ষীরা যেতে অন্য সময়ের মতই এবারের ঈদে সময় লেগেছে। তবে আগের সব ঈদের থেকে এবার ঈদে সময় কম লেগেছে। তবে স্বস্তিদায়ক ঈদ যাত্রা হলেও থেমে নেই সড়ক-মহাসড়কে মৃত্যুর মিছিল। এবার সড়কে ঝরেছে ২২১ প্রাণ। মোট ১৮৫টি দুর্ঘটনায় ৬৫২ জন আহত ও ৩৭৫ জন পঙ্গুত্ব বরণ করেন। ৩০মে থেকে ছুটি শেষে ১০ জুন কর্মস্থলে ফেরা পর্যন্ত এই ১২ দিনে এসব দুর্ঘটনা ঘটে। এ তথ্য জানিয়েছে যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ অধিকার পরিষদ।


অন্যদিকে গত ঈদুল আযহায় দেশের সড়ক-মহাসড়কে ২৩৭টি সড়ক দুর্ঘটনায় ২৫৯ জন নিহত হয়েছিল। এ সময় আহত হয়েছিল ৯৬০ জন। ২০১৭ সালে ঈদুল ফিতরের আগে-পরে সড়কে ২০৫টি দুর্ঘটনায় ২৭৪ জন প্রাণ হারিয়েছেন। আহত হয়েছেন ৮৪৮ জন। ২০১৬ সালের ঈদুল ফিতরে ১২১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১৮৬ জন নিহত হয়েছিলেন, আহত হয়েছিল ৭৪৬ জন। সূত্র: বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি


এ সব দুর্ঘটনার জন্য বেশ কিছু কারণ বের করেছে ‘যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ অধিকার পরিষদ’। তারা মনে করছে ঈদ-কেন্দ্রিক অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ, চালকদের প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব, অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালানো, অদক্ষ চালকদের হাতে দৈনিক চুক্তিতে গাড়ি ভাড়া দেয়া, ফিটনেসবিহীন যানবাহনে যাত্রী বহন, মহাসড়কে অটোরিকশা ব্যাটারি চালিত-রিক্সা-নসিমন-করিমন ও মোটরসাইকেলের অবাধ চলাচল, ওভার টেকিং, বিরতিহীনভাবে গাড়ি চালানো, ট্রাফিক আইন না মানার প্রবণতা এসব দুর্ঘটনার জন্য দায়ী।


বিবার্তা/আকরাম/আকবর


>> ঈদযাত্রার ১২ দিনে নিহত ২৪৭, আহত ৬৬৪ জন

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com