জুমার খুতবায় জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বলবেন: প্রধানমন্ত্রী
প্রকাশ : ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১৩:২৪
জুমার খুতবায় জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বলবেন: প্রধানমন্ত্রী
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশেও এই ধরনের ঘটনা ঘটানোর অনেক চেষ্টা চলছে। তবে আমাদের গোয়েন্দা সংস্থা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থা যথেষ্ট সর্তকতা অবলম্বন করে যাচ্ছে।


দেশবাসী ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, সন্ত্রাসের কারণে আমরা আট বছরের শিশু জায়ান চৌধুরীকে হারিয়েছি। আমি চাই না, আর কোনো সন্তানের এভাবে মৃত্যু হোক। যারা এগুলো করে তারা ঘৃণা ছাড়া কিছুই পায় না।


সারাদেশের মসজিদের ইমামদের প্রতি আহবান জানিয়ে তিনি আরো বলেন, নিরীহ মানুষ হত্যা ইসলাম সমর্থন করে না। কাউকে হত্যা করার মাধ্যমে কারো বিচারের অধিকার ইসলাম কাউকে দেয়নি। বিচার করবেন রাব্বুল আল আমিন। জুমার খুতবায় আপনারা জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে প্রচার করবেন। আমরা শান্তি চাই।


গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৃহস্পতিবার ঢাকা-রাজশাহী-ঢাকা রুটে বিরতিহীন ‘বনলতা এক্সপ্রেস’ ট্রেনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।


অনুষ্ঠানের শুরুতে রেলের ওপর সংক্ষিপ্ত তথ্য উপস্থাপন করেন রেল মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মোফাজ্জল হোসেন। রাজশাহী প্রান্তে বক্তব্য দেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন, রাজশাহীর মেয়র এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন।


প্রধানমন্ত্রী বলেন, গোয়েন্দা সংস্থাসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও দেশবাসীকে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে। আমরা শান্তি চাই। ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় আসার পর দেশে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের উত্থান ঘটে। শায়খ আবদুর রহমান ও বাংলা ভাইদের মতো সন্ত্রাসীদের জন্ম হয়।


তিনি বলেন, হরতালের নামে তারা মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। গাড়ি, বাস, ট্রাক ও লঞ্চ আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে। বাবা দেখেছে চোখের সামনে ছেলে পুড়ে যাচ্ছে, মা দেখেছে সন্তান পুড়ে যাচ্ছে, ভাই দেখেছে বোন পুড়ে যাচ্ছে। আমরা এগুলো চাই না।


সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদকে বৈশ্বিক সমস্যা হিসেবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জঙ্গিবাদ শুধু বাংলাদেশে নয়, সারা বিশ্বব্যাপী একটা সমস্যা। কয়েকদিন আগে নিউজিল্যান্ডে মসজিদে প্রবেশ করে তারা মুসলমানদের হত্যা করেছে। শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় কত মানুষের প্রাণ গেল। নিষ্পাপ শিশুরাও তাদের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে না। আমাদের শিশু জায়ান চৌধুরীও রক্ষা পায়নি জঙ্গিদের হাত থেকে।


তিনি বলেন, যারা ইসলাম ধর্মের নাম করে এগুলো করছে, তারা ইসলাম ধর্মেরই ক্ষতি করছে। সন্ত্রাসীদের কোনো ধর্ম নেই, দেশ নেই। এরা মানবজাতির শত্রু।


তিনি আরো বলেন, এই সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে শিক্ষক, ছাত্র, যুব-তরুণ ও মসজিদের ইমামসহ সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। জঙ্গিরা যে ইসলাম ও মানুষের শত্রু, সে বিষয়ে অন্যকে সচেতন করতে হবে।


শ্রীলঙ্কা ও নিউজিল্যান্ডে নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় আগামী শুক্রবার মসজিদে দোয়া করার জন্য ইমামদের প্রতি আহবান জানান প্রধানমন্ত্রী।


তিনি বলেন, জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ মানবতার বিরুদ্ধে। এদের বিরুদ্ধে কথা বলতে হবে। মানুষ কোনো অপরাধ করলে, তার বিচার করবে আল্লাহ নিজে। তাহলে ধর্ম রক্ষার নাম করে তারা কীভাবে মানুষ খুন করে। আমি আশা করি, ইমামরা মসজিদে খুতবার আগে এ ব্যাপারে আলোচনা করবেন। ইসলাম যে শান্তির ধর্ম সে বিষয়ে কথা বলবেন। এখানে সন্ত্রাসবাদের কোনো স্থান নেই।


শেখ হাসিনা বলেন, রাজশাহীর উন্নয়নে আমরা হাত দিয়েছি। পুরো উত্তরবঙ্গেই আমরা উন্নয়ন করতে চাই। ইতোমধ্যে আমরা উত্তরবঙ্গের মঙ্গা কাটিয়েছি। এখন আমরা যে ১০০টি শিল্পাঞ্চল করছি সেগুলোর মধ্যে বেশকিছু থাকবে উত্তরাঞ্চলে।


তিনি বলেন, অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে বনলতা এক্সপ্রেসের উদ্বোধন ঘোষণা করছি। নতুন ট্রেন উদ্বোধন হওয়ায় রাজশাহীর মানুষ এখন ৫ ঘণ্টায় ঢাকা-রাজশাহী যাতায়াত করতে পারবেন।


উদ্বোধনের আগ মুহূর্তে ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আসন্ন ঈদ ও রাজশাহীর আমের কথা আমাদের মাথায় আছে। সেই চিন্তা করেই এ সময়ে ট্রেনটির উদ্বোধন করা হচ্ছে। এছাড়া রেলের যোগাযোগটা উন্নত করে দিতে চাই। এর সার্বিক উন্নয়নে ব্যবস্থা নিচ্ছি। আমরা চাই দেশটা এগিয়ে যাক। সবকিছুর সঙ্গে রেল সাশ্রয়ীও বটে।


ট্রেনটি রাজশাহী থেকে প্রতিদিন সকাল ৭টায় ছেড়ে ঢাকায় পৌঁছাবে বেলা ১১টায়। আবার একইদিন ট্রেনটি রাজশাহীর উদ্দেশে ঢাকা ছাড়বে দুপুর দেড়টায়। রাজশাহী রেলস্টেশনে পৌঁছাবে বিকেল সাড়ে পাঁচটায়।


১২টি কোচ নিয়ে চলবে ট্রেনটি। আসন সংখ্যা ৯২৮। এর মধ্যে এসি চেয়ার ১৬০টি, শোভন চেয়ার ৬৪৪, খাবার গাড়িতে আসন ১০৮ এবং পাওয়ার কারে ১৬টি। শুক্রবার ছাড়া চলবে প্রতিদিন।


ট্রেনের ভাড়া একই রটে চলমান ট্রেনের ভাড়ার তুলনায় নন-স্টপ সার্ভিস চার্জ ১০ শতাংশ বেশি হবে। এছাড়া এ ট্রেনে বাংলাদেশ রেলওয়ের প্রথম নিজস্ব ক্যাটারিং অ্যান্ড ট্যুরিজম সার্ভিসেস (বিআরসিটিএস) দ্বারা খাবার সরবরাহ করা হবে। খাবার মূল্য ১৫০ টাকাসহ শোভন চেয়ারের মূল্য ৪২৫ টাকা এবং এসি চেয়ারের মূল্য ৮৭৫ টাকা।


বিবার্তা/জাকিয়া


>>যাত্রার অপেক্ষায় বিরতিহীন ‘বনলতা এক্সপ্রেস’

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

বি-৮, ইউরেকা হোমস, ২/এফ/১, 

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com