প্রসিকিউটর তুরিনের বিরুদ্ধেও অপপ্রচার চালিয়েছিলেন ব্যারিস্টার মইনুল
প্রকাশ : ২৩ অক্টোবর ২০১৮, ১৭:০০
প্রসিকিউটর তুরিনের বিরুদ্ধেও অপপ্রচার চালিয়েছিলেন ব্যারিস্টার মইনুল
খলিলুর রহমান
প্রিন্ট অ-অ+

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন অনেক আগ থেকেই নারীবিদ্বেষী বলে অভিযোগ রয়েছে। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজের বিরুদ্ধেও বিভিন্ন সময় অপপ্রচার চালিয়েছেন তিনি, যদিও বিষয়টি তেমন প্রচার পায়নি। তবে সর্বশেষে একটি টেলিভিশন টক শোতে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে ‘চরিত্রহীন’ বলে কটূক্তির পর সমালোচনার ঝড় ওঠে। তাকে গ্রেফতারের দাবিতে রাজপথে শুরু হয় আন্দোলন। আর সেই আন্দোলনের মুখে গ্রেফতার করা হয়েছে তাকে।


জানা গেছে, চলতি বছরের ১৮ মে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের মালিকানাধীন ইংরেজি দৈনিক পত্রিকা ‘দ্য নিউ নেশনে’ আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার ড. তুরিন আফরোজের বিরুদ্ধে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়। পত্রিকাটির মালিক মইনুলের নির্দেশনায় প্রতিবেদনটি করেছিলেন সাংবাদিক সাগর বিশ্বাস। ওই প্রতিবেদনে তুরিন আফরোজের ব্যাপারে মিথ্যা তথ্য দেয়া হয়। এতে বলা হয়, বাংলাদেশে বিভিন্ন দুর্নীতি করে তিনি (তুরিন) নিরাপদে ইংল্যান্ডে বসে আছেন। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে সেই সময় তুরিন আফরোজ বাংলাদেশেই ছিলেন।


তুরিন আফরোজের পাসপোর্টেও তার প্রমাণ পাওয়া গেছে। তাঁর পাসপোর্ট থেকে জানা গেছে, তিনি সর্বশেষ ২০১৮ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি বিদেশে ছিলেন। তবে ২৭ ফেব্রুয়ারি তিনি দেশে ফিরেন। এরপর তিনি আর বিদেশে যাননি।



তুরিন আফরোজের সম্মানহানি করার জন্য এমন প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন অনেকেই।


এদিকে দ্যা নিউ নেশনের প্রতিবেদক সাগর বিশ্বাস পাকিস্তানের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখেন - এমন প্রমাণও মিলেছে। পাকিস্তানের তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সাফাত জালেল ও সেই দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব তেহিমা জনুজার সাথে ছবিও তুলেছেন সাগর বিশ্বাস। সেই ছবিগুলোও বিবার্তা২৪ডটনেটের কাছে এসেছে।


এছাড়াও অভিযোগ উঠেছে, দ্য নিউ নেশনের মালিক ও প্রকাশক মইনুল হোসেন ১/১১ এর কুশীলবদের একজন। শুধু তাই নয়, ওই সময় বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে জেলে নেয়ার পেছনেও তিনি কাজ করেছিলেন।


এ-ই হলেন ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন। সর্বশেষ গত ১৬ অক্টোবর মধ্যরাতে একাত্তর টেলিভিশনের নিয়মিত আয়োজন ''একাত্তর জার্নালে'' রাজনৈতিক সংবাদের বিশ্লেষণ চলছিল। আলোচনায় স্টুডিওর বাইরে থেকে যুক্ত হন ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন। আলোচনার ফাঁকে মাসুদা ভাট্টির প্রশ্ন ছিল, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি আলোচনা চলছে যে ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে জামায়াতের প্রতিনিধিত্ব করছেন। এর জবাবে ব্যারিস্টার মইনুল বলেন, ‘আপনার দুঃসাহসের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ দিচ্ছি। আপনি চরিত্রহীন বলে আমি মনে করতে চাই।’



তাঁর এ মন্তব্যে সমালোচনার ঝড় ওঠে। ওই ঘটনার প্রতিবাদে গত ২০ অক্টোবর বিকেলে রাজধানীর শাহবাগে গৌরব’৭১ নামে একটি সংগঠন মানবন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে, যাতে বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষ অংশ নেন। এ সময় ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে এক সপ্তাহের আল্টিমেটাম দিয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারা। পরবর্তীতে তার বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের করা হয়। কিন্তু সোমবার ওই মামলায় আগাম জামিন পেয়ে যান তিনি।


গত সোমবার বিকেলে গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে খোদ প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং নিন্দা জানান। এরপর পর রংপুরে একটি মামলায় ব্যারিস্টার মইনুলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি হয়। পরে রাত ১০টার দিকে জাসদ নেতা আ স ম আবদুর রবের উত্তরার বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়।


এদিকে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন সম্পর্কে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এবং তার উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। গৌরব’৭১ এর সাধারণ সম্পাদক এফ এম শাহীন বলেন, ব্যারিস্টার মইনুলের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। সে পুরো নারীসমাজকে অপমানিত করেছে। আর সে যে পাকিস্তানি চর, সেটা বহু আগেই প্রমাণিত। তার ১৯৭৫ এবং ১/১১ এর ভূমিকা জাতির মনে আছে। পাকিস্তানি ভাবধারা পোষণকারী কোনো দালাল এদেশে থাকতে পারে না। রাজাকারমুক্ত বাংলাদেশের জন্য আমরা লড়াই করেছি এবং করছি। এবার রাজাকারের দোসরমুক্ত বাংলাদেশের জন্য লড়াই করতে আমরা এই প্রজন্ম প্রস্তুত ।


ছাত্রমৈত্রীর সাবেক সভাপতি বাপ্পাদিত্য বসু বলেন, মইনুলকে পাকিস্তানে পাঠিয়ে দেয়া হোক। এই দেশে বসে ''পাকিস্তান ভালো ছিল'' - এ কথা বলার সাহস সে কিভাবে পায়? গণমাধ্যমে একজন নারীকে নিয়ে যে উক্তি সে করেছে তার শাস্তি পেতেই হবে ।


বিবার্তা/খলিল/মৌসুমী/হুমায়ুন

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com