ঐক্যজোট হয়েছে নির্বাচন করার লক্ষ্যেই: তোফায়েল
প্রকাশ : ২২ অক্টোবর ২০১৮, ১৫:৪৭
ঐক্যজোট হয়েছে নির্বাচন করার লক্ষ্যেই: তোফায়েল
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, কোনো দলকে বাদ দিয়ে নির্বাচন চাই না। তবে কোনো দল যদি নির্বাচনে অংশ নিতে না চায় এটা তাদের নিজস্ব সিদ্ধান্ত। আর কোনো দল যদি নির্বাচনে অংশ না নেয় তবে নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে না, এটা বলা যাবে না।


তিনি বলেন, ক্ষমতাসীন সরাকরের অধীনেই নির্বাচন হবে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই সে সময় নির্বাচনকালীন সরকার রুটিন ওয়ার্ক পালন করবে।


বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্সিয়া স্টিফেনসন ব্লুম বার্নিকাট সোমবার বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের সঙ্গে বিদায়ী সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎ শেষে সচিবালয়ের সম্মেলন কক্ষে যৌথ ব্রিফে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।


তোফায়েল বলেন, নির্বাচনে সংবিধানের বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ না থাকায়, সংবিধানের ভেতরে থেকেই অবাধ শান্তিপূর্ণ নির্বাচন পরিচালনা করবে নির্বাচন কমিশন। এ বিষয়টিই রাষ্ট্রদূতকে জানানো হয়েছে।


তিনি বলেন, দেশে সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে। নির্বাচন কমিশন সে নির্বাচন অনুষ্ঠান করবে। তাতে সবাই অংশ নেবে বলেই আমরা মনে করি। এর লক্ষ্মণও দেখা যাচ্ছে। যে ঐক্যজোট তৈরি হয়েছে, তা নির্বাচনের লক্ষ্যেই হয়েছে। বিএনপি এই জোটে অংশ নিয়েছে। ড. কামাল হোসেনকে তারা নেতা হিসেবে মেনে নিয়েছে। সিলেটে সমাবেশের অনুমতি তারা পেয়েছে। এরপর তারা চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও খুলনায় যাবে।


বিএনপির প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি আরো বলেন, বিএনপি বুঝতে পেরেছে ২০১৪ সালের নির্বাচনে না গিয়ে ভুল করেছে। ২০১৫ সালে জ্বালাও-পোড়াও করাও যে ভুল-সেটা বুঝেই এখন সভা-সমাবেশ করছে।


বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বার্নিকাটের সঙ্গে বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। তাকে জানিয়েছি, আমরা চাই বাংলাদেশে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হোক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার সেই লক্ষ্যেই কাজ করছে।


ড. কামাল হোসেনের জোট সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে যে জোট হয়েছে তা অবশ্যই একটি রাজনৈতিক জোট তবে জাতীয় জোট নয়। তাদের যে দাবি তার একটিও গ্রহণযোগ্য নয়।


তিনি আরো বলেন, সংসদ বহাল রেখেই নির্বাচন হবে। সংসদ ভেঙে নির্বাচন হতে হলে, একটি মধ্যবর্তী নির্বাচন করতে হবে। আমরা তো মধ্যবর্তী নির্বাচন করছি না। তাই সংসদ ভাঙার প্রশ্নই উঠে না।


এদিকে বার্নিকাট বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র মনে করে, বাংলাদেশে আগামী নির্বাচন অবশ্যই সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও সবার কাছে গ্রহণযোগ্য হবে। সে নির্বাচনটি অংশগ্রহণমূলক হবে বলেও যুক্তরাষ্ট্র মনে করে। আমরা চাই, বাংলাদেশে এমন নির্বাচনই হোক।


তিনি আরো বলেন, সব দল নির্বাচনে না আসলে জনগণ ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে না। এজন্য ভোটারদেরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে। কারণ মানুষের প্রয়োজন একটি স্থিতিশীল দেশ। এছাড়া বিরোধী দলগুলোকে নির্বাচনে আনাটাও জরুরি। কারণ নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ না থাকলে সেটা অংশগ্রহণমূলক হয় না।


সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপিসহ অন্যান্য বিরোধী দলের কারও নামে কোনও রাজনৈতিক মামলা হচ্ছে না। মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সঙ্গেও এ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তিনি আটক-গ্রেফতার নিয়ে কথা বলেছেন। আমি বলেছি, সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ছাড়া কারো বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।


এ বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বার্নিকাট বলেন, আমি সব দলের সঙ্গে বৈঠক করেছি। তাদের বলেছি, সহিংসতার পথে না গিয়ে শান্তির পথে থাকতে এবং নির্বাচনে অংশ নিতে।


যৌথ সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব সুভাশিষ বসুসহ মন্ত্রণালয় ও দূতাবাসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com