ঘরমুখো মানুষের সঙ্গী ভোগান্তির বৃষ্টি
প্রকাশ : ১৩ জুন ২০১৮, ১৮:৩৮
ঘরমুখো মানুষের সঙ্গী ভোগান্তির বৃষ্টি
খলিলুর রহমান
প্রিন্ট অ-অ+

ঈদ-উল ফিতরের আর দুই দিন বাকি। তাই ইট-পাথরের শহর ছেড়ে লাখো মানুষ গ্রামের পথে যাত্রা শুরু করেছেন। কিন্তু এবারের ঈদে ঘরমুখো মানুষের সঙ্গী হয়েছে ভোগান্তির বৃষ্টি। এ অবস্থায় এবার অনেকেই রাজধানী ঢাকায় ঈদ করছেন।


বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের সাথে কথা বলে এমন তথ্য জানা গেছে।


বুধবার সকালে রাজন মিয়া নামের এক ব্যক্তি বিবার্তাকে জানান, তার গ্রামের বাড়ির বাড়ি সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলায়। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেন। পরিবারের সঙ্গে ঈদ করতে গত সোমবার রাতে বাসযোগে তিনি ছাতক গেলেও সেখানে গিয়ে বৃষ্টির কবলে পড়তে হয়েছে তাকে।


রাজন মিয়া জানান, বাড়ি যাওয়ার আগ থেকে সিলেটে বৃষ্টি হচ্ছে। গতকাল সারাদিন থেমে থেমে বৃষ্টি হয়েছে। আজও বৃষ্টি হচ্ছে। তাই বাড়িতে গেলেও ঘর থেকে বের হতে পারছেন না তিনি।


তিনি আরো জানান, প্রতিবার ঢাকা থেকে এসে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে মার্কেটে যান, একসাথে ঈদের কেনাকাটা করেন। কিন্তু এবার বৃষ্টির কারণে তা সম্ভব হচ্ছে না।



রাজধানীর জিগাতলার বাসিন্দা শারমিন আক্তার জানান, তার গ্রামের বাড়ি বরিশালে। প্রতিবার তিনি লঞ্চে বাড়ি যান। কিন্তু এবার বৃষ্টির কারণে তিনি লঞ্চে না গিয়ে বাসে বাড়ি গেছেন।


বুধবার দুপুরে তিনি বিবার্তাকে জানান যাওয়ার আগেই বৃষ্টি শুরু হয়। তাই বাসস্ট্যান্ডে যেতে অনেক কষ্ট কয়েছে।


শুধু রাজন মিয়া ও শারমিন আক্তারই নন, এমন ভোগান্তির শিকার ঘরমুখো লাখো মানুষ। এছাড়াও বৃষ্টির কারণে এবার অনেকেই রাজধানীতে ঈদ করছেন। এমনই একজন তুহিন মিয়া। তিনি পশ্চিম তেজতুরী বাজারে একটি ফ্ল্যাট বাড়ির ম্যানেজার।


বুধবার দুপুরে তিনি বিবার্তাকে জানান, প্রতিবার ঈদ এলে ফ্ল্যাট প্রায় ফাঁকা হয়ে যায়। কিন্তু এবার এখনো ফ্ল্যাটে লোকজন রয়েছে।


তিনি জানান, ইতোমধ্যে কয়েকটি পরিবারে বাড়ি গলেও বেশিরভাগ পরিবার ঢাকায় ঈদ করবেন। বৃষ্টির কারণে অনেকেই বাড়ি যাওয়া থেকে বিরত রয়েছেন বলেও জানান তুহিন।


এদিকে আবহাওয়া অধিদফতরের পূর্বাভাস বলছে, মৌসুমি নিম্নচাপের প্রভাবে আগামী ১৮ ঘন্টায় বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও দমকা ও ঝড়ো হাওয়াসহ ভারী বর্ষণ হতে পারে। এছাড়াও অতি ভারী বর্ষণের ফলে চট্টগ্রামের পাহাড়ি অঞ্চলে কোথাও কোথা ভূমিধ্বসের আশঙ্কাও রয়েছে।


এছাড়া ভারী বর্ষণের কারণে সিলেটে ছোট ছোট নদীগুলোর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়াও কোথাও কোথাও নদীভাঙ্গনের খবরও পাওয়া গেছে।



মৌলভীবাজার জেলায় দু’দিনের টানা বৃষ্টি এবং ভারত থেকে নেমে আসা উজানের পানিতে দ্রুত বাড়ছে মনু ও ধলাই নদীর পানি। নদীর প্রতিরক্ষাবাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে আউশ ফসল ও সবজি ক্ষেতসহ ৫ ইউনিয়নের অন্তত ৩০টি গ্রাম। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে হাজারো মানুষ।


বিরূপ আবহাওয়ার কারণে শহরবাসী অনেকে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও এবার ঈদে গ্রামমুখো হচ্ছেন না। আর যারা বৈরী আবহাওয়াকে উপেক্ষা করে যাত্রা করেছেন, তাদের পোহাতে হচ্ছে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ।


বিবার্তা/খলিল/হুমায়ুন/কাফী

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com