নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশের হাতছানি; উৎসবের প্রস্তুতি
প্রকাশ : ০৮ মার্চ ২০১৮, ১৯:১৭
নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশের হাতছানি; উৎসবের প্রস্তুতি
মৌসুমী ইসলাম
প্রিন্ট অ-অ+

‘নিম্ন-আয়’ থেকে ‘নিম্ন-মধ্য আয়ের’ পথে চলেছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি অন্যতম অর্জন; মাইলফলকও বলা যায়। কারণ, আগামী ১২-১৬ মার্চ জাতিসংঘের সিডিপির ত্রিবার্ষিক সভায় বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের জন্য প্রথমবারের মতো সুপারিশ লাভ করবে। তার পরবর্তী তিন বছর পর্যবেক্ষণ করা হবে কার্যক্রম।


উত্তরণের এই পর্বে বর্ণিল আয়োজনের প্রস্তুতি নিয়েছে সরকার।


২০ মার্চ থেকে সারাদেশে শুরু হবে সপ্তাহব্যাপী উদযাপন। দেশ গঠনে অসামান্য অবদানের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা প্রদানের প্রস্তুতিনিয়েছে ক্যাবিনেট ডিভিশন।


অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের তত্ত্বাবধানে আগামী ২২ মার্চ সকাল ১০টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এলডিসি স্ট্যাটাস থেকে প্রাথমিক পর্যায়ে উত্তরণ আনুষ্ঠানিকভাবে উদযাপিত হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এতে প্রধান অতিথি থাকবেন। এছাড়া সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ, উন্নয়ন সহযোগী, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, এনজিও, সিভিল সোসাইটি, দেশি-বিদেশি বরেণ্য ব্যক্তিকে অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।


২৩ মার্চ সকাল ১০টায় হোটেল রেডিসন ব্লুতে একটি আন্তর্জাতিক সেমিনারের আয়োজন করা হবে।


বাংলাদেশ ১৯৭৫ সালে জাতিসংঘের নিম্ন-আয় শ্রেণিতে অর্ন্তভূক্ত হয়। প্রতিষ্ঠাকালে ওই শ্রেণির সদস্য সংখ্যা ২৫ থাকলেও বর্তমান সংখ্যা ৪৭। অদ্যাবধি পাঁচটি দেশ বাতসোয়ানা (১৯৯৪), কেপ ভার্দ (২০০৭), মালদ্বীপ (২০১১), সামোয়া (২০১৪) ও ইকুয়েটোরিয়াল গিনি (২০১৭) স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) কাতার থেকে উত্তরণের সক্ষমতা লাভ করেছে।


২০১৮ সালে সুপারিশ লাভের সম্ভাব্য তিনটি দেশের অন্যতম হলো বাংলাদেশ। বাংলাদেশেই এখন পর্যন্ত একমাত্র দেশ যে তিনটি নির্ণায়ক একসঙ্গে পূরণ করে উত্তরণের যোগ্যতা অর্জন করতে যাচ্ছে।


উল্লেখ্য, তিনটি নির্ণায়কের যে কোনো দু’টির উত্তরণ-মান অর্জন করলে, কিংবা মাথাপিছু জিএনআই উত্তরণ-মানের দ্বিগুণ হলেই এই স্বীকৃতি পাওয়া যায়। তিনটি নির্ণায়নের মধ্যে মাথাপিছু আয় উত্তরণের মান হতে হবে ১,২৩০ ডলার বা তার বেশি। জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসির (সিডিপি) পর্যবেক্ষণে এখন মাথাপিছু আয় ১,২৭২ ডলার। মানবসম্পদ উন্নয়ন সূচকে দরকার ৬৬ বা তার বেশি, কিন্তু সিডিপির পর্যবেক্ষণ বলছে এখন বাংলাদেশের এই সূচক ৭২ দশমিক ২ শতাংশ। আর অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা সূচকে উত্তরণের মান ৩২ দরকার হলেও বাংলাদেশ তা অর্জন করেছে ২৫।


এলডিসি থেকে বের হতে চায় না নেপাল


সক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও স্বল্পোন্নত দেশের কাতার থেকে বের হতে চায় না নেপাল। এলডিসি দেশের তকমা থেকে উত্তরণের ক্ষেত্রে অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা এবং মানবসম্পদ উন্নয়নে ভালো করলেও মাথাপিছু আয়ের দিক থেকে পিছিয়ে রয়েছে নেপাল। তাই জাতিসংঘে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছে, আপাতত স্বল্পোন্নত দেশের কাতার থেকে বের হতে চায় না তারা। কারণ হিসেবে তাদের ব্যাখ্যা হচ্ছে, ভয়ংকর ভূমিকম্পের কারণে যে ক্ষতি সাধন হয়েছে তা কাটিয়ে উঠতে সময় দরকার।


কি সুবিধা হারাবে বাংলাদেশ


এলডিসির কাতার থেকে বেরিয়ে গেলে ইইউ বাজারে শুল্কমুক্ত সুবিধা হারাবে বাংলাদেশ। সেক্ষেত্রে জিএসপি প্লাস সুবিধা থাকলেও তা অর্জনে যে ধরণের কাঠামোগত সংস্কার দরকার তা করতে সময়ের প্রয়োজন। তাই রফতানি বাণিজ্যে নেতিবাচক প্রভাব পড়ার আশংকা রয়েছে। এছাড়া স্বল্প সুদে ঋণ ও বৈদেশিক সহায়তা পাওয়া কঠিন হবে। বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার সুবিধাগুলোও উঠে যাবে। এখন এলডিসিভূক্ত দেশগুলো কৃষিসহ নানা ইস্যুতে বাণিজ্য ছাড় পায়।


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক ড. সেলিম রায়হান বলেন, অর্থনৈতিকভাবে অনেক দূর এগিয়েছে বাংলাদেশ। তাই এলডিসি থেকে উত্তরণ করার ক্ষেত্রে পদক্ষেপ নেয়া যৌক্তিক। কিন্তু পরবর্তি ঝুঁকি মোকাবেলার জন্য শক্ত পদক্ষেপ নিতে হবে।


বিবার্তা/মৌসুমী/হুমায়ুন

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com