অযত্ন-অবহেলায় বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি
প্রকাশ : ২৯ আগস্ট ২০১৯, ১১:০১
অযত্ন-অবহেলায় বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি
আকারাম হোসেন
প্রিন্ট অ-অ+

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবিযুক্ত ব্যানার কাটা ও ছেড়া অবস্থায় রয়েছে। তুচ্ছতাচ্ছিল্য ও অবহেলায় পড়ে আছে এসব ছবি। কোনো দিবস সামনে রেখে তৈরি এ ব্যানারগুলো টাঙানোর পরে আর কেউ খোঁজ রাখেনি। ফলে দিনের পর দিন অবহেলা ও অযত্নে থেকে যাচ্ছে ছবিগুলো।


সরেজমিন দেখা যায়, কোথাও ভ্যানগাড়িতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবিযুক্ত ব্যানার পেতে লেবুর সরবত বিক্রি চলছে। কোথাও আবার বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবির উপর দিয়ে স্থানীয় নেতারা তাদের ছবি টাঙেয়ে রেখেছেন। ফলে আড়ালে পড়ে আছে বঙ্গবন্ধুর ছবি। দেখে মনে হবে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর থেকে এসব স্থানীয় নেতারাই বড় মাপের নেতা। এ কর্মকাণ্ড দেখে ক্ষুব্ধ মুজিবপ্রেমীরা।


১৫ আগস্ট শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গেটে একটা ব্যানার লাগানো হয়। ব্যানারের নিচে হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়ার নাম উল্লেখ আছে। কিছু দিন যেতে না যেতেই এ ব্যানারের মাঝ বরাবর ছিড়ে যায়। এখনো ব্যানারটি টাঙানো রয়েছে।



এ হাসপাতালের গেট দিয়ে একটু গেলেই বাম পাশে আরেকটি ব্যানার চোখে পড়ে। ২৬ জুলাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পরিষদের সপ্তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ব্যানারটি করে এ সংগঠন। এ ব্যানারটিও মাঝ বরাবর ছিড়ে গেছে। গেট দিয়ে প্রবেশের পরই চোখে পড়ে। এ হাসপাতালে আসা অধিকাংশ মানুষ দেখছেন এটি। একবার ব্যানার টাঙাতে পারলেই কাজ শেষ। পরে আর কেউ খোঁজ রাখছেন না।


মালিবাগ বাগান বাড়ি আবাসিক এলাকার মুখে এমন একটি ব্যানার টাঙানো হয়েছে। ব্যানারে রেলগেট ইউনিটের নাম রয়েছে। যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ভোলা তিন আসনের সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের বাবা মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে এ ব্যানারটি করা হয়। মালিবাগ হয়ে রামপুরার দিকে যেতে সহজেই সবার চোখে পড়ে এ ব্যানারটি। ব্যানারটি টাঙানো হয়েছে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবিযুক্ত আরেটি ব্যানারের সামনে। ফলে ঢাকা পড়েছে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি।



এক পথচারীর সাথে কথা হলে তিনি বিবার্তাকে বলেন, বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবিযুক্ত যে ব্যানারটি রয়েছে, তার পাশে বা নিচে এ ব্যানারটি টাঙানো যেত। কিন্তু সেটা না করে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি আড়াল করে টাঙিয়েছে। এটা মোটেও ঠিক হয়নি।


এ ব্যাপারে মুজিবপ্রেমী বাপ্পি আহমেদ বিবার্তাকে বলেন, জাতির পিতাকে অবশই সম্মান করা উচিত। তার ছবি যেখানেই থাকুক না কেন নজরদারিতে রাখা দরকার। অনেক সময় তাদের ছবি কাটাছেড়া করা হয়। অযত্নে-অবহেলায় থাকে। ভ্যানগাড়ির উপর বিছিয়ে লেবুর সরবত বিক্রি করা হয়। কিন্তু প্রশাসন দেখেও দেখে না। যে জাতির পিতা দেশের জন্য সংগ্রাম করেছেন, দেশ স্বাধীন করেছেন আজ তাকেই অসম্মান করা হচ্ছে। তাকে অপমান করা হচ্ছে। এটি খুবই কষ্টের।


দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, কোথাও কোথাও চোখে পড়ে জাতির পিতার উপর রাজনৈতিক নেতাদের পোস্টার টাঙানো। দেখে মনে হয় পিতার চেয়ে সন্তান বড় হয়ে গেছে। এখন যারা রাজনীতি করেন, তারা মুখে মুজিব আদর্শের কথা বলেন আর অন্তরে থাকে নিজ স্বার্থ।


বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবিযুক্ত ব্যানার যাতে অবহেলা-অযত্নে না থাকে তার জন্য একটি চমৎকার সমাধানও দিয়েছেন তিনি।



তিনি বিবার্তাকে বলেন, দেশের যেখানে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি বা বিলবোর্ড টাঙানো হবে, সেখানে সিসি ক্যামেরা প্রতিস্থাপন করা হোক। সিসি ক্যামেরা থাকলে দুটি কাজ হবে। একটি বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবির নজরদারি করা যাবে। অন্যদিকে, সাধারণ মানুষ রাস্তায় চলাচলে আস্থা পাবে। রাস্তায় কোনো ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড হলে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে প্রশাসন দ্রুত ব্যবস্থা নিতে পারবে।


এ সম্পর্কে ঢাকা উত্তর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম রহমত উল্লাহ বিবার্তাকে বলেন, আমরা দিক-নির্দেশনা দিয়েছি। কোনোভাবেই বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ছেড়া-ফাটা-কাটা থাকবে না। এজাড়াও তাদের ছবি কোনোভাবেই বিকৃতি করা যাবে না। এ বিষয়ে আমার উত্তর ঢাকায় আমি মনিটরিং করব।


বিবার্তা/আকরাম/উজ্জ্বল/রবি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com