এসেছি হাজার বারণে শুধু তোমারি জন্যে …
প্রকাশ : ১৪ এপ্রিল ২০১৯, ০৯:৫৩
এসেছি হাজার বারণে শুধু তোমারি জন্যে …
মডেল : আমির পারভেজ, জাকিয়া ইমি। ছবি : তাহমিদুর রহমান জীম। ড্রেস ডিজাইন : জাকিয়া ইমি। মেকআপ : বিউটি জোন।
শাহনাজ শারমিন
প্রিন্ট অ-অ+

হতে পারি রোদ্দুর, হতে পারি বৃষ্টি, হতে পারি রাস্তা তোমারি জন্যে … হতে পারি গল্প তুমি কাছে টানলে হতে পারি জানালা এই হাওয়া ওই তোমার জন্যে … শুধু তুমি চাও যদি সাজাবো আবার নদী … এসেছি হাজার বারণে শুধু তোমারি জন্যে … কয়েক বছরের ভালোবাসা যেখানে পায়নি তার প্রাপ্তি সেখানে কিছুদিনের পরিচয় করে নিয়েছে একে-অন্যের মনে বিশাল জায়গা।


শুধুমাত্র মানসিক বিষয়ও নয়। এটা একধরনের জৈব-মানসিক প্রক্রিয়া। যদিও বিজ্ঞানীরা গবেষণায় প্রাণ-রসায়নের নানা বিক্রিয়াকেই ভালোবাসা হিসেবে প্রমাণ করেছেন, তবু ভালোবাসার স্থান মানুষের জৈবিক স্তরের উপরে।


ভালোবাসা কোনো দলিলে লেখা চুক্তিপত্র নয় যে, আপনি কাউকে তার মাধ্যমে বেঁধে রাখবেন। তবে ভালোবাসা বেঁধে রাখার মন্ত্র আছে। আর সেই মন্ত্র হচ্ছে আপনার বিশ্বাস আর আপনার সুপ্ত ভালোবাসা। পৃথিবীতে ভালোবাসার চেয়ে শক্তিশালী কিছু যেমন নেই তেমনি এর মতো ধ্বংস করার ক্ষমতাও কারো নেই।


একমাত্র ভালোবাসা পারে আপনার মনের মাঝে ফুল ফোটাতে আর তাকে যত্ন করে গাছে রূপান্তর করতে। তবে এর গোড়ায় জল হিসেবে আপনার ভালোবাসা অতি আবশ্যক। ভালোবাসা নিয়ে হাজার মানুষ যুগের পর যুগ ধরে নানা উক্তি আর ব্যাখ্যা দিয়ে গেছে। আর তা ভেঙে আবার নতুন করে নানা মতবাদ সৃষ্টিও হয়েছে। আবার ভালোবাসার মাঝে এসেছে অনেক কঠিন বাঁধা আর বিপত্তি।


ভালোবাসার ধরনটাই এমন। কখনো ভালো আবার কখনো কালো। ভালোবাসায় জীবন দেওয়া এবং নেওয়া দুটি বিষয়ই আছে, ঠিক একটি কয়েনের দুটি পিঠের মতো। ভালোবাসায় আছে নানা পরীক্ষা। এই পরীক্ষায় আবার যুক্ত হয় বিশাল সময়ের দূরত্ব। কখনো কাউকে কাছে পাবার আবার একেবারে হারিয়ে যাওয়ার জন্য। তবে যে সকালে পথ ভুলে বিকেলে ফিরে আসে তাকে সাদরে গ্রহণ করাই যায়।



আলাদা হওয়ার কারণ


কখনো কখনো কিছু ছোট ভুলের কারণে দুটি মানুষের মাঝে থাকা ভালোবাসার মৃত্যু হয়। হারিয়ে যায় তাদের ভালোবাসা। ঝগড়া কিংবা মনোমালিন্য সম্পর্কের আরেক অংশ। এটি ছাড়া আপনার সম্পর্ক মিষ্টি তো হবেই না আর একে অপরকে জানা হবে না। তাই সম্পর্ক ভেঙে গেলেও আবার ভাবুন। কেন আপনারা আলাদা। তার প্রতি থাকা তীব্র টান কি আপনাকে তার কাছে টেনে নিচ্ছে! তাহলে আবার ভেবে ভালোবাসাকে বাঁচিয়ে তুলুন।


কতদিন ধরে আলাদা


ভালোবাসার ক্ষেত্রে দূরত্বে থাকা যেমন কঠিন তার থেকেও বড় একটি চ্যালেঞ্জিং বিষয়। আর এই ভালোবাসার মাঝে যখন সম্পর্কের টানাপোড়েন চলে তখন খুব সহজে বেছে নেওয়া হয় আলাদা হয়ে যাওয়া। যদি আপনি তাকে সত্যি ভালোবেসে থাকেন তবে বেশি দিন মনে রাগ পুষে না রেখে সামনাসামনি কথা বলুন। যে ছোট ভুলটি সম্পর্কে দূরত্বের দিকে নিচ্ছে তাকেই সরিয়ে ফেলুন জীবন থেকে।


যোগাযোগ


একে অপরের সঙ্গে যখন ঝগড়া করেন তখন কার দোষ বেশি থাকতো আর কিভাবে তা নিজেরা সামলে নিতেন তা ভেবে দেখুন। যদি সম্পর্কে দীর্ঘদিন যোগাযোগ না থাকা সত্ত্বেও একইভাবে আপনারা একে অন্যকে সামাল দিতে পারেন তা হলে ধরে নিন আপনার পুরোনো ভালোবাসার কাছে আসলেই ফিরে যাওয়া উচিত।


আলাদা হওয়ার পরের আচরণ


আপনি যদি দেখেন, আপনার চলে যাওয়ার আপনার ভালোবাসার মানুষটি খুশি আছে তবে তো সব সেখানেই শেষ। কিন্তু যদি তার ঠিক বিপরীত হয়! তাহলে তাকে একটু লক্ষ করুন। আপনাকে নিয়ে এখনো তার মনে কি মতবাদ। আপনাকে সে এখনো কি আগের মতোই ভালোবাসে! তবে তার কাছে আপনি ফিরে যান।
সরিয়ে নিন ব্যস্ততাকে


ব্যস্ততাকে সরিয়ে রেখে শহর ছেড়ে একটু দূরে ঘুরে আসুন। এটা শুধু সম্পর্ককে সুন্দর করবে না বরং মনের প্রশান্তি বাড়াবে। একঘেয়েমি আর দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি দিবে।


ভালোবাসার ক্ষেত্রেও ছোট ছোট এমন বিষয় নিয়ে অনেকে আলাদা হয়ে যায়। নিজেদের ইচ্ছা থাকলেও নিজেদের কারণেই কাছে আসা আর হয়ে ওঠে যা। সেখানে দুটি মানুষ বেঁচে থাকলেও মৃত্যু হয় ভালোবাসার। তবে দুটি চোখ যদি শুধু আপনার পথের দিকে চেয়ে বসে থাকে তবে তাকে জীবন থেকে সরিয়ে দেবেন না। তাকে কাছে টেনে নিন। কারণ মান অভিমান ভালোবাসার একটি অংশ।



এদিকে, এসেছে বৈশাখ। সময়ের পরিক্রমায় আবার এসেছে বাংলা নববর্ষ। এর মধ্য দিয়ে মহাকালের গর্ভে হারিয়ে গেল হাসি-কান্না, আনন্দ-বেদনা, চাওয়া-পাওয়া ও না-পাওয়ার তৃপ্তি ও অতৃপ্তিমাখা আরো একটি বছর। বিদায়ী বছরে কী চেয়েছি আর কী পেয়েছি কিংবা পাইনি তার হিসেব মেলাতে গেলে একদিকে মন যেমন ভরে ওঠে আনন্দে, অন্যদিকে না-পাওয়ার কিছু বেদনায় ভারাক্রান্তও হয়ে ওঠে।


বৈশাখের দিনে বৃষ্টির বাগড়াম। এই দিনে একটু নাহয় রোমান্স-ই করলেন। মনে করুন সঙ্গীকে বললেন এভাবেই আজ না হয় ছাতাটা ব্যাগেই রাখলে! ঠান্ডা লেগে যাবার তোয়াক্কা নাইবা করলে।


প্রকৃতিতে লাস্যময়তার সঙ্গে মানব মনেও প্রেমের জোয়ার আনে বষার। সেই জোয়ারে ভাসতে ভাসতেই কবিরা তাদের কবিতায় প্রকাশ করেন প্রেমের ব্যাকুলতা। শুধু প্রেম-বিরহে নয় কবিদের কবিতায় বষার এসেছে কখনো প্রকৃতির সৌন্দর্য্যের বণর্নায় কখনো বা শৈশব- কৈশোরের স্মৃতিময় নস্টালজিয়ায়।


ভালোবাসার সান্নিধ্য কে না পেতে চায়? মন থেকে সবারই নিশ্চয়ই চাওয়া থাকে—বৃষ্টির দিনটিতে ভালোবাসার বৃষ্টি হোক। এতে করে সম্পর্কটা হয়ে উঠবে আরও মধুময়।


বিবার্তা/শারমিন/শাহনাজ

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com