নতুন বছরে ঘর সাজান মনের মতো করে
প্রকাশ : ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৬:১৪
নতুন বছরে ঘর সাজান মনের মতো করে
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

কয়েকদিন পরেই নতুন বছরে পা দিবে সারা বিশ্ব। জীবন থেকে হারিয়ে যাবে আরো একটি বছর। নতুন বছরকে বরণ করে নিতে আপনার পরিকল্পনার সীমা নেই। তাহলে সেই পরিকল্পনা ঘরের জন্য থাকবে না কেনো?এই নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে ঘরকে নতুন করে সাজিয়ে নিতে পারেন। তবে মনে হতে পারে অনেক খরচ করতে হবে নাকি?... না আসলে তা নয়..। অনেকে মনে করেন, ঘর সাজানো মানেই অনেক খরচ। ধারণাটি সঠিক নয়। স্বল্প খরচেই আপনার ঘর রাঙিয়ে তুলতে পারেন। এ জন্য প্রয়োজন সৃজনশীলতা।


একটু বুদ্ধি খাটিয়ে কাজ করলে আপনার সাদামাটা ঘরটিও হয়ে উঠবে দৃষ্টিনন্দন। একই সঙ্গে ফুটে উঠবে আপনার সৃজনশীলতা ও রুচির পরিচয়।


ঘর ছোট হলে হালকা রঙে দেয়াল রাঙান


আপনার বাসার কোন কামরা বিশেষত বসার ঘর ছোট হলে ভুলেও দেওয়ালে গাঢ় রঙ করবেননা। যতটা সম্ভব হালকা শেডের রঙ বাছাই করুন। পর্দার ক্ষেত্রেও হালকা রঙ বাছুন আর চেষ্টা করুন সঠিক জায়গায় আয়না ঝোলাতে। এতে ঘরের দমবন্ধ ভাব দূর হবে।


ঘর সাজান ডেকোরেটিভ মিররে


আয়না যেহেতু ঘরকে বড় দেখাতে সাহায্য করে তাই ঘর ছোট হোক কী বড় সেখানে যদি প্রাকৃতিকআলো না আসে তাহলে আয়না রাখলে আপনার ঘরকে খোলামেলা দেখাবে। জানালার বিপরীতে আয়না ঝোলালে তা ঘরে বাইরের আলোর প্রতিফলন ঘটিয়ে ঘরকে বড় দেখাবে। তাছাড়া সুন্দর একটি আয়না আপনার ঘরে একটা শৈল্পিক ব্যপার এনে দেবে।


আসবাব ঢাকতে ব্যবহার করুণ কাভার


আপনার বাসার সব ফার্নিচারে কাভার ব্যবহার করতে আপনার ভালো লাগেনা। কিন্তু ভেবে দেখুন এই ধুলোর শহরে বাসার আসবাবপত্র পরিষ্কার রাখা কতটা মুশকিল। তিনবেলা মুছেও যেন কুলায় না। আবার যাদের বাসায় বাচ্চা আছে বা লোকের আনাগোনা বেশি তাদের বাসাও তাড়াতাড়ি নোংরা হয়। এইক্ষেত্রে আসবাবের কাভারের ব্যবহার হতে পারে দারুণ সমাধান। নান্দনিক একটা কাভার আপনার ঘরের সৌন্দর্যেও আলাদা মাত্রা যোগ করবে। সবচাইতে বড় সুবিধা হোল, এগুলো ধোয়াও যায় সুবিধামত। সাদা রঙের কাভারের ব্যবহারে আপনার সাধের সোফাসেটটি দেখতে সুন্দর লাগলেও যাদের আপনি চাইলে অন্য কোন রঙও বেছে নিতে পারেন। তবে খুব বেশি গাঢ় রঙ হলে আপনার বাসার গুমোট ভাব বাড়িয়ে দেবে।


বাঁশের চুপড়ি


বাঁশ বা বেতের চুপড়ি বা বাস্কেটগুলোর দাম একদমই বেশি না তবে খুবই কার্যকরী। এগুলোতে বইখাতা, ম্যাগাজিন, খেলনা, টাওয়েল, কম্বল ইত্যাদি রাখতে পারেন। ঘর গোছানো দেখানোর পাশাপাশি ঘরের সৌন্দর্যে নান্দনিকতা যোগ করবে এগুলো। রান্নাঘরেও চাইলে ফল আর সবজি রাখতে প্লাস্টিকের পরিবর্তে এগুলো ব্যবহার করতে পারেন, দেখতে সুন্দর লাগবে।


হাতের কাছে যা আছে তাই দিয়ে ঘর সাজান


নতুন বছরে নতুন ডেকোরেটিভ আইটেম কিনতে দোকানে না ছুটে ঘরে যা আছে তাই দিয়েই নতুন করে ঘর সাজান। খুঁজলে হয়ত কোন বাকসে বা ঝুড়িতে অব্যবহার্য কোন জিনিস পেয়েও যেতে পারেন ঘর সাজাতে। কয়েকটা জিনিসের অদলবদলই দেখবেন ঘরের চেহারা বদলে দিয়েছে। যেমন ফটোগ্রাফ বদলে এক ঘরেরটা আরেকঘরে রাখতে পারেন। অব্যবহৃত কাপ-পিরিচ, ট্রে, প্লেট ইত্যাদি দিয়ে দেওয়াল আর্ট করতে পারেন। বাচ্চাদের আঁকা ছবি ফ্রেমে বাঁধিয়ে দেওয়ালে ঝোলাতে পারেন।


একটু নজর দিলেই দেখবেন আপনার বুদ্ধিমত্তা আর শিল্পী মনের সহযোগে আপনার ঘরকে একটা সম্পূর্ণ নতুন চেহারা দিতে পেরেছেন।


রান্নাঘরে বাড়ান ঝোলানোর ব্যবস্থা


শহুরে ফ্ল্যাটবাড়িতে আমাদের অনেকেরই রান্নাঘরে জায়গার বড় সংকট। এক্ষেত্রে ঝোলানোর ব্যবস্থা করতে পারলে আপনার রান্নাঘরে জায়গার সমস্যার সমাধান হয় অনেকটাই। সাথে সৌন্দর্যও বাড়ে।


গো গ্রীন


বাসায় যত পারুন গাছের পরিমাণ বাড়ান। ইটকাঠের এই শহরে অক্সিজেন জোগানোর পাশাপাশি ঘরে গাছ রাখলে তা আপনার বাসার সৌন্দর্য বাড়িয়ে তুলবে বহুগুণ। ঘরে, বারান্দায়, ছাদে, বাথরুমে সম্ভাব্য সব জায়গায় সুবিধামত গাছ রাখুন।


বইয়ের তাককে দিন নতুন চেহারা


রঙের ব্যবহারের চাতুর্য আপনার ঘরের চেহারা নিমেষে বদলে দেবে। আপনার ঘরে থাকা বইয়ের তাক বা আলমারিকে সম্পূর্ণ নতুন রঙে রাঙান বা চাইলে ওয়ালপেপারও ব্যবহার করতে পারেন। নীল, কমলা হলুদ ইত্যাদি উজ্জ্বল রঙের ব্যবহারে দেখবেন বুককেসের সাথে সাথে ঘরের চেহারাও বদলে গেছে।


মেঝেতে বিছান রাগস বা শতরঞ্জি


আপনার মেঝে যদি হয় কাঠের কিংবা একঘেয়ে রঙের সেক্ষেত্রে রাগস, কার্পেট বা শতরঞ্জির ব্যবহার বদলে দিতে পারে আপনার ঘরের চেহারা। ঠান্ডায় এসব আপনার ঘরের আরামও এনে দেবে বেশ কিছুটা। তবে নিয়মিত ধুলো পরিষ্কার করতে ভুলবেননা যেন।


বিবার্তা/শারমিন

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com