হংকংয়ে প্রত্যার্পণ বিল বাতিল হবে না
প্রকাশ : ১০ জুন ২০১৯, ১৫:৩২
হংকংয়ে প্রত্যার্পণ বিল বাতিল হবে না
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

হংকংয়ের বেইজিংপন্থী নেতা বলেছেন, প্রত্যার্পণ বিল বাতিলের কোনো পরিকল্পনা তার নেই। বিলটি নিয়ে ব্যাপক বিক্ষোভের একদিন পর সোমবার তিনি এ কথা বলেন।


হংকংয়ের প্রধান নির্বাহী ক্যারি ল্যাম সাংবাদিকদের বলেন, এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ আইন যা বিচারকে সমুন্নত করবে এবং একইসাথে হংকং আন্তঃসীমান্ত অপরাধ বিষয়ে তার দায়দায়িত্ব পূরণ করতে পারবে।


নগর সরকার পার্লামেন্টের মাধ্যমে যে প্রত্যার্পণ বিল পাশ করার উদ্যোগ নিয়েছে তাতে হংকং মূল ভূখণ্ড চীনসহ অন্যান্য দেশে সেদেশের অপরাধীদের ফেরত পাঠাতে পারবে।


বিলটির বিরুদ্ধে রবিবার সর্বস্তরের লাখ লাখ লোক রাস্তায় নেমে আসে। তাদের আশঙ্কা এ কারণে হংকংয়ের অভ্যন্তরীণ বিচার ব্যবস্থায় চীনের প্রভাব বেড়ে যাবে। ১৯৯৭ সালে হংকংকে চীনের কাছে হস্তান্তরের পর এটিই সবচেয়ে বড়ো বিক্ষোভ। আর একে ল্যামের জন্যে বড়ো ধরণের রাজনৈতিক সংকট হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।


কিন্তু বিক্ষোভের প্রেক্ষাপটে তার প্রথম মন্তব্য হলো বর্তমান এই আইন পরিবর্তনের কোনো পরিকল্পনা তার নেই। ব্যাপক এই জনবিক্ষোভ উপেক্ষা করার কথা অস্বীকার করে ল্যাম বলেন, হংকংয়ের চমৎকার স্বাধীনতা রক্ষা এবং আর্ন্তজাতিক মান অনুযায়ী মানবাধিকার নিশ্চিত করতে তার প্রশাসন ইতোমধ্যে বিলটিতে অনেক ছাড় দিয়েছে।


তিনি আরো বলেন, আমি ও আমার দল গুরুত্বপূর্ণ এই বিল নিয়ে কোনো মতামতকেই উপেক্ষা করছি না। আমরা মনযোগের সঙ্গে শুনছি ও শুনেই যাচ্ছি।


গতবছরের এক ঘটনার প্রেক্ষিতে প্রস্তাবিত এই বিলটি তৈরি করা হয়। তাইওয়ানে ছুটি কাটানোর সময় অন্তঃসত্ত্বা বান্ধবীকে হত্যার অভিয়োগ ওঠে হংকংয়ের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। কিন্তু তাইওয়ানের সাথে হংকংয়ের বন্দি বিনিময়ের কোনো চুক্তি না থাকায় সেই ব্যক্তিকে এখন তাইপেতে বিচারের জন্য পাঠানো যাচ্ছে না।


প্রস্তাবিত বিলে এরকম পরিস্থিতিতে সন্দেহভাজন অপরাধীকে ফেরত পাঠানোর পথ সুগম করা হয়েছে। কিন্তু চীন এই আইনের সুবিধা নিয়ে হংকংয়ের বাসিন্দাদের উপর খবরদারি বাড়াতে পারে বলে সন্দেহ থাকায় বিষয়টি সেখানে এক রাজনৈতিক ইস্যুতে পরিণত হয়েছে।


ফলে সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের সাধারণ বাসিন্দারা ছাড়াও ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্রও এই বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। পাশাপাশি তাইওয়ান জানিয়েছে, সন্দেহভাজন সেই খুনের মামলার আসামিকে ফেরত নিতে চায় না তারা। কেননা এটি এমন এক উদাহরণ সৃষ্টি করবে যা চীন ভবিষ্যতে কাজে লাগাতে পারে।


বেজিংয়ের দুর্বল আইন এবং মানবাধিকার রেকর্ডের কারণে সেখানে কোনো বন্দিকে ফেরত পাঠানোকে নিরাপদ মনে করছেন না তাইওয়ান ও হংকংয়ের সাধারণ মানুষ। সূত্র: এএফপি ও ডয়চে ভেলে


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com