মমতার সাথে সমঝোতা নয়, সংঘাত : অমিত শাহ
প্রকাশ : ২৮ জুন ২০১৮, ১৬:২৯
মমতার সাথে সমঝোতা নয়, সংঘাত : অমিত শাহ
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

ভারতের পরবর্তী বিধানসভা নির্বাচনে ''যে কোনো মূল্যে'' পশ্চিমবঙ্গের ক্ষমতা দখলে নেয়াই লক্ষ্য বলে জানিয়ে দিলেন কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপির শীর্ষ নেতা অমিত শাহ।


পশ্চিমবঙ্গ সফরের প্রথম দিন বুধবার কলিকাতার পোর্ট গেস্ট হাউসে রাজ্য বিজেপি নির্বাচন ব্যবস্থাপনা কমিটির বৈঠকে অমিত শাহ সাফ জানিয়ে দিলেন, কোনো কারণেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে সমঝোতার প্রশ্ন নেই। বরং তার সাথে সরাসরি সঙ্ঘাতের প্রস্তুতি নিক দল।


২০১৯ সালের নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে অমিত শাহ সুর চড়ালেন কংগ্রেসের বিরুদ্ধেও। ‘তোষণ নীতি’ নিয়ে তীব্র আক্রমণ করলেন দেশের প্রধান বিরোধী শক্তিকে।


নির্বাচন ব্যবস্থাপনা কমিটির (ইলেকশন ম্যানেজমেন্ট কমিটি) সঙ্গে বৈঠকে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, জাতীয় সম্পাদক রাহুল সিংহ, মুকুল রায়, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়, শমীক ভট্টাচার্য, সায়ন্তন বসুসহ রাজ্য বিজেপির প্রথম সারির সব নেতাই হাজির ছিলেন।


সভায় বিজেপির অন্যতম মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য বললেন, ‘‘বিজেপিকে এ রাজ্যে সর্বশক্তি দিয়ে ময়দানে নামতে বলেছেন অমিত শাহ। দলকে সন্ত্রাসের মুখোমুখি যে হতে হচ্ছে, তা তিনি জানেন। কিন্তু অমিতজির স্পষ্ট বার্তা, সন্ত্রাস-সন্ত্রাস বলে ঘরে বসে থাকলে চলবে না। সর্বত্র সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সরাসরি সংগ্রামে নামতে হবে। তৃণমূলকে কোনো অজুহাতেই এক ইঞ্চি জমিও ছাড়া নয়, অমিত শাহের বার্তা এককথায় এই।''


বলা ভালো যে, পশ্চিমবঙ্গের রাজনৈতিক শিবিরের একাংশে গুঞ্জন রয়েছে যে, বিজেপি ও তৃণমূল প্রকাশ্যে পরস্পরের তীব্র বিরোধিতা করলেও ভেতরে ভেতরে সমঝোতার পথও খোলা রাখা হচ্ছে। ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি নিরঙ্কুশ গরিষ্ঠতা না পেলে বাজপেয়ী জমানার মতো ফের তৃণমূলকে পাশে টেনে সরকার গড়ার পথ খোলা রাখার কথা বিজেপি নেতৃত্ব ভেবে রাখছে বলে মত ওই রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দেশজুড়ে বিজেপি-বিরোধী জোট গঠনের কথা বললেও কংগ্রেসকে সে জোটের বাইরে রাখতে চান তিনি। কংগ্রেসকে জোটের বাইরে রেখে আলাদা লড়তে বাধ্য করা হলে আখেরে বিজেপিরই লাভ হবে এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পরোক্ষে সেই পথই খুলে দিচ্ছেন বলে এ রাজ্যের বাম ও কংগ্রেস নেতৃত্বের দাবি।


২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে কংগ্রেসকেই নিজেদের সবচেয়ে বড় নিশানা বানানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছে বিজেপি। নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহ - দু’জনেই কংগ্রেসকে তীব্র আক্রমণ শুরু করেছেন। জরুরি অবস্থার কথা বার বার তুলে ধরে কংগ্রেসকে রাজনৈতিকভাবে অস্পৃশ্য করে তোলার কৌশল নিয়েছেন তাঁরা। কংগ্রেস তথা গাঁধী পরিবারের ভাবমূর্তি তলানিতে পৌঁছে দিয়ে বিজেপি এমন পরিস্থিতি তৈরি করতে চায়, যাতে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট গড়তে বিভিন্ন আঞ্চলিক দল দ্বিধান্বিত হয়ে পড়ে। এই পরিস্থিতিতে বাংলায় কি তৃণমূলের সর্বাত্মক বিরোধিতায় যাবে বিজেপি? এমন প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছিল রাজ্য বিজেপির অন্দরেও। অমিত শাহ এসে সে সংশয়ে জল ঢেলে দিয়েছেন বলে বিজেপি সূত্রের দাবি।


রাজ্য বিজেপির অন্যতম সাধারণ সম্পাদক তথা মুখপাত্র সায়ন্তন বসু বললেন, ‘‘অমিত শাহ স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, তৃণমূলের সঙ্গে কোনো রকম সমঝোতার প্রশ্ন নেই। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সে বার্তা আগেই দিয়েছেন। তিনি সরাসরি বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ করেছেন। যেসব শব্দ তিনি বাংলার মুখ্যমন্ত্রী সম্পর্কে প্রয়োগ করেছেন, কেরলের মুখ্যমন্ত্রী সম্পর্কেও ততটা কঠোর শব্দচয়ন করেননি। সেখান থেকেই বুঝে নেওয়া উচিত, তৃণমূলকে এক বিন্দু জমিও ছাড়া হবে না। সর্বভারতীয় সভাপতি নির্বাচন ব্যবস্থাপনা কমিটির সঙ্গে বৈঠকে সেই বার্তা আরও স্পষ্ট ভাবে দিয়েছেন।’’ সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা


বিবার্তা/হুমায়ুন/মৌসুমী

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com