কংগ্রেসে নতুন যুগের শুরু, সভাপতি রাহুল
প্রকাশ : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭, ১২:২০
কংগ্রেসে নতুন যুগের শুরু, সভাপতি রাহুল
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের সভাপতি হিসেবে শনিবার আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন রাহুল গান্ধী। গুজরাট ও হিমাচল প্রদেশ ভোটের ফল ঘোষণার ঠিক দু'দিন আগেই তার এই দায়িত্ব নেয়া যথেষ্ট তাত্পর্যপূর্ণ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।


এরমাধ্যমে ১৯ বছর পর শতাব্দীপ্রাচীন এই দলের নতুন সর্বভারতীয় সভাপতি হলেন রাহুল। শুরু হলো নতুন কংগ্রেস যুগের। এতোদিন এই পদ অলঙ্কার করে ছিলেন তার মা সোনিয়া গান্ধী।


দিল্লীতে ২৪ আকবর রোডে কংগ্রেসের প্রধান কার্যালয়ে শনিবার এই অভিষেক অনুষ্ঠান হয়। দলের সেন্ট্রাল ইলেকশন অথোরিটি প্রেসিডেন্ট মুল্লাপল্লী রামচন্দ্রণ সভাপতি হিসাবে যোগদানের সার্টিফিকেট রাহুলের হাতে তুলে দেন।


অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, সোনিয়া গান্ধী, বর্তমান ও সাবেক মুখ্যমন্ত্রী, এমপিসহ বিভিন্ন রাজ্যের কংগ্রেস নেতা ও মন্ত্রীরা। এছাড়া রাহুলের বোন প্রিয়াঙ্কা গান্ধীও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।


দলের সভাপতি নির্বাচনে আর কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় সোমবারই রাহুলকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু গুজরাটের বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত রাহুল কয়েকদিন সময় নিয়ে তারপর আনুষ্ঠানিকভাবে সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করছেন।


নেহেরু-গান্ধী বংশের পঞ্চম সদস্য হিসেবে কংগ্রেসের নেতৃত্ব দেবেন রাহুল। তিনি এমন এক সময়ে দলের দায়িত্ব নিলেন যখন কঠিন অবস্থার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে কংগ্রেস। একের পর এক রাজ্যের নির্বাচনে ধরাশয়ী হয়েছে দলটি। ২৯টি রাজ্যের মধ্যে সর্বসাকুল্যে পাঁচটি রাজ্যে টিমটিম করে জ্বলছে কংগ্রেসের প্রদীপ। মাঝে কিছু উপনির্বাচনে ভালো ফল করেছে তারা।


দু’দিন পরই গুজরাট ও হিমাচল প্রদেশের ভোটের ফল প্রকাশ। বিভিন্ন এক্সিট পোলে এই দুই রাজ্যে এগিয়ে রাখা হয়েছে বিজেপিকেই। এক্সিট পোলের ফলাফল মিলে গেলে সভাপতি পদে বসার পর তা হবে রাহুলের কাছে বড় ধাক্কা।


ফলে ৪৭ বয়সী রাহুলের আগামীদিনের রাজনৈতিক পথ যে মোটেই মসৃণ নয় তা এখন থেকেই স্পষ্ট। রাহুলের কাছে বড় চ্যালেঞ্জই হল ঝিমিয়ে পড়া দলটির সংগঠনকে ফের চাঙ্গা করে একাধিক রাজ্যে কংগ্রেসকে জিতিয়ে আনা।


২০১৩ সালে রাহুলকে সহসভাপতি নির্বাচন করা হয়। খাতায় কলমে সোনিয়া সভাপতি থাকলেও আসলে দল পরিচালনার কাজ করতেন রাহুলই। অসুস্থতার কারণে আগের মতো দলীয় কাজে সময় দিতে পারছিলেন না ৭১ বছর বয়সী সোনিয়াও।


১৯৯৮ সালে দলের দায়িত্ব নেয়া সোনিয়া শুক্রবার পার্টি প্রধানের পদ থেকে অবসর নেয়ার ঘোষণা দেন।


১৯২৯ সালে রাহুলের পূর্বপুরুষ জওহরলাল নেহরু সর্বভারতীয় কংগ্রেসের সভাপতি হয়েছিলেন। তারপর থেকে গত ৮৮ বছর ধরে মূলত নেহেরু-গান্ধী পরিবারের হাতেই আছে কংগ্রেসের নেতৃত্ব।


রাহুলের আগে তার পরিবারের তিন প্রজন্ম কংগ্রেসের সভাপতি হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন। কিন্তু নেহেরু, ইন্দিরা গান্ধী, রাজীব গান্ধী যখন কংগ্রেসের দায়িত্ব নিয়েছেন তখন দল ছিল ক্ষমতায়।


সোনিয়া কংগ্রেস বিরোধী দলে থাকা অবস্থায় দলের হাল ধরলেও তখন কংগ্রেস বর্তমানের মতো এতোটা দুর্বল ছিল না আর পরবর্তীতে তার সময়ে কংগ্রেসে ফের ক্ষমতায় এসে টানা দুই মেয়াদে ক্ষমতাসীন ছিল। সূত্র: এনডিটিভি ও ওয়েবসাইট


বিবার্তা/জাকিয়া


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com