পশ্চিমবঙ্গে ধর্ষণ ও লুট মামলায় পাঁচ বাংলাদেশি দোষী সাব্যস্ত
প্রকাশ : ০৭ নভেম্বর ২০১৭, ১৮:৫৬
পশ্চিমবঙ্গে ধর্ষণ ও লুট মামলায় পাঁচ বাংলাদেশি দোষী সাব্যস্ত
কলকাতা প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

পশ্চিমবঙ্গের রানাঘাটে একটি কনভেন্ট স্কুলের সন্ন্যাসিনীকে ধর্ষণের ঘটনায় এক বাংলাদেশিকে দোষী সাব্যস্ত করেছে কলকাতার নগর দায়রা আদালত। ওই বাংলাদেশির নাম নজরুল ইসলাম ওরফে নাজু (২৯)। মঙ্গলবার কলকাতা নগর দায়রা আদালতের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা হাকিম কুমকুম সিনহা এই রায় ঘোষণা করেন। পাশাপাশি ওই কনভেন্ট স্কুলে লুট ও তাণ্ডব চালানোর অভিযোগে আরও পাঁচজনকে দোষী সাব্যস্ত করেছে আদালত। এরা হলেন মিলন সরকার, ওহিদুল ইসলাম, মহম্মদ সেলিম শেখ, খালেদা রহমান ওরফে ফারুক ও গোপাল সরকার। এর মধ্যে গোপাল ছাড়া বাকিরা সকলেই বাংলাদেশি। আগামীকাল বুধবার দোষী ব্যক্তিদের সাজা ঘোষণা করা হবে।


এদিন রায় ঘোষণা করতে গিয়ে বিচারক জানান সন্ন্যাসিনীর সঙ্গে যা হয়েছে তা খুবই লজ্জাজনক। তবে গণর্ধষণ নয়, তাকে একজন ব্যক্তিই ধর্ষণ করেছিলেন। নির্যাতিতার মেডিকেল রিপোর্ট, সিসিটিভি ফুটেজ, ফরেনসিক রিপোর্ট ও সাক্ষ্য প্রমাণ খতিয়ে দেখেই এই রায় দেয়া হয়েছে।


উল্লেখ্য ২০১৫ সালের ১৪ মার্চ রাতে পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার রানাঘাটে ডন বসকো পাড়ায় কনভেন্ট স্কুলে ডাকাতি ও লুটের পাশাপাশি স্কুলের ৭১ বছরের এক বৃদ্ধা সন্ন্যাসিনীকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে। প্রথমে জেলা পুলিশ ওই মামলার তদন্ত শুরু করলেও পরে রাজ্য সরকারের নির্দেশে তদন্তভার দেয়া হয় সিআইডি’কে। জানা যায় ওইদিন গভীর রাতে কনভন্ট স্কুলে সাত দুর্বৃত্ত তাণ্ডব চালায়। স্কুল থেকে ১২ লাখ রুপি লুট করার পাশাপাশি ওই স্কুলেরই বৃদ্ধা সন্ন্যাসিনীকে ধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ।


তদন্তে নেমে ছয় মাসের মধ্যেই অভিযুক্ত সাতজনের মধ্যে ছয় জনকে আটক করে সিআইডি। এক অভিযুক্ত এখনও পলাতক। ওই ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে রানাঘাট মহকুমা আদালতে চার্জশিট জমা দেয়া হয়। যদিও নিরাপত্তার কারণেই ২০১৬ সালে রানাঘাট মহকুমা আদালত থেকে স্থানান্তরিত করলকতা নগর দায়রা আদালতে। গত ৩০ অক্টোবর এই মামলার বিচার প্রক্রিয়া শেষ হয়। মামলার শুনানি শেষ হওয়ার পর এদিন রায় ঘোষণা করলেন বিচারক।


আড়াই বছর আগেকার ওই বর্বরতার খবরে পশ্চিমবঙ্গ তো বটেই, গোটা দেশ এমনকী বিদেশেও তোলপাড় পড়ে যায়। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিও ওই ঘটনার নিন্দা জানান এবং সিআইডি’কে দিয়ে তদন্তের নির্দেশ দেন।


অভিযুক্ত পক্ষের আইনজীবী ফজলে আহমেদ খান জানান ‘শুধু ধর্ষণের ঘটনায় ভারতীয় দন্ডবিধির ৩৭৬ ধারায় নজরুল ইসলামকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। বাকি পাঁচজনের মধ্যে গোপাল সরকার দুবৃত্তদের আশ্রয় দেয়ার অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন এবং চার জনকে লুট ও তাণ্ডবের অভিযোগে ভারতীয় দন্ডবিধির ৩৯৫ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে’।


বিবার্তা/ডিডি/সোহাগ

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com