অ্যালজাইমার্স চিকিৎসায় মস্তিষ্কে পেসমেকার
প্রকাশ : ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৪:৩৯
অ্যালজাইমার্স চিকিৎসায় মস্তিষ্কে পেসমেকার
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

পেসমেকার শব্দটির সঙ্গে আমরা সবাই পরিচিত। হৃদযন্ত্রের স্পনদন ঠিক রাখতে চিকিৎসকরা বুকে পেসমেকার বসাতে বলেন। কিন্তু এখন থেকে মানুষের মাথায়ও পেসমেকার বসানো যাবে। আগামীতে এই চিকিৎসা মানুষ পাবে। বিশেষ করে অ্যালজাইমার্স ও পার্কিনসন রোগে আক্রান্তরা এই চিকিৎসার সুফল পাচ্ছেন। তবে তা যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায়।


বিশ্বে দ্রুত গতিতে বাড়ছে অ্যালজাইমার্স রোগীর সংখ্যা। বয়স্ক মানুষদের অধিকাংশ এই রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। আর এর চিকিৎসা নিয়ে চলছে নানা গবেষণা। অ্যালজাইমার্স আক্রান্ত রোগীরা কোনো কিছু মনে রাখতে পারেন না। এই রোগের প্রকোপ যখন বেশি হয় তখন মস্তিস্ক কাজ করা ছেড়ে দেয়। ব্যক্তি মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যায়।


অ্যালজাইমার্স রোগ মোকাবেলায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চিকিৎসকরা নতুন একটি কৌশল প্রয়োগ করা শুরু করেছেন। মস্তিষ্কের পেসমেকার বসিয়ে অ্যালজাইমার্স রোগ সারানোর চেষ্টা করছেন তারা।


অ্যালজাইমার্স আক্রান্ত এক রোগীর নাম লা ভোনি মুরি। মুরির মস্তিস্কের গভীরে তার বসানো হয়েছে। তার মস্তিস্কের যে অংশ কোনো কিছু সিদ্ধান্ত নিতো ও সমস্যা সমাধানে নির্দেশ দিয়ে থাকতো সেই অংশে এই তার বসানো হয়। লা ভোনির বয়স ৮৫ বছর। দীর্ঘ দিন ধরে তিনি ডেমনসিয়া অর্থাৎ স্মৃতিভ্রষ্ট রোগে ভুগছেন। তার মস্তিষ্কের গভীরে ইলেকট্রোড তার বসিয়ে দেয়া হয়েছে। এই তার মস্তিষ্কের ওই অংশে উদ্দীপনা সৃষ্টি করবে যে অংশটির অ্যালজাইমার্স আক্রান্ত হয়ে অসক্রিয় হয়ে গিয়েছিল। এতে রোগী তার স্বাভাবিক সিদ্ধান্ত নিতে পারবে। ভুলে যাওয়া বিষয় মনে করতে পারবে।


বিজ্ঞানীরা এই যন্ত্রের নাম দিয়েছেন ডিপ ব্রেন স্টিমুল্যাশন। সংক্ষেপে ডিবিএস। রোগীকে অজ্ঞান করে তাদের মাথায় এই ডিবিএস বসানো হয়। যন্ত্রটি কাজ করে একটি পালস জেনারেটরের শক্তিতে। মস্তিষ্কে যে তারগুলো বসানো হয় সেগুলো এই পালস জেনারেটরের সঙ্গে যুক্ত থাকে। এই পালস জেনারেটর বুকে চামড়ার নিচে থাকে। তারসহ এই পালস জেনারেটরকে বলা হচ্ছে পেসমেকার। এই পালস জেনারেটর থেকে বৈদ্যুতিক উদ্দীপনা মস্তিষ্কের অসক্রিয় অংশকে সক্রিয় করে। এতে অ্যালেজামইর্স রোগের প্রকোপ কমে যায়। পারকিনসন রোগীদের ক্ষেত্রে এই ডিবিএস যন্ত্র ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে আশানুরূপ ফল পাওয়া গেছে।


সাড়ে তিন বছর হলো লা ভোনির মাথায় পেসমেকার বসানো হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ওহিও রাজ্যের বাসিন্দা তার স্বামী টম বলেন, তার ভুলে যাওয়া রোগ খারাপ থেকে আরো বেশি খারাপের দিকে যাচ্ছিলো। কিন্তু এই যন্ত্র লাগানোর পর এতে রোগের প্রকোপ কমতে থাকে। সে এখন সব ধরনের কাজ করতে পারে। আরো দুই অ্যালজাইমার্স রোগীর মাথায় পেসমেকার বসানো হয়েছিল। তাদের মধ্যে একজন ভালো ফল পেয়েছে। অন্যজন কোনো ফল পাননি। অ্যালজাইমার্স রোগের জার্নালে একথা বলা হয়।


অভিজ্ঞরা বলছেন, যন্ত্র সম্পর্কে মন্তব্য করার এখনই সময় নয়। আরো সময় নিয়ে দেখতে হবে এই যন্ত্রের ফলাফল কেমন।



নিউরো সার্জারিতে অভিজ্ঞ কানাডার চিকিৎসক অধ্যাপক অ্যান্দ্রে লোজানো বলেন, আ্যলজাইমার্স রোগ মোকাবেলার জন্য আমাদের উন্নতর চিকিৎসা প্রয়োজন। তিনি বেশ কয়েকজন অ্যালজাইমার্স রোগীর ওপর ডিবিএস যন্ত্র বসান। এতে ভালো ফল পাওয়া গেছে। তিনি এ ধরনের চিকিৎসাকে সম্পূর্ণ নিরাপদ মনে করেন।


তিনি বলেন, পার্কিনসন রোগে আক্রান্ত এক ব্যক্তি ৩০ বছর ধরে ডিবিএস বহন করছেন। তিনি সুস্থ ও নিরাপদ আছেন। তিনি বলেন, ডিবিএস বসিয়ে অ্যালজাইমার্ম চিকিৎসা, বিষয়টা এমন নয়। ডিবিএস ব্যবহার করে আ্যলাজাইমার্সের প্রকোপ কমানো গেছে। আরো রোগীর ওপর এই যন্ত্রের পরীক্ষা করা উচিত। সূত্র : বিবিসি


বিবার্তা/সুমন/কাফী

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com