‘বিবার্তার সম্মাননায় আমি অভিভূত’
প্রকাশ : ০৬ মার্চ ২০১৮, ২১:৩৯
‘বিবার্তার সম্মাননায় আমি অভিভূত’
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

কিংবদন্তী অভিনেত্রী দিলারা জামান। পেয়েছেন বিবার্তার সম্মাননা। কিংবদন্তী অভিনেত্রী এই সম্মাননা পেয়ে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন। বলেছেন, বিবার্তাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। এই সম্মাননা আমার অনেক বড় পাওয়া, সত্যিই অভিভুত আমি। আমার এ অনুভূতি আজ বলার ভাষ্য নেই। এমন করে নিজের অনুভুতি প্রকাশ করেছেন কিংবদন্তী এই অভিনেত্রী। অনুভুতি প্রকাশের এক পর্যায়ে তিনি মুক্তিযুদ্ধের কথা বলতে বলতে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েছিলেন।


অভিনেত্রী দিলারা জামান বলেছেন, সম্মাননা পেয়ে নিজেকে অনেক ভাগ্যবান মনে করছি। তাদের কাছে আমি কৃতজ্ঞ। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের পাশাপাশি এই নিউজ পোর্টালটি সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে যে উদ্যোগ নিয়েছে তা সত্যিই প্রশংসনীয়।


মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৩টায় জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তনে সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠান শুরু হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত আছেন জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বি মিয়া। বিশেষ অতিথি হিসেবে রয়েছেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি।


তিনি বলেছেন, কাজের স্বীকৃতি যদি হয় পুরস্কার ভালো তো অবশ্যই লাগে। তবে একটু অবাকই হয়েছি। কারণ এখনোতো কাজের মধ্যেই আছি। এই পদক আমার দায়িত্ব আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।


কিংবদন্তী এই অভিনেত্রী বলেছেন, জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের কথা। ১৯৭১ এ ভয়াবহ যে যুদ্ধ সংগঠিত হয়েছিলো সেই মুক্তিযুদ্ধের সাফল্যই প্রমাণ করে একটি বলিষ্ঠ রাজনৈতিক নেতৃত্বের উপস্থিতি, যার নাম- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ঠিক সেই বলিষ্ঠ পথে চলেছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা।


সম্মাননার মঞ্চে তিনি বলেছেন, আজ মঙ্গলবার মৃত্যুরকোলে ঢলে পড়লেন ফেরদৌসি প্রিয়ভাষিণী। তার আত্মার শান্তি কামনা করেছেন তিনি।


অনুষ্ঠানে তিনি সবার দোয়া চেয়ে বলেছেন, আপনারা দোয়া করবেন যেনো দেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে তেমনি যেনো যোগ্যতা দিয়ে কাজ দিয়ে নিজের অবস্থান টিকিয়ে রাখতে পারি। আমরা সবাই এক থাকতে পারি। আমরা সবাই সংঘবদ্ধ হই।


জীবনের পঁচাত্তরটা বসন্ত পার করে ফেলেছেন প্রায়, অভিনয়ের সঙ্গে জড়িয়ে আছেন তাও প্রায় পঞ্চাশ বছরের বেশী হয়ে গেল। এখনও এই মানুষটা অসম্ভব বিনয়ী। তিনি ইংরেজ আমলে জন্মেছেন, পাকিস্তান দেখেছেন, দেখেছেন মুক্তিযুদ্ধের মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশের অভ্যুদয়। বিটিভির জন্মের সময়টা থেকে নাটকের চেনামুখ তিনি, কাজ করেছেন ডাকসাইটে সব অভিনেতা আর গুণী সব নির্মাতার সঙ্গে। সময় আর অভিজ্ঞতা তাকে সমৃদ্ধ করেছে, অহঙ্কারী করে তুলতে পারেনি। নিজেকে এখনও আনকোরা একজন অভিনেত্রী হিসেবে ভাবতেই পছন্দ করেন। জীবনের সবচেয়ে বড় অর্জন মনে করেন মানুষের ভালোবাসা প্রাপ্তিটাকেই।


দিলারা জামান ফখরুজ্জামান চৌধুরীর সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। ফখরুজ্জামান বাংলা একাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত কথাসাহিত্যিক। তাদের দুই কন্যা - তানিয়া ও যুবায়রা। দুই কন্যার মধ্যে তানিয়া ডাক্তার এবং যুবায়রা পেশায় আইনজীবি। তাছাড়া দিলারা জামানের একজন পালক ছেলে সন্তান রয়েছে, যার নাম আশফাক।


৬০' দশকের শুরুতে বাংলা নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে দিলারা জামানের অভিষেক। প্রথম জীবনে নায়িকা, পরবর্তী সময়ে কখনো বড় বোন, মা, খালা, দাদী চরিত্রে অভিনয় করে দিলারা জামান তার সুপ্ত প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে চলেছেন। পাঁচ শতাধিক বাংলা নাটকে অভিনয় করেছেন খ্যাতিমান গুণী অভিনয় শিল্পী দিলারা জামান।


বিবার্তা/শারমিন

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com