একজন হুমায়ুন ফরীদি
প্রকাশ : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৫:৩২
একজন হুমায়ুন ফরীদি
বিনোদন ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

দেখতে দেখতে ছয় বছর পেরিয়ে গেল। ২০১২ সালের এই দিনে মাত্র ৬০ বছর বয়সে ফাল্গুনের এই প্রথম দিনটিতেই সবাইকে কাঁদিয়ে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেন দেশের অগণিত মানুষের প্রিয় অভিনেতা হুমায়ুন ফরীদি।' বাংলাদেশের অভিনয় জগতের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র ছিলেন তিনি। মঞ্চ, টেলিভিশন, চলচ্চিত্রে সবখানেই ছিল তার সমান যাতায়াত। হুমায়ুন ফরীদির মতো শিল্পী যেকোনো দেশে জন্মাতে যুগ যুগ সময় লাগে, শতাধিক বছর লাগে।


হুমায়ুন ফরীদি ঢাকার নারিন্দায় ১৯৫২ সালের ২৯শে মে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম এটিএম নূরুল ইসলাম ও মা বেগম ফরিদা ইসলাম। চার ভাই-বোনের মধ্যে তার অবস্থান ছিল দ্বিতীয়।


আজ তিনি নেই। পরপারে চলে গেলেও রয়ে গেছেন সবার মনে। শোবিজ অঙ্গনে এক আফসোসের নাম হুমায়ূন ফরীদি। এই স্থায়ী আফসোসটা ক্ষনে ক্ষনেই জেগে উঠে। কান পাতলেই শোনা যায়। কি অভিনেতা কি পরিচালক, হোক সেটা সিনেমা, নাটক, টেলিফিল্ম অথবা মঞ্চের- সবারই এক আফসোস- এমন শক্তিমান অভিনেতা ছাড়া মনের মতো চরিত্র ফুটিয়ে তোলা মুশকিল। সেই মনের মতো চরিত্রটি ফুটিয়ে তোলার মানুষটি আর নেই!


১৯৬৫ সালে পিতার চাকরীর সুবাদে মাদারিপুরের ইউনাইটেড ইসলামিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় এ ভর্তি হন হুমায়ুন ফরীদি। সেখান থেকেই নাট্য জগতে প্রবেশ করেন এই কিংবদন্তী। তার নাট্যঙ্গনের গুরু বাশার মাহমুদ। তখন নাট্যকার বাশার মাহমুদের শিল্পী নাট্যগোষ্ঠী নামের একটি সংগঠনের সাথে যুক্ত হয়ে কল্যাণ মিত্রের 'ত্রিরত্ন' নাটকে 'রত্ন' রত্ন চরিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে জীবনে সর্বপ্রথম দর্শকদের সামনে অভিনয় করেন। এরপর 'টাকা আনা পাই', 'দায়ী কে', 'সমাপ্তি', 'অবিচার' সহ ৬টি মঞ্চ নাটকে অংশ নেন তিনি। অবশেষে ১৯৬৮ সালে মাধ্যমিক স্তর উত্তীর্ণের পর পিতার চাকরির সুবাদে চাঁদপুর সরকারি কলেজে পড়াশোনা করেন। এরপর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করেন।


বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত বিখ্যাত সংশপ্তক নাটকে 'কানকাটা রমজান' চরিত্রের মধ্যদিয়ে টেলিভিশন জগতে প্রবেশ করেন। এবং এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। তার ঝুলিতে নিখোঁজ সংবাদ, হঠাৎ একদিন, পাথর সময়,সমুদ্রে গাংচিল, কাছের মানুষের মত অসংখ্য নাটক রয়েছে। এদিকে সন্ত্রাস, দহন, লড়াকু, দিনমজুর, বীর পুরুষ সহ বহু চলচ্চিত্র রয়েছে তাঁর ঝুলিতে।


২০০৪ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন হুমায়ুন ফরীদি। আর এ বছর মরণোত্তর একুশে পদকের জন্য মনোনীত হয়েছেন তিনি।


কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ আক্ষেপ করে প্রয়াত নন্দিত অভিনেতা হুমায়ুন ফরীদি সম্পর্কে বলেছিলেন, ‘আচ্ছা, এই মানুষটি কী অভিনয়কলায় একটি একুশে পদক পেতে পারেন না! এই সম্মান কী তার প্রাপ্য না?’ বেঁচে থাকতে ফরীদি তা পাননি। তবে মরণোত্তর একুশে পদক পাচ্ছেন তিনি। অভিনয় অঙ্গনে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তাকে এই স্বীকৃতি এবার দিলো সরকার।


বিবার্তা/শারমিন

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com