মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান রক্ষায় এবার ৬ দফা দাবি
প্রকাশ : ১৫ এপ্রিল ২০১৮, ২৩:৪৯
মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান রক্ষায় এবার ৬ দফা দাবি
ছবিঃ মহিউদ্দীন রাসেল
ঢাবি প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান রক্ষায় এবার ৬ দফা দাবি জানিয়েছে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানেরা।


রবিবার শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে ‘বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও প্রজন্ম সমন্বয় জাতীয় কমিটির ব্যানারে আয়োজিত গণসমাবেশে
এ ৬ দফা দাবি তুলে ধরা হয়।


গণসমাবেশে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মেহেদী হাসান বলেন, আমরা কোটার দাবিতে আসিনি, আমরা এসেছি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান অক্ষু্ণ্ণ রাখা এবং তাদের পরিবারকে সুরক্ষা দেওয়ার জন্য আইন প্রণয়ের দাবি নিয়ে। এসময় তিনি সমাবেশ থেকে ছয় দফা দাবিসহ নতুন কর্মসুচি ঘোষণা করেন।



দাবিগুলো হলো:
১. মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান অক্ষুণ্ন রাখতে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার সুরক্ষা আইন করতে হবে।


২. যুদ্ধাপরাধী ও মানবতাবিরোধী অপরাধীদের স্থাবর-অস্থাবর সব সম্পদ বাজেয়াপ্ত করে রাষ্ট্রের আয়ত্তে আনতে হবে।
৩. যুদ্ধাপরাধী ও মানবতাবিরোধীদের তালিকা প্রকাশ এবং তাদের সন্তান ও প্রজন্মকে ১০ পুরুষ পর্যন্ত সরকারি, আধা-সরকারি ও স্বায়ত্বশাসিত সকল প্রতিষ্ঠানে চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে অযোগ্য ঘোষণা করা এবং স্বাধীনতার পর থেকে অদ্যাবধি যারা সরকারি চাকরিতে নিয়োগ পেয়েছে তাদের নিয়োগ বাতিল করা।


৪. কোটা সংস্কার আন্দোলনের নামে যারা বঙ্গবন্ধুর ছবি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে তাদের দ্রুত বিচারের আওতায় আনতে হবে।


৫. যারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে অপপ্রচার চালিয়ে দেশে অরাজকতা ‍ও অশান্তি সৃষ্টি করেছে তাদের অনতিবিলম্বে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা।


৬. বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যে সকল প্রতিক্রিয়াশীল শিক্ষকগণ নেপথ্যে থেকে কোটা সংস্কার আন্দোলনের নামে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে মদদ দিয়েছে অনতিবিলম্বে তাদের অব্যাহতিসহ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা।


গণসমাবেশে পাঁচ দফা দাবি আদায়ে নতুন কর্মসুচিও ঘোষণা করা হয়।



কর্মসূচিসমূহ:
১. আগামী ২৫ এপ্রিল বেলা ১১টায় সব জেলা-উপজেলা পর্যায়ে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে দাবিনামা পেশ।


২. ৩০ এপ্রিল একই সময়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে সকল জেলা-উপজেলার প্রতিনিধিদের নিয়ে সম্মিলিতভাবে দাবিনামা পেশ।


৩. ৮ মে সংবাদ সম্মেলন।


৪. ৮ মের পরে নিবন্ধিত সকল রাজনৈতিক দলসমূহকে লিখিতভাবে দাবিগুলোর সঙ্গে একমত পোষণ করেন কিনা এবং আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কোন যুদ্ধাপরাধী, মানবতাবিরোধী বা সন্তান ও প্রজন্মকে মনোনয়ন দেবে কিনা লিখিতভাবে অবগত করার অনুরোধপত্র প্রদান কর্মসুচি।


৫. ৯ জুন বিকেল তিনটায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তান-প্রজন্মকে নিয়ে মহাসমাবেশ।


সমাবেশ শেষে একটি প্রতিবাদী মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানেরা
শপথ বাক্য পাঠ করেন।


গণসমাবেশে অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক আল মামুন, কেন্দ্রীয় কমিটির সমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক মারুফা আক্তার প্রমুখ।


বিবার্তা/রাসেল/নুর

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com