পৃথিবীতে বিক্রি হয় না এমন কিছু নেই: জবি উপাচার্য
প্রকাশ : ১৯ আগস্ট ২০১৭, ০৯:২৬
পৃথিবীতে বিক্রি হয় না এমন কিছু নেই: জবি উপাচার্য
জবি প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

দেশের বিশিষ্ট বিপণনতাত্ত্বিক ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) উপচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেছেন, পৃথিবীতে বিক্রি হয় না এমন কিছুই নেই। আবার পৃথিবীতে অনেক ভালো কিছুরই ক্রেতা নেই। অনেকেই মনে করেন উৎপাদন করলেই বোধ হয় কাজ শেষ। উৎপাদন করলেই যে বিক্রি হবে বিষয়টা এমন না। আবার অনেকেই মনে করেন, কম খরচে স্বাস্থ্যসম্মত কিছু বাজারে ছাড়লেই তা বিক্রি হবে; তাও ঠিক নয়।

 

শুক্রবার বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে ‘শিল্পের বিপণন: বিপণনের শিল্প’ শীর্ষক সংলাপে এমন কথা বলেন তিনি।

 

এসময় উপাচার্য বলেন, কোনো পণ্য বাজারজাতকরণের সময় ক্রেতার চাহিদা অনুযায়ী বাজারকে বিভিন্ন ভাগে ভাগ করতে হবে। অনেক সময় একটি পণ্য বাজারজাতের সময় উৎপাদন খরচের চেয়ে মার্কেটিং খরচ বেশি রাখা হয়। কারণ, তখন সেটি বেশি গুরুত্ব বহন করে। পণ্যবাজারে ছাড়ার সময় সুনির্দিষ্ট করতে হবে কাদের জন্য পণ্যটি বাজারে ছাড়া হবে। এর প্রধান টার্গেটক্রেতা কারা বুঝতে হবে। একসাথে সবার মন খুশি করার চিন্তা করলে সব নষ্ট হয়ে যাবে। একসাথে সবার মন সন্তুষ্ট করা যায় না।

 

তিনি বলেন, একটি পণ্য উৎপাদনের আগে মনে রাখতে হবে আপনার সামর্থের কথা। যদি সামর্থ কম হয় আর আপনি সে সামর্থের দিকে গুরত্ব না দিয়ে, মনমতো কাজ শুরু করেন; তাহলে এমন হতে পারে যে মার্কেট ধরার আগেই আপনি মার্কেট থেকে ছিটকে পড়বেন। তাই সামর্থের সাথে সামঞ্জস্য রেখে পণ্য উৎপাদন করতে হবে। এটাকে বলে পছন্দ সীমিতকরণ প্রক্রিয়া।

 

পণ্য বাজারে ছাড়ার জন্য পণ্যের ব্রান্ডিংয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করেন ড. মীজানুর রহমান।

 

তিনি বলেন, সবশেষে একজন বিক্রেতা বা কোম্পানির মালিককে বুঝতে হবে পণ্যটি বাজারে ছাড়ার সঠিক সময় কোনটি? ঠিক কোন সময় পণ্যটি বাজারে ছাড়লে ক্রেতা পাওয়া যাবে। এরপর বুঝতে হবে ঠিক কোন পরিবেশে বা কোন অঞ্চলে পণ্যটি ছাড়লে ক্রেতাদের নজরে পড়বে।

 

উদাহরণ হিসেবে অধ্যাপক জবি উপাচার্য বলেন, ভারতে যখন আইপিএল চলে তখন ভালো কোনো সিনামা মুক্তি পায় না। কারণ, তারা বুঝে এখন সবাই ক্রিকেট নিয়ে ব্যাস্ত।

 

সংলাপে আরো উপস্থিত ছিলেন মননের সভাপতি ড. সেলিম মোজাহার, কার্যনির্বাহী মাহবুব মাসুম, ঢাকা বিশ্বিবিদ্যালয় চারুকলা অনুষদের ডিন ড. নেসার আলী, জবি প্রক্টর ড. নুর মোহাম্মদ, চলচ্চিত্র নির্মাতা মসিহ উদ্দীন সাকের, চিত্র সমালোচক মঈন উদ্দীন খালেদ, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মহিদুল ইসলাম সাচ্চু, জবি বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শরীফ সিরাজ, মনোবজ্ঞিান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. অশোক কুমার সাহা, অধ্যাপক ড. কাজী সাইফুদ্দীন, সহকারী অধ্যাপক কিশোর রায় প্রমুখ।

 

বিবার্তা/আদনান/নিশি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com