আবরার হত্যা: মেসেঞ্জার গ্রুপে নির্যাতনের ছক
প্রকাশ : ১১ অক্টোবর ২০১৯, ০৮:২৮
আবরার হত্যা: মেসেঞ্জার গ্রুপে নির্যাতনের ছক
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদকে নির্যাতন করে হল থেকে বের করে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয় ফেসবুকের একটি মেসেঞ্জার গ্রুপের আলোচনার মধ্য দিয়ে।


গোপন কথোপকথনের বিষয়টি পুলিশের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে। ছাত্রলীগের নেতারা মেসেঞ্জারে গ্রুপ খুলে নিজেরা সেখানে আলোচনা করে। আবরার নিহত হওয়ার আগে ও পরে তারা সেখানে কথা বলে।


১৭-এর আবরার ফাহাদ। মেরে হল থেকে বের করে দিবি দ্রুত। এর আগেও বলেছিলাম। তোদের তো দেখি কোনো বিগার নাই। শিবির চেক দিতে বলেছিলাম। শনিবার (৫ অক্টোবর) দুপুর ১২টা ৪৭ মিনিটে বুয়েট ছাত্রলীগের মেসেঞ্জার গ্রুপে এমন কথোপকথন ছিল মেহেদী হাসান রবিনের।


তিনি বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। তার নির্দেশনার উত্তরে মনিরুজ্জামান মনির বলেন, 'ওকে ভাই।' পরে মেহেদী উত্তেজিত হয়ে একটি অশ্নীল শব্দ লিখে বলে, '...ভাই। দুই দিন সময় দিলাম।' মনির হলেন বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাহিত্য সম্পাদক। এরপর গ্রুপ চ্যাটে মেহেদী লিখেন, 'দরকার হলে ১৬ ব্যাচের মিজানের সঙ্গে কথা বলিস। ও শিবির ইনভোলমেন্টের ব্যাপারে আরো কিছু ইনফো দেবে।' মিজান হলেন আবরারের রুমমেট।


তারা দু'জন শেরেবাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষে থাকতেন। আবরার হত্যার পর তদন্তে বেরিয়ে আসছে মেসেঞ্জার গ্রুপে এমন কথোপকথন। গ্রুপের স্ট্ক্রিনশটে দেখা যায়, ওই গ্রুপটি চালাত শেরেবাংলা হল ছাত্রলীগের ১৬ ও ১৭ ব্যাচ। যার সংক্ষিপ্ত নাম 'এসবিএইচএসএল-১৬+১৭'। ওই কথোপকথন দেখে এটার প্রমাণ মিলল, নির্যাতনের জন্য আগে থেকেই টার্গেটে ছিলেন আবরার।


মেসেঞ্জার গ্রুপের কথোপকথনে আরো রয়েছে, ঘটনার রাতে একজন লিখেন, 'আবরার ফাহাদকে ধরছিলি তোরা।' উত্তরে একজন, 'হ।' প্রথমজন আবার জানতে চান, 'বের করছস।' দ্বিতীয়জন জানতে চান, 'হল থেকে নাকি স্বীকারোক্তি।' এরপর উত্তরে আরেকজন বলে, 'মরে যাচ্ছে।' অন্যজন বলে, 'মাইর বেশি হয়ে গেছে।' উত্তরে আরেকজন বলে, 'ওহ! বাট ওরে লিগ্যালি বের করা যায়।'


একই মেসেঞ্জার গ্রুপের অপর একটি স্ট্ক্রিনশটে আবরারকে ধরে আনার আগের একটি কথোপকথন উঠে আসে। মনির লিখেছে, 'নিচে নাম সবাই।' 'ওকে' ভাই বলে পরপর দু'জন পোস্ট করে। আবরারকে যখন নির্যাতন করা হয়, তখন একই গ্রুপে একজন জানতে চান, 'আবরার কি হলে আছে?' আবু নওশাদ সাকিব ও শামসুল নামে দু'জন বলে, 'হ ভাই। ২০১১-তে আছে।'


বিবার্তা/তাওহীদ

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanews24@gmail.com ​, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com