জনগণ তুষ্ট হলে আপত্তি কোথায়
প্রকাশ : ০৭ জুন ২০১৮, ১৮:২৭
জনগণ তুষ্ট হলে আপত্তি কোথায়
প্রিন্ট অ-অ+

অর্থমন্ত্রী আবুল মা'ল আবদুল মুহিত জাতীয় সংসদে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট উপস্থাপন করলেন। এটি দেশের ৪৭তম, আওয়ামী লীগ সরকারের ১৮তম এবং অর্থমন্ত্রীর দ্বাদশ বাজেট প্রস্তাব। ‘'সমৃদ্ধ আগামী পথযাত্রায় বাংলাদেশ'’ নাম দিয়ে প্রস্তাবিত বাজেটে ব্যয় ধরা হয়েছে ৪,৬৪,৫৭৩ কোটি টাকা।


বাজেট পেশ হওয়ার পর এর ভালো-মন্দ নানাদিক নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা হবে, এটাই স্বাভাবিক। এটা যেমন সংসদে হবে, তেমনি সংসদের বাইরেও হবে - সভাসমিতিতে, মিডিয়ায়, সোশ্যাল মিডিয়ায়। এতে আপত্তির কিছু নেই। বরং একে আমরা একটি প্রাণবন্ত গণতান্ত্রিক সমাজের হৃদস্পন্দন বলেই মনে করি।


আমাদের বিস্ময় বাজেট পেশের আগে মিডিয়ার প্রতিক্রিয়ায়। ক'দিন আগে থেকেই আমরা দেখতে পেলাম, কিছু মুদ্রিত সংবাদমাধ্যমে ফলাও করে লেখা হতে থাকলো, আসছে নির্বাচনী বাজেট, ভোটারতুষ্টির বাজেট, সবাইকে তুষ্ট করার বাজেট ইত্যাদি। এবং এ ধরনের বাজেট আসার সম্ভাবনায় তাদের উদ্বেগও গোপন থাকেনি।


আমরা কারো কথা বলার অধিকার হরণে বিশ্বাসী নই। কেউ যদি মনে করে থাকেন যে নির্বাচনকে সামনে রেখে বাজেট প্রণয়ন, ভোটার তথা সবাইকে তুষ্ট করার চিন্তা থেকে বাজেট প্রণয়ন করা গুরুতর অন্যায় কিছু, তাহলে সেকথা তারা বলতেই পারেন। এবং বলেছেনও।


কিন্তু আমরা বুঝতে পারছি না, আসলে অন্যায়টা কোথায়। একটা রাজনৈতিক দল বা জোটের সরকার নির্বাচনকে মাথায় রাখবে - এটাই স্বাভাবিক নয় কি? কারণ, রাজনৈতিক শক্তির কাছে ক্ষমতার পালাবদলের স্বাভাবিক প্রক্রিয়াই হচ্ছে নির্বাচন। আর নির্বাচনে ভোট দেয় দেশের সব মানুষ। কাজেই একটি গণতান্ত্রিক সরকার ভোটারদেরকে এবং সবাইকে তুষ্ট করতে চাইবে এবং সবাই তুষ্ট হয়মতো বাজেট রচনা করবে - এটাই তো স্বাভাবিক। আমরা ভেবে পাই না, জনগণ তুষ্ট হলে আপত্তি কোথায়?


অর্থমন্ত্রী এ কাজটা প্রস্তাবিত বাজেটে করেছেনও। তাঁকে অভিনন্দন!

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com